শ্রীকৃষ্ণের বহু বিবাহ, একটি আল্টিমেট আষাঢ়ে গল্প। শ্রীকৃষ্ণের বহুবিবাহ সম্পর্কে প্রচলিত গল্প এই যে, শ্রীকৃষ্ণের প্রধান মহিষী বা স্ত্রী ছিলো ৮ জন এবং আসামের রাজা নরকাসুরের অন্তঃপুর থেকে উদ্ধার করা স্ত্রীর সংখ্যা ছিলো ১৬,১০০ জন; সব মিলিয়ে শ্রীকৃষ্ণের স্ত্রীর সংখ্যা ১৬,১০৮।

এই কথা শুনেলই তো প্রথমত যেকোনো হিন্দুর মাথা হেট হয়ে যায়, হিন্দু ধর্মের প্রধান পুরুষ শ্রীকৃষ্ণকে নিয়ে তাদের আর কোনো গর্ব করার জায়গা থাকে না। আর এই তথ্যকে সামনে এনে মুসলমানরাও যুক্তি দেখায় যে, কৃষ্ণ যদি ১৬ হাজার বিয়ে করতে পারে, তাহলে আমরা চারটা বিয়ে করতে পারবো না কেনো ?

আর প্রকৃত তথ্য না জেনে, এইসব প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে বা শ্রীকৃষ্ণের বহু বিবাহের পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন করতে গিয়ে আমরা হিন্দুরাও নানা রকম ন্যায় ও যুক্তি সঙ্গত গল্পের অবতারণা করার চেষ্টা করে থাকি, বাস্তবে যার কোনো প্রয়োজনই নেই; কারণ, শ্রীকৃষ্ণের স্ত্রী ছিলো মাত্র এক জন, সে রুক্মিনী। অপর ১৬,১০৭ জন সম্পর্কে যে গল্প, তা যে ডাহা মিথ্যা, তা এই পোস্ট পড়ার পর বুঝতে পারবেন।

এই পোস্টে প্রথমে আমি শ্রীকৃষ্ণের তথাকথিত প্রধান ৮ জন মহিষী সম্পর্কে পোস্টমর্টেম করবো, তারপর ১৬,১০০ জন সম্পর্কে ব’লে আমার পোস্টের ইতি টানবো, যার মাধ্যমে আপনারা জানতে পারবেন, হিন্দু ধর্মের এক মহান সত্য সম্পর্কে। তাই আর কথা না বাড়িয়ে শুরু করা যাক :

বিষ্ণু পুরাণের ৪ অংশের ১৫ নং অধ্যায়ের ১৯ নং শ্লোকে আছে, “ভগবতোহপ্যত্র মর্ত্যলোকেহবতীর্ণস্য। ষোড়শসহস্রাষণ্যেকোত্তরশতা ধিকানি স্ত্রীণামভবন।। এর সরল অর্থ শ্রীকৃষ্ণের ষোলহাজার একশত স্ত্রী। কিন্তু বিষ্ণুপুরাণের ৫ অংশের ২৮ নং অধ্যায়ে বলা আছে,

“অন্যাশ্চ ভার্যাঃ কৃষ্ণস্য বভূবুঃ সপ্ত শোভনাঃ”
“ষোড়শাসন্ সহস্রাণি স্ত্রীণামন্যানি চক্রিণঃ।”

এই দুই শ্লোকের অর্থ হলো কৃষ্ণের মোট স্ত্রীর সংখ্যা ষোল হাজার সাত জন। এর মধ্যে ষোল হাজার বা ষোল হাজার একশ জন হলো হলো কথিত নরকাসুরের অন্তঃপুর থেকে উদ্ধারকৃত নারী, এদের সম্পর্কে পোস্টের শেষে বলবো বলে শুরুতেই উল্লেখ করেছি, তাই এখন এই ৭ বা ৮ জনের মীমাংসা টা  আগে করে নিই।

বিষ্ণুপুরাণ বলছে, নরকাসুরের অন্তঃপুরের নারীরা বাদে কৃষ্ণের স্ত্রী ৭ জন, কিন্তু একই অধ্যায়ে একটু পরেই বিষ্ণুপুরাণ শ্রীকৃষ্ণের স্ত্রীদের যে তালিকা দিয়েছে, তাতে বলা হয়েছে ৮ জনের কথা, তার মধ্যে আবার শ্রীকৃষ্ণের প্রথম স্ত্রী রুক্মিনী নেই, দেখে নিন সেই তালিকা-

“কালিন্দী মিত্রবিন্দা চ সত্যা নাগ্নজিতী তথা।
দেবী জাম্ববতী চাপি রোহিণী কামরূপিণী ||
মদ্ররাজসুতা চান্যা সুশীলা শীলমণ্ডনা।
সাত্রাজিতী সত্যাভামা লক্ষ্মণা চারুহাসিনী ||

এখানে রুক্মিনী ছাড়া অন্য যে আটটি নাম আছে, সেগুলো হলো- ১.কালিন্দী, ২.মিত্রবিন্দা, ৩.নগ্নজিতকন্যা সত্যা, ৪.জাম্ববতী, ৫.রোহিনী, ৬.মদ্ররাজের কন্যা সুশীলা, ৭.সত্রাজিত কন্যা সত্যভামা ও ৮.লক্ষণা।

কিন্তু বিষ্ণুপুরাণের ৪র্থ অংশের ‍১৫ অধ্যায়ে আছে, “তাসাঞ্চ রুক্মিণী-সত্যভামাজাম্ববতী জালহাসিনীপ্রমুখা অষ্টৌ পত্ন্যঃ প্রধানাঃ।”

এখানে সব নাম পাওয়া গেল না, কিন্তু নতুন নাম পাওয়া গেলো “জালহাসিনী”, এর মধ্যে রুক্মিণীর নামও আছে এবং সব মিলিয়ে বিষ্ণুপুরাণ এখানে বলছে, কৃষ্ণের স্ত্রীর সংখ্যা ৮ জন। কিন্তু উপরের ৮ জন এবং রুক্মিণী ও জালহাসিনী সহ কৃষ্ণের স্ত্রীর সংখ্যা হয় ১০ জন। পুরাণের মনগড়া তথ্যগুলোর প্রতি খেয়াল রাখা শুরু করুন।

শ্রীকৃষ্ণের ১৬,১০৮ স্ত্রীর রহস্য কি?
শ্রীকৃষ্ণের ১৬,১০৮ স্ত্রীর রহস্য কি?

})(jQuery);

মহাভারত ছাড়া, কৃষ্ণ সম্পর্কে যেসব গ্রন্থ থেকে জানা যায়, সেগুলো হলো- বিষ্ণুপুরাণ, ভাগবত পুরাণ এবং হরিবংশ। উপরে বিষ্ণুপুরাণের শ্রীকৃষ্ণের স্ত্রী সম্পর্কিত তথ্য সম্পর্কে জানালাম, এবার দেখুন হরিবংশের অবস্থা কী ?

হরিবংশের ১১৮ অধ্যায়ের ৪০ থেকে ৪৩ নং শ্লোকে আছে,

“মহিষীঃ সপ্ত কল্যাণীস্ততোহন্যা মধুসূদনঃ।
উপষেমে মহাবাহুর্গুণোপেতাঃ কুলোদ্গতাঃ |।
কালিন্দীং মিত্রবিন্দাঞ্চ সত্যাং নাগ্নজিতীং তথা।
সুতাং জাম্ববতশ্চাপি রোহিনীং কামরূপিণীম্ ||
মদ্ররাজসুতাঞ্চাপি সুশীলাং ভদ্রলোচনাম্।
সাত্রাজিতীং সত্যভামাং লক্ষ্মণাং জালহাসিনীম্।
শৈব্যস্য চ সুতাং তম্বীং রূপেণাপ্সরসাং সমাং ||”

এখানে পাওয়া যাচ্ছে যে, লক্ষ্মণাই জালহাসিনী; তাহলে লক্ষণাসহ অন্য যে নামগুলো এখানে আছে, সেগুলো হলো-

১.কালিন্দী, ২.মিত্রবিন্দা, ৩.সত্যা, ৪.জাম্ববতী, ৫.রোহিনী, ৬.মদ্ররাজ কন্যা সুশীলা, ৭.সত্রাজিত কন্যা সত্যভামা, ৮.জালহাসিনী লক্ষণা এবং ৯. শৈব্যা।

এখানে নতুন যে নাম যুক্ত হলো, সেটা শৈব্যা এবং বিষ্ণুপুরাণের জালহাসিনীকে লক্ষণা বলে ধরে নেওয়ার পরও রূক্মিণীসহ শ্রীকৃষ্ণের স্ত্রী সংখ্যা হলো ১০ জন।জালহাসিনীকে আর লক্ষণাকে আলাদা বলে ধরলে এই সংখ্যা হয় ১১ জন।

সত্যের নয়, মিথ্যারই বহু রূপ হয়, সেই প্রমাণ বিষ্ণুপুরাণ ও হরিবংশ থেকে মিলতে শুরু করেছে। হরিবংশের ১১৮ অধ্যায়ের এই তালিকার পর ১৬২ অধ্যায়ে রয়েছে আরেকটি তালিকা, দেখে নিন তার অবস্থা-

“অষ্টৌ মহিষ্যঃ পুত্রিণ্য ইতি প্রাধান্যতঃ স্মৃতাঃ।
সর্বা বীরপ্রজাশ্চৈব তাস্বপত্যানি মে শৃণু ||
রুক্মিণী সত্যভামা চ দেবী নাগ্নজিতী তথা।
সুদত্তা চ তথা শৈব্যা লক্ষ্মণ জালহাসিনী।।
মিত্রবিন্দা চ কালিন্দী জাম্ববত্যথ পৌরবী।
সুভীমা চ তথা মাদ্রী…”

রুক্মিনীসহ এখানে পাওয়া গেলো নিচের ১২ টি নাম, যেমন- ১. রুক্মিনী, ২. সত্যভামা, ৩. নগ্নাজিতী, ৪. সুদত্তা, ৫. শৈব্যা, ৬. লক্ষণা জালহাসিনী, ৭. মিত্রবিন্দা, ৮. কালিন্দী, ৯. জাম্ববতী, ১০. পৌরবী, ১১. সুভীমা এবং ১২. মাদ্রী।

তাহলে এখন পর্যন্ত রুক্মিনী সহ কৃষ্ণের স্ত্রীর সংখ্যা দাঁড়ালো ১২ জনে। এখানে আরেকটি বিষয় খেয়াল করতে হবে যে, হরিবংশের রচয়িতা, শুরুতেই-

“অষ্টৌ মহিষ্যঃ পুত্রিণ্য ইতি প্রাধান্যতঃ স্মৃতাঃ।”

এই শ্লোকে বলেছেন, আটজন স্ত্রীর কথা, কিন্তু তালিকা দিলেন ১২ জনের। কিন্তু তাতেও তিনি ক্ষান্ত হন নি, যখন কৃষ্ণের সন্তানদের নাম বলতে শুরু করেন, তখন বেরিয়ে আসে আরও ৫ জন স্ত্রীর নাম, সেগুলো হলো- ১. সুদেবা, ২. কৌশিকী, ৩. উপাসঙ্গ, ৪. সুতসোমা এবং ৫. যৌধিষ্ঠিরী।

এছাড়াও বিষ্ণুপুরাণ না বললেও হরিবংশ এমনও বলে যে, সত্রাজিত তার অপর দুই কন্যা ব্রতিনী এবং প্রস্বাপিনীকেও শ্রীকৃষ্ণের কাছে সমর্পন করেছিলো। তাহলে সব মিলিয়ে পুরাণ মতে এখন পর্যন্ত শ্রীকৃষ্ণের স্ত্রীর সংখ্যা দাঁড়ালো ১৯ জনে। এছাড়াও মহাভারতের মৌষল পর্বে পাওয়া যায় দুইজনের নাম গান্ধারী ও হৈমবতী। এইভাবে শ্রীকৃষ্ণের মোট স্ত্রীর সংখ্যা হয় ২১ জন।

কৃষ্ণের স্ত্রী, তথাকথিত ১৬১০০ জন বাদে তথাকথিত ৮ জন বলা হলেও, কৃষ্ণ সম্পর্কিত সমস্ত শাস্ত্র ঘেঁটে নাম পাওয়া যাচ্ছে ২১ জনের। এর মধ্যে ১৩ থেকে ১৯ পর্যন্ত নাম শুধু হরিবংশেই আছে, আর কোথাও নেই এবং যেহেতু হরিবংশের উল্টা পাল্টা তথ্য আলোচনা করে এটা বোঝা যাচ্ছে যে, স্বল্প মাত্রার গাঁজা উপকারী হলেও হরিবংশ রচয়িতা বা রচয়িতারা একটু বেশি মাত্রায় গাঁজা খেয়ে কাহিনি লিখতে বসেছিলেন, তাই কোথায় কী লিখেছেন,

তার তাল ঠিক রাখতে পারেন নি, সেহেতু এই ১৩ থেকে ১৯ জনের নাম একেবারেই বাদ বা পরিত্যাজ্য। এছাড়াও কৃষ্ণের স্ত্রী হিসেবে গান্ধারী ও হৈমবতীর নাম শুধু মহাভারতের মৌষল পর্বেই আছে এবং মৌষল পর্ব যেহেতু মহাভারতে প্রক্ষিপ্ত, সেহেতু এই দুই নামও বাদ, বাকি থাকলো ১২ জন।

মহাভারতের মৌষল পর্বকে কেনো প্রক্ষিপ্ত বললাম, সেই আলোচনা পাবেন একটু পরেই এবং সেখানে আমি প্রমান করে দেবো যে, কিভাবে এই মৌষল পর্বটি মহাভারতে প্রক্ষিপ্ত।যা হোক, জাম্ববতী সম্পর্কে বিষ্ণুপুরাণের ২৮ অধ্যায়ে লেখা আছে,

“দেবী জাম্ববতী চাপি রোহিণী কামরূপিনী।

আবার হরিবংশে লিখা আছে,

“সুতা জাম্ববতশ্চাপি রোহিণী কামরূপিণী।

এই দুই শ্লোক মতে, জাম্ববতী ও রোহিনী একই নারী। তাহলে বাকি থাকলো ১১ জন। এই ১১ জনের মধ্যে সত্যভামা, ব্রতিনী ও প্রস্বাপিনী, যারা সত্রাজিতের কন্যা বলে বিষ্ণুপুরাণ ও হরিবংশ বলেছে, যাদের সঙ্গে কৃষ্ণের বিবাহ স্যামন্তক মণির ঘটনাকে কেন্দ্র করে; সেই ঘটনা যে কখনোই ঘটেই নি, সেটা বুঝতে পারবেন নিচের এই কাহিনীটা পড়লে-

দ্বারকায় সত্রাজিৎ নামে এক ব্যক্তি বাস করতো। সে কোনো ভাবে এক মণি পেয়েছিলো, যার নাম স্যামন্তক মণি; পুরাণ মতে এই মণিকে কেন্দ্র করেই শ্রীকৃষ্ণের বহুবিবাহের সূচনা।

যা হোক, দ্বারকার রাজা তখন উগ্রসেন হলেও কৃষ্ণই ছিলেন প্রধান ব্যক্তি। সত্রাজিৎ ভয় পেয়েছিলো যে, সেই মণি কৃষ্ণ তার কাছে চাইতে পারে, আর কৃষ্ণ যদি তা চায়, তাহলে সে তা তাকে দিতে বাধ্য থাকবে। এজন্য সত্রাজিৎ সেই মনি নিজের কাছে না রেখে তার ভাই প্রসেনের কাছে দেয় এবং প্রসেন তা নিয়ে বনে শিকার করতে যায়।

কিন্তু বনের মধ্যে একটি সিংহ প্রসেনকে হত্যা করে সেই মণি মুখে করে নিয়ে যেতে লাগলে জাম্ববান নামে এক ভাল্লুক, যে নাকি রামের পক্ষ হয়ে রাবনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে কৃষ্ণের সময় পর্যন্ত জীবিত ছিলো (!), সেই ভাল্লুক সিংহকে হত্যা করে সেই মণি দখল করে তার গুহায় নিয়ে গিয়ে রাখে।

বনের মধ্যে প্রসেন নিহত এবং মণি হারিয়ে যাওয়ার পর সবাই এজন্য কৃষ্ণকেই সন্দেহ করা শুরু করে, নিজের উপর অযথা আরোপিত এই কলঙ্ক ঘুচানোর জন্য কৃষ্ণ, সেই মনি কোথায় গেলো এবং প্রসেন কিভাবে নিহত হলো, তার জন্য তদন্ত করতে বনে গমন করে এবং প্রসেনের মৃতদেহ যেখানে পড়ে ছিলো, সেখানে সিংহের পদচিহ্ন দেখে তা অনুসরণ করতে করতে দেখে এক ভাল্লুকের পদচিহ্ন এবং সেই পদচিহ্ন অনুসরণ করতে করতে কৃষ্ণ গিয়ে পৌঁছায় এক গুহার মধ্যে,

সেখানে সে জাম্ববানের পুত্রপালিকা এক ধাত্রীর হাতে সেই মণি দেখতে পায়, এরপর কৃষ্ণ জাম্ববানকে যুদ্ধে পরাজিত করে এবং স্যামন্তক মনি অধিকার করে। এরপর জাম্ববান শুধু মণিই কৃষ্ণকে দেয় না, তার কন্যা জাম্ববতীকেও কৃষ্ণকে অর্পণ করে। কৃষ্ণ, জাম্ববতীকে বিয়ে করে মণিসহ দ্বারকায় ফেরত আসে। দ্বারকায় ফিরে, কৃষ্ণ সেই মণি সত্রাজিৎকেই দেয়। কিন্তু মণি হারিয়ে যাওয়ার পর, সত্রাজিৎই প্রথম কৃষ্ণকে সন্দেহ করেছিলো, এই ভয়ে সত্রাজিৎ তার নিজের কন্যা সত্যভামাকে কৃষ্ণের সাথে বিয়ে দিয়ে এর একটা আপোষ মীমাংসা করে।

এরপর এই স্যামন্তক মণি নিয়ে আরো কিছু ঘটনা আছে, কিন্তু সেগুলো কৃষ্ণের বহুবিবাহের ঘটনার সাথে যুক্ত নয় ব’লে এখানে তা আর উল্লেখ করলাম না। কিন্তু বাস্তবতার দৃষ্টিকোণ থেকে এবার ঘটনাটিকে বিচার করে দেখা যাক, স্যামন্তক মণি নিয়ে পুরাণ রচয়িতারা যে গল্প ফেঁদেছে তা কতদূর সত্য বা এসব সম্ভব হতে পারে কি না ?

শ্রীকৃষ্ণ, কংসকে পরাজিত ও হত্যা করে। রাজাদের আমলে এই রীতি ছিলো যে, কোনো ব্যক্তি কোনো রাজাকে হত্যা করতে পারলে, ক্ষমতার সূত্রে সে ই, সেই রাজ্যের রাজা হতো। এই সূত্রে শ্রীকৃষ্ণই মথুরার রাজা হতে পারতো, কিন্তু সে তা না হয়ে কংসের পিতা উগসেনের হাতে রাজ্যের দায়িত্ব অর্পণ ক’রে তাকেই রাজা বানায়। এই ঘটনা থেকে শ্রীকৃষ্ণের নির্লোভ মনের পরিচয় পাওয়া যায়।

কংসকে হত্যা করায়, কংসের শ্বশুর জরাসন্ধের সাথে কৃষ্ণের সংঘর্ষ শুরু হয়ে যায় এবং সে বার বার মথুরা আক্রমন করতে থাকে, জরাসন্ধ ছিলো সেই সময়ের ভারতের সবচেয়ে শক্তিশালী রাজা, বলা যেতে পারে চক্রবর্তী সম্রাট, যার ছিলো ২০ অক্ষৌহিনী সেনা, যা কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে সমাগত সমস্ত সৈন্যের চেয়ে বেশি। এখানে বলে রাখি, কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে ছিলো মোট ১৮ অক্ষৌহিনী সেনা।

যা হোক, জরাসন্ধের সৈন্য বলের কাছে মথুরার সৈন্যবল ছিলো নিতান্তই শিশু, তারপরও জরাসন্ধ যখনই মথুরা আক্রমন করেছে, কৃষ্ণ তার শক্তি, বুদ্ধি ও কৌশলের দ্বারা জরাসন্ধকে হতাশ করে মথুরা ত্যাগ করতে বাধ্য করেছে। কিন্তু জরাসন্ধের আক্রমনের ফলে প্রতিবারই মথুরার সৈন্য ক্ষয় হচ্ছিলো, এই অযথা মৃত্যু ঠেকাতে, শ্রীকৃষ্ণ, রাজধানীকে মথুরা থেকে তিন দিক জল দিয়ে ঘেরা দ্বারকায় স্থানান্তরিত করে,

ফলে সেখানে আক্রমন করে আর কোনো ফল হবে না বিবেচনা ক’রে, জরাসন্ধ, দ্বারকা আক্রমন থেকে বিরত থাকে; কারণ, চতুর্দিকের আক্রমন ঠেকানোর চেয়ে একদিকের আক্রমন ঠেকানো সহজ। এই জরাসন্ধের সাথে, কৃষ্ণ বিরোধিতায় যুক্ত হয়েছিলো কাল যবন নামে এক রাজা, এই দুজনেরই দৈহিক শক্তি ছিলো যেমন অতুলনীয়, তেমনই কোনো সাধারণ অস্ত্রেও এদের মৃত্যু হতো না, তাই এদের হাত থেকে রাজ্যবাসীকে বাঁচাতে কৃষ্ণকে ঐ পথ অবলম্বন করতে হয়েছিলো।

দ্বারকায় রাজধানী স্থানান্তরিত হওয়ার পর, অর্থাৎ রাজ্য প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর, উগ্রসেন নামে মাত্র রাজা হলেও কৃষ্ণই ছিলেন প্রধান ব্যক্তি। এই কৃষ্ণের কাছ থেকে স্যামন্তক মণি লুকানোর জন্য পুরাণ রচয়িতারা সত্রাজিৎকে দিয়ে যা করিয়েছে, তা এক হাস্যকর ব্যাপার।

কারণ, কৃষ্ণ যদি মণি চায়, তাহলে কৃষ্ণকে তা দিতেই হবে, এই ভয়ে সত্রাজিৎ সেই মনি তার ভাই প্রসেনকে দিয়ে দেয়। প্রসেন কি এমন মহারথি ছিলো বা প্রসেনের কি এমন ক্ষমতা ছিলো যে, কৃষ্ণ চাইলে সে তাকে মণি না দিয়ে তা নিজের কাছে রক্ষা করতে পারতো ?

দ্বারকায় যেখানে কৃষ্ণের ইচ্ছাই আইন, সেখানে এই প্রসেনের কথা বা ইচ্ছার মূল্য কী ? আর যে কৃষ্ণ, রাজা হওয়ার সুযোগ পেয়েও মথুরা বা দ্বারকায় রাজা হয় নি, সেই কৃষ্ণ, সামান্য এক মণির লোভ সামলাতে পারবে না, এটা সত্রাজিৎকে দিয়ে পুরাণ রচয়িতারা ভাবাতে পারলো কিভাবে বা পুরাণ রচয়িতারাই ভাবলো কিভাবে ?

যা হোক, এরপর প্রসেন সেই মনি নিয়ে বনে শিকার করতে যায় কিন্তু সিংহের হাতে মারা পড়ে। এই ব্যাপারটা কেউ জানতে পারে না, তার মানে বনে শিকার করতে প্রসেন একা গিয়েছিলো এবং এই ঘটনা প্রমাণ করে যে,

সে ছিলো খুবই সাধারণ একজন লোক; কারণ, মানুষ যখন সাধারণ থেকে অসাধারণ হয়ে উঠে তখন তার চারপাশে সব সময় সকল কাজে প্রচুর লোকজনের ভীড় থাকে, হয় তার কাজে সাহায্য করার জন্য, নয়তো সাহায্য পাওয়ার আশায়। এই সামান্য লোক প্রসেনকৃর কাছে কৃষ্ণ যদি মণি চাইতো, তাহলে সে তা কিভাবে রক্ষা করতে পারতো ? কোনো ভরসায় সত্রাজিৎ তার ভাইকে ওই মণিটি দিয়েছিলো ?

আমরা জানি, সিংহের কোনো কিছু শিকারের একমাত্র কারণ তার পেটের ক্ষুধা অর্থাৎ খাদ্য। কিন্তু মণির জন্য কোনো সিংহ কাউকে আক্রমন করে হত্যা করেছে, এমন ঘটনার কথা লিখা একমাত্র পুরাণ রচয়িতাদের পক্ষেই সম্ভব।

এই পুরাণ রচিয়তারা লিখেছে, প্রসেনকে হত্যা করে তার মাংস না খেয়ে, শুধু মনি মুখে সিংহ চলে যায় এবং সেই অবস্থায় জাম্ববান নামের ভাল্লুকের সাথে সিংহের দেখা হয়। সিংহ যে প্রসেনের মাংস খায় নি, তার প্রমান, পুরাণ মতে, কৃষ্ণ যখন তদন্ত করতে বনে যায়, তখন সেখানে প্রসেনের মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে।

যা হোক, আমরা জানি, সিংহ বনের রাজা, কোনো পশু তাকে পরাজিত করতে পারে না। কিন্তু এক ভাল্লুক তাকে পরাজিত করে ফেলে এবং তার কাছ থেকে সেই মণিটা দখল করে। মণি যে খুব মূল্যবান হয়, এই জ্ঞান বুদ্ধি আমাদের পুরাণ রচয়িতারা- সিংহ, ভাল্লুকের মতো হিংস্র প্রাণীদের মধ্যেও ঢুকিয়ে দিয়েছে।

ভাল্লুক থাকে এক গুহার মধ্যে, সেখানে সে তার বাচ্চাদের দেখাশোনার জন্য এক ধাত্রী নিযুক্ত করে রেখেছিলো, যা একমাত্র মনুষ্য সমাজই করে থাকে বা করতে পারে। জাম্ববানকে মানুষ হিসেবে দেখানোর যদি এতই শখ পুরাণ রচয়িতাদের থাকে, তাহলে তাকে প্রথমে ভাল্লুক হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার কী দরকার ছিলো ?

নাকি কোনো মানুষের পক্ষে সিংহকে হত্যা করা সম্ভব নয় ব’লে, পুরাণ রচয়িতারা ভাল্লুককে দিয়ে প্রথমে সিংহকে হত্যা করিয়ে পরে তাকে মানুষ হিসেবে রূপান্তরিত করেছে; কিন্তু কোনো ভাল্লুকেরই কি সিংহকে হত্যা করার ক্ষমতা আছে ? আজগুবি গল্প আর কাকে বলে! ভাল্লুকের যদি সিংহকে হত্যা করার ক্ষমতা থাকতো, তাহলে তো ভাল্লুকই বনের রাজা হতো, সিংহের শক্তি ও ক্ষমতার জন্যই সিংহকে বনের বা পশুদের রাজা বলা হয়।

যা হোক, জাম্ববানকে যুদ্ধে পরাজিত করে, কৃষ্ণ, সেই মণিটা দখল করে। এতে জাম্ববানের খুবই অপমানিত ও কৃষ্ণের সাথে শত্রুতা স্থাপিত হওয়ার কথা। কিন্তু জাম্ববান ঘটায় উল্টো ঘটনা, কৃষ্ণের সাথে তার মেয়ের বিয়ে দিয়ে দেয়। এই ভাল্লুককে তো পুরাণ রচয়িতারা মানুষের জ্ঞান বুদ্ধি দেওয়ার চেষ্টা করেছে, কিন্তু মানব আচরণের পক্ষে এটা কি সম্ভব যে, শত্রুর হাতে নিজের কন্যাকে সমর্পণ করা?

আর ভাল্লুকের মেয়ের তো শারীরিক আকার ভাল্লুকের মতোই হবে, তাকে কৃষ্ণ বিয়ে করতে যাবে কেনো ? যদি বলা হয় জাম্ববতীর মনুষ্য রূপ ধারণ করার ক্ষমতা ছিলো, তাহলে প্রশ্ন হচ্ছে, এই ক্ষমতা ও মন নিয়ে সে কিভাবে বনে গুহার মধ্যে বাস করতে পারছিলো ? কারো যখন ক্ষমতা ও বুদ্ধি হয় উন্নত সমাজে গিয়ে বাস করার, তখন সে নিম্ন সমাজ ব্যবস্থায় আর বাস করতে চায় না,

এটাই মানব চরিত্রের বৈশিষ্ট্য, তাহলে জাম্ববতী কিভাবে মানব মন নিয়ে গুহার মধ্যে বাস করতে পারে ? আবার জাম্ববানের ছেলে মেয়েকে দেখা শোনার জন্য যে ধাত্রীর কথা বলা হয়েছে, সেও মানব আকৃতির, তাহলে সে কিভাবে বনে, গুহার মধ্যে এক ভাল্লুকের সাথে বাস করে ?

যা হোক, কৃষ্ণ, স্যামন্তক মণি উদ্ধার করে জাম্ববতী বিয়ে করে দ্বারকায় ফিরে এসে সেই মনি সত্রাজিৎকেই দেয়। কৃষ্ণকে সন্দেহ প্রথমে সত্রাজিৎই করেছিলো, তাই তার ভয় ছিলো, কৃষ্ণ এ ব্যাপারে সত্রাজিৎকে প্রশ্ন করবে, এই ভয়ে সত্রাজিৎ তার মেয়ে সত্যভামাকে কৃষ্ণের সাথে বিয়ে দিয়ে একটা আপোষ মীমাংসা করে। এইভাবে পুরাণ মতে রুক্মিনী সহ কৃষ্ণের স্ত্রীর সংখ্যা হয় তিন।

কৃষ্ণ যে রাজ্য ও সম্পদলোভী ছিলো না, সেটা কংস হত্যার পর, মথুরায় কংসের পিতা উগ্রসেনকে রাজা করার মধ্য দিয়ে ই প্রমাণিত; তারপর কৃষ্ণ নিজেই দ্বারকা নগরী নির্মান করে রাজতুল্য হয়ে যায়, আর এই কৃষ্ণ, সামান্য এক মণির জন্য এত কাহিনী ঘটাতে যাবে, এটা কি বিশ্বাসযোগ্য ? রাজ্যের কোনো সম্পদ কি রাজার হাতের বাইরে ?

এছাড়াও কৃষ্ণ, চেয়েছিলো বলে, বিয়ের আসর থেকে রুক্মিনীকে তুলে এনে বিয়ে করেছিলো, বিদর্ভ রাজার সমস্ত শক্তি কৃষ্ণের কিছুই করতে পারে নি। বলা হয়, সত্যভামা ছিলো খুবই সুন্দরী ও বহু রাজার পছন্দের পাত্রী, কৃষ্ণ যদি সত্যভামাকে বিয়ে করতেই চাইতো, তাহলে এমনিই করতে পারতো, সত্রাজিতের তাকে কৃষ্ণের হাতে সমর্পনের কোনো প্রয়োজনই পড়তো না।

প্রকৃতপক্ষে স্যামন্তক মণির এই ঘটনা যে একটা ডাহা মিথ্যা গল্প, আশা করছি পাঠক বন্ধুরা, উপরের এই আলোচনা থেকে বুঝতে পেরেছেন। কিন্তু তারপরও কেউ কেউ প্রশ্ন তুলতে পারেন, মহাভারতে তো সত্যভামার কথা আছে, তাহলে সত্যভামা যে কৃষ্ণের স্ত্রী নয়, তার প্রমান কী ? এ ব্যাপারে প্রমাণ একটু পরেই পেয়ে যাবেন, পোস্টটা পড়তে থাকুন।

সত্রাজিতের তিন কন্যার মধ্যে দুইটাকে আগেই তালিকা থেকে বাদ দিয়েছি, স্যামন্তক মণির ঘটনা মিথ্য বলে বাদ পড়ে আরও দুই জন সত্যভামা ও জাম্ববতী। তাহলে বাকি থাকে ৯ জন। এই ৯ জনের মধ্যে একজনকে বলা হচ্ছে মদ্ররাজ কন্যা সুশীলা, এবার এ ব্যাপারে কিছু বলা যাক।

মদ্ররাজের বোন হচ্ছে মাদ্রী, যার বিয়ে হয় পাণ্ডুর সাথে এবং যার দুই পুত্রের নাম হচ্ছে নকুল ও সহদেব। এই সূত্রে মদ্ররাজ হলো নকুল ও সহদেবের মামা। এই মদ্ররাজ কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে অংশ নিয়েছিলো এবং নকুল ও সহদেবের মামা হিসেবে তার ব্যাপক পরিচিত ছিলো, কিন্তু সে যে কৃষ্ণেরও শ্বশুর সেই কথা কিন্তু মহাভারতের কোথাও একটুও বলা নেই। তার মানে খুব সহজেই ধরে নেওয়া যায় যে, সুশীলার সাথে কৃষ্ণের বিবাহ একটা গালগল্প ছাড়া আর কিছুই নয়।

সুশীলাকে বাদ দিলে বাকি থাকলো ৮। এই ৮ জনকে বিষ্ণুপুরাণ রচয়িতা বা রচয়িতারা, কৃষ্ণের স্ত্রী হিসেবে উল্লেখ করেছেন বটে, কিন্তু এরা কোন দেশের, কার কন্যা, কবে বিয়ে হলো, এ সম্পর্কে কিন্তু কোনো তথ্য নেই। শুধু তাই নয়, কৃষ্ণের জীবনের প্রকাশিত ঘটনার সাথে এদের কোনো সংস্পর্শই নেই।

এদের সন্তানদের নাম পুরাণ রচয়িতারা অবশ্য উল্লেখ করেছে, কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় হচ্ছে, রুক্মিনীর পুত্র প্রদুম্ন ছাড়া আর কারো কোনো কাহিনী নেই। নেই কোনো ? নেই এজন্যই যে, কৃষ্ণের সাথে রুক্মিণী ছাড়া অন্য কোনো নারীর বিয়ের কোনো ঘটনাই ঘটে নি এবং তাদের পুত্র হিসেবে যাদের নাম বলা হয়, তাদেরও কখনো জন্মই হয় নি। কৃষ্ণের সাথে অন্য কোনো নারীর বিয়ে হলে বা তাদের সন্তানের জন্ম হলে সেই সব ঘটনার বিস্তারিত বিবরণ পুরাণ রচয়িতারা দিতে পারতো।

বিকৃত মহাভারতের মৌষল পর্বে অবশ্য শাম্বের নাম উল্লেখ আছে, আর এই শাম্বের মাতার নাম জাম্ববতী। তাহলে এখানে প্রশ্ন উঠতে পারে, জাম্ববতী যদি কৃষ্ণের স্ত্রী হয়, তাহলে স্যামন্তক মণির ঘটনা সত্য এবং তাহলে সত্যভামা, এমন কি সত্যভামার অপর দুই বোনের সাথে কৃষ্ণের বিয়ের ঘটনাকেও সত্য বলে ধরে নিতে হবে। কিন্তু গবেষণা বলছে, মহাভারতের মৌষল পর্বটি একটি প্রক্ষিপ্ত অংশ, মৌষল পর্বের যে ঘটনা, এমন কোনো ঘটনাই বাস্তবে ঘটে নি।

আরেকটা মজার ব্যাপার হলো, পুরাণ বলছে, শাম্বের সাথে দুর্যোধনের মেয়ে লক্ষণার বিয়ে হয়েছিলো। এটা হলে কৃষ্ণ আর দু্র্যোধনের আত্মীয়তার সম্পর্ক হয় বেয়াই। এমন ঘটনা কি সম্ভব ? শাম্ব, কৃষ্ণের ছেলে হলে, অমন দুরাচারী দুর্যোধন, যাকে বিনাশ করার জন্য কৃষ্ণের এই মানবজন্ম ধারণ, তার মেয়ের সাথে কি কৃষ্ণ তার ছেলের বিয়ে দিতো ? আর ঘটনাচক্রে যদি এমন ঘটনা ঘটেই থাকতো, মহাভারতে কি তার কিছু মাত্র উল্লেখ থাকতো না ?

এসবের কোনো কিছুর উল্লেখ নেই, এজন্যই নেই যে শাম্ব বলে কেউ ছিলো না, তাহলে মৌষল পর্বের ব্যাপারটা কী ? আর কেনো এটাকে বলছি প্রক্ষিপ্ত ?

মৌষল পর্বের ঘটনা শুরু এভাবে-

একদিন বিশ্বামিত্র কন্ব ও নারদ মুনি দ্বারকায় বেড়াতে গেলে শাম্বের সমবয়সী দুইজন, শাম্বকে স্ত্রী বেশে সজ্জিত করে তাদের কাছে গিয়ে বলে, ইনি গর্ভবতী, আপনারা বলুন, ইনি কী প্রসব করবে ?

মুনিরা, তাদের এই ছল বুঝতে পেরে অভিশাপ দেয় যে, এ একটি লৌহ মুষল প্রসব করবে এবং সেই লৌহ মুষল যদু বংশ ধ্বংসের কারণ হবে। এরপর শুরু হয় ঘটনা, দ্বারকাতে নানা অশুভ ঘটনা ঘটতে থাকে এবং বিনা কারণে যাদবরা একে অপরকে আঘাত করে হত্যা করতে থাকে, এভাবে ধ্বংস হয় যদু বংশ, যা পুরোপুরি কাল্পনিক এবং বানোয়াট; কারণ, এভাবে কোনো রাজবংশ ধ্বংস হওয়া সম্ভব নয় এবং পৃথিবীর কোথাও কখনো তা ঘটে নি।

শাম্বের লৌহ মুষল প্রসবের ঘটনা যে পুরোটাই মিথ্যা, এবার তার কিছু প্রমাণ দিই। শাম্ব যদি বাস্তবে থাকতো, তাহলে সে সুভদ্রার ছেলে অভিমন্যুর চেয়ে বয়সে কিছু বড় হতো; কারণ পুরাণ রচয়িতারা অভিমন্যুর মা সুভদ্রার বিয়ের আগে কৃষ্ণের সাথে জাম্ববতীর বিয়ে দিয়েছে, ফলে অভিমন্যুর চেয়ে কয়েক বছর আগে শাম্বের জন্ম হওয়ার কথা।

যা হোক, এই অভিমন্যুর ছেলে পরীক্ষিতের বয়স যখন ৩৬, তখন যদু বংশ ধ্বংসের কথা বলা হয়। মহাভারতের যুদ্ধের বছর পরীক্ষিতের জন্ম এবং সেই সময় কৃষ্ণের বয়স ছিলো ৭০ বছর, তাহলে মহাভারতের যুদ্ধের সময় শাম্বের বয়স ছিলো কমপক্ষে ৩০/৩৫ এবং তার স্ত্রী সেজে মুণিদের সাথে রসিকতা করার সময় তার বয়স কমপক্ষে ৬৫ বা ৭০, এই রকম বয়সে কি কেউ ঐ ধরণের রসিকতা করতে পারে ? তাছাড়া শাম্ব তো মেয়ে নয় যে সে প্রসব করবে, তাহলে মুষল সে প্রসব করলো কিভাবে ? এই তথ্যগুলোই প্রমান করে শাম্বের মুষল প্রসবের কোনো ঘটনাই ঘটে নি। গান্ধারীর যে অভিশাপ ছিলো সমুদ্র গর্ভে বিলীন হয়ে যদু বংশ ধ্বংস হবে, বাস্তবে হয়েছেও তাই।

আরো মজার ব্যাপার হলো, পুরো মহাভারতের কোথাও সেই স্যামন্তক মুনির কোনো কাহিনী না থাকলেও, এই মুষল পর্বে তার কথা উল্লেখ আছে। এ থেকে এটা স্পষ্ট যে, যারা বিষ্ণুপুরাণে স্যামন্তক মুণির কাহিনী বানিয়ে কৃষ্ণের বহুবিবাহের সূচনা করেছিলো, তারাই মহাভারতে এই মৌষল পর্বটি টি প্রক্ষিপ্ত আকারে ঢুকিয়ে দিয়েছে। চোরের সাক্ষী চোর বা শুঁড়ির সাক্ষী মাতাল আর কি !

মহাভারতের বন পর্বে সত্যভামার কথা একটু উল্লেখ আছে, এবার সেই ব্যাপারে একটু নজর দিই। পাণ্ডবরা বনবাস কালে কাম্যকবনে এসে যখন বাস করতে থাকে, তখন সেখানে কৃষ্ণ ও সত্যভামা তাদেরকে দেখার জন্য যায়; তখন সেখানে কৃষ্ণ, দ্রৌপদীকে বলে, তোমার পুত্ররা দ্বারকাতে সুখেই আছে, তারা অভিমন্যু ও প্রদুম্নের কাছে অস্ত্র শিক্ষা করছে। এখানে সত্যভামার স্থলে রুক্মিনীকে বসিয়ে দেখুন, সিচুয়েশনটা অনেক গ্রহনযোগ্য হবে। কারণ, মায়ের সামনে পুত্রের প্রশংসাই গ্রহনযোগ্য, সৎ মায়ের সামনে নয়।

তাছাড়াও পুরাণে বলে, সত্যভামার ১০ পুত্র, তাদের কোনো খবর কোথাই নেই কেনো ? শুধু নাম দিলেই কি তাদের অস্তিত্বকে প্রমান করা যায় ? কৃষ্ণের পুত্র হিসেবে প্রদুম্নের কথা যেমন মাঝে মাঝে এসেছে, তাহলে কৃষ্ণের আর কোনো পুত্র থাকলে তাদের ঘটনাগুলো কি মাঝে মাঝে আসতো না ? এ থেকে এটা ধারণা করা যায় যে, বনপর্বে সত্যভামার উপস্থিতি প্রক্ষিপ্ত, বাস্তবে এটা হবে রুক্মিনী।

উপরে বলেছিলাম, মহাভারতের মৌষল পর্বটা প্রক্ষিপ্ত, আশা করছি সেই ব্যাপারটা আমার পাঠক বন্ধুদের কাছে ক্লিয়ার হয়েছে। যারা প্রক্ষিপ্ত শব্দের মানে জানেন না, তাদের উদ্দেশ্যে বলছি, কোনো গ্রন্থের মধ্যে যখন এমন কিছু যুক্ত করা হয়, যা মূল বইয়ে ছিলো না, তাকেই বলে প্রক্ষিপ্ত এবং এই কাজ করা হয় শুধু সেই গ্রন্থের বিকৃতির জন্যই নয়, বিশেষ কিছু উদ্দেশ্যে।

এবার আসি, শ্রীকৃষ্ণের তথাকথিত ১৬,১০০ স্ত্রীর ঘটনার পোস্টমর্টেমে। এই কাহিনীর সূত্রপাত বিষ্ণুপুরাণে এবং তারপর তার বিস্তৃতি ভাগবত পুরাণে। না বুঝে পুরাণকে যেহেতু আমরা হিন্দুরা- বেদ, গীতার পরেই স্থান দিয়ে এসেছি, সেহেতু পুরাণে উল্লিখিত এই সব ঘটনাকে অস্বীকার করার ক্ষমতা আমাদের হিন্দুদের ছিলো না, আর পুরাণের বিরুদ্ধে কথা বলার মতো জ্ঞানী লোকও খুব কম ছিলো, তাই এই ঘটনাগুলো ডালপালা মেলে কৃষ্ণ চরিত্রকে হাজার হাজার বছর ধরে কলুষিত করেছে এবং হিন্দু সমাজ ধ্বংসের কারণ হয়েছে।

মূল আলোচনার পূর্বে ভাগবত পুরাণ সম্পর্কে কিছু বলা দরকার, তাহলে বুঝতে পারবেন যে ভাগবত পুরাণ কী জিনিস, আর এই ভাগবত পুরাণের উদ্দেশ্যটা কী ? বাংলায় দুই ধরণের ভাগবত পুরাণ পাওয়া যায়, একটা হলো সুবোধচন্দ্রের ভাগবত, অন্যটা বেনী মাধব শীলের ভাগবত। দুই ভাগবতের কাহিনী মোটামুটি একই। কিন্তু সুবোধ চন্দ্রের ভাগবতে অশ্লীলতার ছড়াছড়ি। মাঝে মাঝে এমন অশ্লীল যে, তা কাউকে পড়ে শোনানো যায় না এবং নিজে পড়লেও সেক্স স্টোরি পড়ার ফিলিংস পাওয়া যায়।

সুবোধ চন্দ্রের ভাগবতে কৃষ্ণের রাসলীলা একটা সেক্স পার্টি, যেখানে নয় লক্ষ পুরুষ এবং নয় লক্ষ নারী নগ্ন হয়ে একত্রে কামলীলায় মেতে উঠে। এর মধ্যে কৃষ্ণও আছে। কিন্তু কোথাও এই কথা বলা নেই যে, রাসলীলার সময় কৃষ্ণের বয়স ছিলো মাত্র ৮, তাই তার পক্ষে ঐ ধরণের যৌনলীলায় অংশ গ্রহন করা সম্ভবই ছিলো না। আর বস্ত্রহরণ পর্বে কৃষ্ণ তো একটা মহা লম্পট, যার উদ্দেশ্যই মনে হবে মেয়েদের নগ্ন শরীর দেখা।

এমনভাবে বর্ণনা করে সুবোধের ভাগবত পুরাণ লেখা। আমি ভেবে অবাক হই যে, শত শত নয়, হাজার হাজার বছর ধরে হিন্দুরা এসব গো গ্রাসে গিলে আসছে, আর কেউ এর প্রতিবাদ করে বলে নি যে, না, কৃষ্ণ চরিত্র এমন হতেই পারে না; এমন কি কেউ এমন প্রশ্নও তুলে নি যে, ৭/৮ বছর বয়সী একজন বালকের পক্ষে এই রকম যৌন সম্পর্কিত ব্যাপারে জড়ানো কিভাবে সম্ভব ? এর বিপরীতে সবাই সরল বিশ্বাসে ভাগবত পুরাণের কাহিনীকে বিশ্বাস করে এসেছে এবং হিন্দু সমাজকে দিনের পর দিন রসাতলে নিয়ে গেছে।

আগেই বলেছি, সুবোধের ভাগবত এবং বেণীমাধবের ভাগবতের কাহিনী প্রায় সেম। কিন্তু বেণী মাধবের ভাগবতের বর্ণনায়, সুবোধের ভাগবতের তুলনায় অশ্লীলতা কিছুটা কম। কিন্তু রাসলীলা এবং বস্ত্রহরণের ঘটনা একই, উভয়ক্ষেত্রেই কৃষ্ণ যৌনতার জ্বরে আক্রান্ত।

তার মানে প্রকৃত সত্য উভয় ভাগবতেই অনুপস্থিত এবং উভয় ভাগবতের উদ্দেশ্যই হলো কৃষ্ণ চরিত্রকে কলুষিত করা। গোপীদের কাপড় চুরির ঘটনার সময় কৃষ্ণের বয়স যে মাত্র ৭ এবং রাসলীলা সময় তার বয়স মাত্র ৮, এমন তথ্যকে আড়াল করে উভয় ভাগবতেই কৃষ্ণকে পূর্ণ যুবক হিসেবে দেখানো হয়েছে, ফলে এই ভাগবতগুলো পড়ে হিন্দুরা প্রকৃত সত্যকে জানতে পারে না, এইদিক থেকে বিবেচনা করলে ভাগবতের প্রায় সমস্ত কাহিনী মিথ্যা বা মিথ্যার আড়ালে সত্যকে গোপন করা।

এমন ভাগবতকে আমরা হিন্দুরা ধর্ম পুস্তক জ্ঞান করে পূজা করে আসছি, হিন্দু ধর্ম ও সমাজের পতন কি আর এমনি এমনি ?

যা হোক, কৃষ্ণের ষোল হাজার একশ স্ত্রীর কাহিনী এই সব ভাগবতের মাধ্যমেই লোক সমাজে প্রচারিত, যে ভাগবতের উদ্দেশ্য হলো কৃষ্ণ চরিত্রকে মহান করে তোলা নয়, তাকে ছোট করা; আর যারা ভাগবতকে ধর্ম পুস্তক মনে করে তাদের পক্ষে এসব ঘটনাকে অস্বীকার করার কোনো উপায়ও থাকে না। কিন্তু হিন্দু ধর্ম বিরোধীদের প্রশ্নের মুখে পড়ে,

কৃষ্ণের তথাকথিত সেই ষোল হাজার একশ স্ত্রীর ঘটনাকে গ্রহনযোগ্য করে তোলার জন্য আমরা নানারকম ব্যাখ্যা হাজির করার চেষ্টা করে যুক্তি দিই, সত্য কথা বলতে কি, প্রকৃত সত্যকে না জেনে এই ধরণের যুক্তি আমার আগের পোস্টগুলোতে আমিইও দেবার চেষ্টা করেছি, কিন্তু প্রকৃত সত্য জানলে এই ধরণের কোনো যুক্তি দেবার প্রয়োজন ই পড়বে না, সেই সত্যই আজ তুলে ধরবে আপনাদের সম্মুখে।

নরকাসুরের জন্ম বৃত্তান্ত সম্পর্কে বিভিন্ন পুরাণে বলা হয়েছে,

বিষ্ণু যখন বরাহ অবতার রূপ ধারণ করে জলমগ্ন পৃথিবীকে উদ্ধার করেছিলেন, তখন পৃথিবী ও বরাহের সংস্পর্শে নরকাসুরের জন্ম, এই সূত্রে পৃথিবী মানে Earth হলো নরকের মা। এখন বলেন, বাস্তবে এটা কি সম্ভব ? পৃথিবী কি মানুষ, যে সে সরাসরি কোনো মানব সন্তানের জন্ম দেবে ? নরকাসুরের জন্মের এই অবাস্তব কাহিনীই বলে দেয় যে, নরকের ঘটনা সম্পূর্ণ বানানো, বাস্তবে কোনো দিন নরকাসুর ছিলোই না,

তাই তার ১৬,১০০ মেয়েকে বন্দী করে রাখা, কৃষ্ণের গিয়ে তাদেরকে উদ্ধার করে আনা এবং বিয়ে করা সম্পূর্ণই কাল্পনিক। তাছাড়াও যদি ধরে নিই যে, বরাহ অবতার ও পৃথিবীর সংস্পর্শে কোনোভাবে নরকাসুরের জন্ম হয়েছিলো, তাহলেও কি কৃষ্ণের সময় পর্যন্ত নরকের বেঁচে থাকা সম্ভব ছিলো ? বরাহ অবতার বিষ্ণুর তৃতীয় অবতার রূপ ধারণের ঘটনা, যেটা ঘটেছিলো সত্য যুগে, আর কৃষ্ণ, বিষ্ণুর নবম অবতার, এই দীর্ঘ সময় কি নরকাসুর জীবিত থেকে রাজত্ব করে যাচ্ছিলো ?

আর একটা ঐতিহাসিক তথ্য এখানে জেনে রাখেন, কৃষ্ণের সময় নরকাসুরের রাজত্ব বলে যা বলা হয়, সেই প্রাগজ্যোতিষপুর বা বর্তমানের আসামের রাজা ছিলো ভগদত্ত নামের এক ব্যক্তি, যে কুরুক্ষেত্রে যুদ্ধে অংশগ্রহন করেছিলো এবং অর্জুনের সাথে যুদ্ধ করে মারা যায়।

কৃষ্ণের জীবনে যে এই ধরণের কোনো ঘটনা, কখনোই ঘটে নি, তার আরেকটা প্রমাণ হলো- মহাভারতে এই ঘটনার কোনো উল্লেখ নেই, যেমন উল্লেখ নেই রাধার। যদি কৃষ্ণ এই ধরণের ঘটনা ঘটিয়ে থাকতো, তাহলে যুধিষ্ঠিরের রাজসূয় যজ্ঞের সময়, সেখানে উপস্থিত শিশুপাল, যে ছিলো কৃষ্ণের প্রধান শত্রু ও সমালোচক, সে কৃষ্ণ নিন্দার সময় এই ষোলহাজার একশ মেয়ের ঘটনার কথা অবশ্যই উল্লেখ করতো, কিন্তু শিশুপালও তা উল্লেখ করে নি, যেমন শিশুপাল উল্লেখ করে নি রাধার কথা। কারণ, কৃষ্ণের জীবনে রাধা বলে যেমন কেউ ছিলো না, তেমনি তার জীবনে ষোল হাজার একশ মেয়েকে উদ্ধার ও বিয়ে করার ঘটনাও ঘটে নি।

এপ্রসঙ্গে এখানে আরেকটি কথা না বললেই নয়, স্টার জলসায় প্রচারিত মহাভারতে কিন্তু শিশুপাল- রাধা ও নরকাসুরের অন্তঃপুর থেকে উদ্ধার হওয়া মেয়েদের কথা বলেছে, এই সিরিয়াল দেখে এটা বিশ্বাস করার কোনো কারণ নেই যে, এগুলো সত্য। স্টার পরিবার, কৃষ্ণ সম্পর্কিত প্রচলিত মিথগুলোকেই তুলে এনেছে, তারা কোনো কিছু বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে দর্শক হারাতে চায় নি। তাই স্টার জলসার মহাভারত, প্রকৃত মহাভারতের হুবহু নির্মান নয়, অনুষ্ঠানকে জাঁকজমক করার জন্য তারা শুধু প্রচলিত গল্পকেই প্রাধান্য দেয় নি, নানা রকম স্বাধীনতা নিয়েছে। উদাহরণ হিসেবে একটি ঘটনার কথা বলতে পারি,

মূল মহাভারতে রুক্মিণীকে বিয়ে করার জন্য কৃ্ষ্ণ একাই যায়, পিছনে কিছু যাদব বাহিনী ছিলো, কিন্তু স্টার জলসার মহাভারতে এখানে অর্জুনের একটা ভূমিকা দেখানো হয়েছে, যা সত্য নয়। এই একই কথা প্রযোজ্য বর্তমানে স্টার জলসায় প্রচারিত ভক্তের ভগবান শ্রীকৃষ্ণ সম্পর্কে, এরাও কৃষ্ণ সম্পর্কে প্রচলিত ঘটনাগুলোকেই তুলে ধরেছে, গবেষণা করে প্রকৃত সত্যকে তুলে ধরার ইচ্ছা এদের নেই, তাই এখানে যেমন রাধাকে দেখতে পেয়েছেন, তেমনি, কৃষ্ণের বহুবিবাহকেও খুব সহজেই দেখতে পাবেন। কিন্তু এগুলোকে বিশ্বাস করে ঠকবেন না বলেই আশা করছি।

যা হোক, অনেকে, কৃষ্ণের এই ষোল হাজার একশ মেয়েকে উদ্ধার সম্পর্কিত কিছু ভৌগোলিক ঘটনার কথা বলতে পারে, যেমন একটি জায়গার নাম আছে অশ্বক্লান্ত, বলা হয়, কৃষ্ণ, মেয়েগুলোকে উদ্ধার করে ফেরার সময় সেই জায়গায় তার রথের ঘোড়ারা ক্লান্ত হয়ে গিয়েছিলো বলে, কিছু সময় বিশ্রাম নিয়েছিলো, এই ভাবে সেই জায়গার নাম হয় অশ্বক্লান্ত।

আসলে পুরাণে লেখা কাহিনীর প্রভাবে এই নামকরণগুলো ঘটেছে এবং এই ভাবে নামকরণ অসম্ভব কিছু নয়, যেখানে পুরাণ লিখিত হয়েছে হাজার হাজার বছর আগে। এইসব পুরাণের প্রভাবে যেখানে হিন্দুদের চিন্তাধারাই বদলে গেছে, তারা কাল্পনিক ঘটনাকে সত্য বলে মনে করেছে, সেখানে পুরাণে লেখা কাহিনীর প্রভাবে কোনো এক জায়গার নামকরণ হওয়া, এ আর অসম্ভব কী ?

কৃষ্ণের এই ষোলহাজার বিয়ে সংক্রান্ত বিষ্ণুপুরাণের আরেকটি আজগুবি তথ্য, যা আমরা বিশ্বাস করে এসেছি, তা হলো কৃষ্ণের ছিলো ১ লক্ষ ৮০ হাজার পুত্র। আবার এও বলা হয় কৃষ্ণের প্রত্যেক স্ত্রীর ছিলো ১০টি করে পুত্র, একটি করে কন্যা; এই সূত্রে কৃষ্ণের পুত্র কন্যা হওয়া সম্ভব ১,৭৭,১৮৮ জন। পুরাণ রচয়িতাদের মাথা যে ঠিক ছিলো না,

এ ব্যাপারে আমি নিশ্চিত; কারণ, তারা কৃষ্ণের প্রধান স্ত্রী ৮ জন বললেও, নাম দিয়েছে ২১ জনের, এই সূত্রে আবার কৃষ্ণের সন্তান সংখ্যা হয় ১,৭৭,৩৩১ জন। কৃষ্ণ জীবিত ছিলেন ১২৫ বছর, ২৯ বছর বয়সে সে রুক্মিনীকে বিয়ে করে, এর পর থেকে যদি তার সন্তান জন্মানো শুরু করে তাহলে সে সন্তান জন্ম দিয়েছে ৯৫ বছর ধরে, বাস্তবে যেটা অসম্ভব, তারপরও তর্কের খাতিরে সেটাকে সম্ভব বলে ধরে নিলে প্রতিবছর কৃষ্ণ জন্ম দিতো ১৮৬৬ জন সন্তানের, এভাবে প্রতিদিন জন্ম হতো ৫ জনেরও বেশি সন্তানের। এটা কি কখনো সম্ভব ?

প্রকৃত সত্যকে না জেনে বা বোঝার চেষ্টা না করে আমরা কৃষ্ণের ষোল হাজার স্ত্রীকে স্বীকার করে নিয়ে বলি, তারা ছিলো লক্ষ্মীর অংশ বা অবতার এবং কৃষ্ণ একই সাথে সব স্ত্রীর কাছে থাকতে পারতো, তাকে পালা করে কোনো স্ত্রীর কাছে থাকতো হতো না। এভাবে হয়তো কৃষ্ণের পক্ষে থাকা অবশ্যই সম্ভব এবং এভাবে সব স্ত্রীর কাছে প্রতি রাতে থাকলে এক জীবনে অবশ্যই এতগুলো সন্তানের জন্ম দেওয়া সম্ভব। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে কৃষ্ণের এতগুলো সন্তান এবং স্ত্রীর কেউ কার্যক্ষেত্রে উপস্থিত নেই কেনো ? তারা বাস্তবে থাকলে তাদের অস্তিত্বের কোনো প্রমান কি কোথাও থাকতো না ?

উইকিপিডিয়া তো কৃষ্ণের তথাকথিত প্রধান ৮ স্ত্রী এবং তাদের ছেলে মেয়েদের নামও লিখে রেখেছে। এই তালিকায়, অন্য সাত স্ত্রীর সন্তানদের কথা না হয় বাদ ই দিলাম, কৃষ্ণ ও রুক্মিনীর ছেলে প্রদুম্ন ছাড়াও অন্য ১০ জনের নাম আছে। তাহলে প্রদুম্ন ছাড়া অন্য কোনো পুত্রের নাম বা তার কাজের কোনো কিছুর উল্লেখ শুধু মহাভারতেই নয়, অন্য কোনো পুরাণেও উল্লেখ নেই কেনো ? রুক্মিনীর যদি ১০ পুত্র থাকে, তাহলে তো প্রদুম্নের মতো তাদেরও সমান গুরুত্ব কৃষ্ণের কাছে থাকা উচিত ছিলো। অথচ কৃষ্ণ বলেছে শুধু প্রদুম্নের কথা, কারণটা কী ? কারণটা হলো কৃষ্ণের পুত্র ছিলো একজনই সেটা প্রদুম্ন, আর প্রদুম্নের মা রুক্মিনীই ছিলো কৃষ্ণের একমাত্র স্ত্রী।

কৃষ্ণের স্ত্রী সম্পর্কে উইকিপিডিয়া, যার তথ্য পৃথিবীর কোটি কোটি লোক বিশ্বাস করে, তার দ্বিচারিতার ব্যাপারটা এবার একটু লক্ষ্য করুন :

একটু আগেই বলেছি, কৃষ্ণের প্রধান ৮ স্ত্রী এবং তাদের প্রত্যকের ১০ টি পুত্র এবং একটি করে কন্যার কথা উইকিপিডিয়া তাদের সাইটে লিখে রেখেছে, সেই সাথে আরও যা যা লিখে রেখেছে দেখুন,

“কৃষ্ণ বিদর্ভ রাজ্যের রাজকন্যা রুক্মিণীকে তাঁর অনুরোধে শিশুপালের সাথে অনুষ্ঠেয় বিবাহ মণ্ডপ থেকে হরণ করে নিয়ে এসে বিবাহ করেন। এরপরই কৃষ্ণ ১৬১০০ নারীকে নরকাসুর নামক অসুরের কারাগার থেকে উদ্ধার করে তাদের সম্মান রক্ষার্থে তাদের বিবাহ করেন। কৃষ্ণের মহিষীদের মধ্যে আটজন ছিলেন প্রধান, যাদের অষ্টভার্যা নামেও অভিহিত করা হয়। এঁরা হলেন রুক্মিণী, সত্যভামা, জাম্ববতী, কালিন্দি, মিত্রবৃন্দা, নগ্নাজিতি, ভদ্রা এবং লক্ষণা।

কৃষ্ণ নরকাসুরকে বধ করে সমস্ত বন্দী নারীদের মুক্ত করেন। তৎকালীন সামাজিক রীতি অনুসারে বন্দী নারীদের সমাজে কোন সম্মান ছিল না এবং তাদের বিবাহের কোন উপায় ছিল না কারণ তারা ইতিপূর্বে নরকাসুরের অধীনে ছিল।… শ্রীকৃষ্ণের ১৬০০০ অধিক পত্নী ও অষ্টভার্যা সম্পর্কে সঠিক ভিত্তি নেই ৷ বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় এর রচিত কৃষ্ণচরিত্র প্রবন্ধে শ্রীকৃষ্ণের বহুবিবাহের ভিত্তিহীন তথ্য সম্পর্কে যথেষ্ট তথ্যপ্রমাণ দেওয়া আছে ৷

কৃষ্ণচরিত্রে দেখা যায় যে, কৃষ্ণের ১৬০০০ অধিক পত্নী শুধু পুরাণের একটি অংশে সীমাবদ্ধ ৷ শ্রীকৃষ্ণের জীবনের অন্য কোনো কার্যক্ষেত্রে এসবের উল্লেখ নেই ৷ তিনি এটাকে নেহাতই উপকথা বা গল্প বলে উল্লেখ করেন ৷ শ্রীকৃষ্ণের জীবনচরিতে রুক্মিনী ভিন্ন অন্য কোনো পত্নীর কার্যক্রম দেখা যায় না।”

উইকিপিডিয়া একবার কৃষ্ণের তথাকথিকত সর্বমোট ১৬,১০৮ স্ত্রীর কথা ঘটা করে বলছে, পরে আবার বলছে, “শ্রীকৃষ্ণের ১৬০০০ অধিক পত্নী ও অষ্টভার্যা সম্পর্কে সঠিক ভিত্তি নেই।”

আবার এও বলেছে,

“বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় এর রচিত কৃষ্ণচরিত্র প্রবন্ধে শ্রীকৃষ্ণের বহুবিবাহের ভিত্তিহীন তথ্য সম্পর্কে যথেষ্ট তথ্যপ্রমাণ দেওয়া আছে ৷ কৃষ্ণচরিত্রে দেখা যায় যে, কৃষ্ণের ১৬০০০ অধিক পত্নী শুধু পুরাণের একটি অংশে সীমাবদ্ধ ৷ শ্রীকৃষ্ণের জীবনের অন্য কোনো কার্যক্ষেত্রে এসবের উল্লেখ নেই।”

মানুষ আশা এবং বিশ্বাস করে, উইকি যখন কিছু লিখবে, তখন গবেষণা করে সত্য কথাটাই লিখবে, কিন্তু তারাই যদি এইভাবে দুরকম কথা বলে, মানুষ কিসের উপর নির্ভর করে সিদ্ধান্ত নেবে বা সত্য জানবে ? মিথ্যা দিয়ে সত্যকে যতই আড়াল করার চেষ্টা হোক না কেনো, সত্য কোনো না কোনো দিক দিয়ে উঁকি মারবেই, এভাবেই হয়তো কৃষ্ণের স্ত্রী সম্পর্কে সত্য উঁকি দিয়েছে উইকির এই তথ্যে যে, “শ্রীকৃষ্ণের ১৬০০০ অধিক পত্নী ও অষ্টভার্যা সম্পর্কে সঠিক ভিত্তি নেই।”

ভিত্তি থাকবে কিভাবে ? ঘটনা সত্য হলেই তো তার ভিত্তি থাকবে। ঘটনা মিথ্যা বলেই তো তার কোনো ভিত্তি নেই এবং এভাবে হাজারো মিথ্যার আড়ালে প্রকৃত সত্য সন্ধানীদের জন্য উইকির পেজে উঁকি দিচ্ছে একটি সত্য যে,

“শ্রীকৃষ্ণের ১৬০০০ এর অধিক পত্নী ও অষ্টভার্যা সম্পর্কে সঠিক কোনো ভিত্তি নেই।”

তার মানে এই ব্যাপারগুলো পুরোটাই মিথ্যা। কারণ, কৃষ্ণের স্ত্রী ছিলেন একজনই, সে রুক্মিণী এবং রুক্মিণীর ১০টি নয়, পুত্র ছিলো একটি ই সে প্রদুম্ন, আর প্রদুম্নের পুত্র পুরাণে উল্লিখিত বীর অনিরুদ্ধ।

যার অস্তিত্ব থাকে, সে এভাবেই তার অস্তিত্বের প্রমাণ রেখে যায়, কৃষ্ণের সব স্ত্রী ও পুত্রের কথা না হয় বাদ ই দিলাম, পুরাণ বা উইকি যে বলেছে, রুক্মিনী ও কৃষ্ণের আরো ১০ পুত্র ছিলো, তারা কে কোথায় ? কোথাও তাদের কোনো কথা নেই কেনো ? যে প্রশ্নটা আগেও করেছি। এদের উল্লেখ নেই, এই কারণে যে প্রদুম্ন ভিন্ন কৃষ্ণের কোনো পুত্রই ছিলো না। আর অন্য কোনো পুত্র না থাকাটা এটা প্রমান করে যে, প্রদুম্নের মা রুক্মিনী ছাড়া কৃষ্ণের অন্য কোনো স্ত্রীই ছিলো না।

সুতরাং শ্রীকৃষ্ণের বহুবিবাহ নিয়ে যে প্রচলিত গল্প, তা যে সম্পূর্ণ কাল্পনিক ও বানোয়াট, আশা করছি তা আমার পাঠক বন্ধুদের কাছে ক্লিয়ার করতে পেরেছি।

আরো পড়ুন….