হরিবাসরের নামে পদাবলী কীর্তন বন্ধ করুন; কারণ, এটা হিন্দু ধর্মকে ধ্বংস করার একটি চলমান প্রসেস :

Spread the love

মুসলমানরা যে রাধা প্রসঙ্গ টেনে কৃষ্ণ চরিত্রকে কলুষিত ক’রে, হিন্দুদেরকে হেয় করার চেষ্টা করছে, সেই সুযোগ কিন্তু তাদেরকে তৈরি করে দিয়েছি আমরাই; এজন্যই আমার অনুরোধ-

হরিবাসরের নামে পদাবলী কীর্তন বন্ধ করুন; কারণ, এটা হিন্দু ধর্মকে ধ্বংস করার একটি চলমান প্রসেস :

পদকীর্তন বা পদাবলী কীর্তন মানেই রাধা-কৃষ্ণের প্রেম, আর সেখানেই- নৌকা বিলাস, রাধার মান ভঞ্জন, রাসলীলা ইত্যাদি ইত্যাদি পালার নামে কৃষ্ণের লাম্পট্য ও রাধার পরকীয়া প্রেমের বর্ণনা। এর মাধ্যমে আমরা সমাজকে কী শিক্ষা দিচ্ছি ? পুরুষদেরকে এই শিক্ষা দিচ্ছি যে, তোমরা পরকীয়া প্রেম শুরু করো, যেহেতু তোমাদের ভগবান পরকীয়া প্রেম করে গেছে; আর মহিলাদেরকে এই শিক্ষা দিচ্ছি যে, তোমরা তোমাদের স্বামীর পরকীয়া প্রেমকে মেনে নাও। এ্ থেকে সমাজের কী মঙ্গল হতে পারে ? অথচ এই সব হরিবাসরের পেছনে, দেশে, প্রতি বছর হিন্দুদের খরচ হচ্ছে কোটি কোটি টাকা; যার পুরোটাই শুধু অপচয় নয়, সমাজ ধ্বংসের একটা অনুঘটক।

যারা আমার পুরোনো পাঠক, তারা জানেন যে, হিন্দু ধর্মে রাধা কৃষ্ণের প্রেম বলে কিছু নেই। তাই হরিবাসরের নামে এই পদাবলী কীর্তনের আমি ঘোর বিরোধী, আমি চাই এই মূহুর্ত থেকে সারা দেশে এটা বন্ধ হোক এবং এর বিপরীতে নামকীর্তন চলুক। কিন্তু নামকীর্তনেরও একটি পদ্ধতিগত সমস্যা আমাদের ধর্মগুরুরা সৃষ্টি করে রেখে গেছেন; সমস্যাটি হলো-এই নামকীর্তন নাকি একবার শুরু হলে অনুষ্ঠান শেষ না হওয়া পর্যন্ত বন্ধ করা যায় না বা যাবে না। জানি না, এই নির্দেশ তারা কোথা থেকে পেয়েছে ? কিন্তু আমার গবেষণায়, এই রকম নির্দেশ আমি আজ পর্যন্ত কোথাও পাই নি, পেলেও তা ভেঙ্গে ফেলবো; কারণ, যা সামাজিক বাস্তবতাকে স্বীকার করে না এবং যার মাধ্যমে সমাজের মঙ্গল না হয়ে অনিষ্ট হয় তা কোনো ধর্ম নয়, তাই সেগুলো আমি মানি না।

অনুষ্ঠান হয় মানুষের জন্য এবং অনুষ্ঠানগুলো সেভাবেই সাজানো উচিত যাতে মানুষ সেগুলোকে পূর্ণরূপে নিতে পারে বা তার সবটুকু বিষয় ঠিক মতো বুঝতে পারে। যেহেতু নামকীর্তন একবার শুরু হলে আর বন্ধ করা যায় না, সেহেতু দেখা যায়, শেষ রাতে, শ্রোতা-দর্শক ঘুমে ঢুলু ঢুলু করছে, কেউ বা নিজেকে আর কন্ট্রোল করতে না পেরে ঘুমিয়েই পরেছে, কিন্তু তবুও চলছে নাম কীর্তন; এই ধরণের অনুষ্ঠানের মানে কী ?

এরপর যা ঘটে- সারারাত জেগে অনুষ্ঠান দেখার ফলে, পরদিন কেউ আর কোনো কাজে যেতে পারে না, গেলেও ঘুমে ঢুলতে থাকে, ফলে স্বাভাবিক শ্রম ঘণ্টা নষ্ট হয় এবং ব্যবসা বাণিজ্য ও অফিসের কাজে মারাত্মক ক্ষতি হয়, আর যারা সেই ক্ষতি করতে চায় না, তাদেরকে বাধ্য হয়ে সেই সব অনুষ্ঠান মিস করতে হয়। এভাবে যে এলাকাতেই এই ধরণের হোল নাইট অনুষ্ঠান হোক না কেনো, সেই এলাকাতেই একটা বাজে প্রভাব পড়ে বা পড়তে বাধ্য। এছাড়াও নানা কারণে যারা রাতে ঘুমাতে চায়, তারা এলাকার অনুষ্ঠানের মাইকের সাউন্ডসহ নানা কারণে রাতে ঠিক মতো ঘুমাতেও পারে না, ফলে এটা তখন কারো কারো কাছে ধর্মীয় অনুষ্ঠান না হয়ে ধর্মীয় যন্ত্রণায় পরিণত হয়। কিন্তু ধর্মীয় অনুষ্ঠান হওয়ার ফলে কেউ মুখ ফুটে কিছু বলতেও পারে না; কিন্তু এই ধরণের অনুষ্ঠান নিয়ে ভেতরে ভেতরে অসন্তোষ কাজ করে, যে অসন্তোষ সমাজের জন্য ক্ষতিকর।

আমার মত হচ্ছে, এই ধরণের কর্মবিনাশী অনুষ্ঠান বন্ধ করে তাকে কর্মবান্ধব করে সাজাতে হবে। যেকোনো ধর্মীয় অনুষ্ঠানই হোক না কেনো, তা কোনোভাবেই সারারাত ধরে চালানো যাবে না; অনুষ্ঠান শুরু হবে সন্ধ্যায় এবং শেষ হবে, খুব বেশি হলে রাত ১২ টার মধ্যে। তারপর লোকজন গিয়ে ঘুমাবে, পরদিন যে যার মতো কর্ম করবে এবং কর্ম শেষ করে সন্ধ্যায় আবার অনুষ্ঠান স্থলে হাজির হয়ে অনুষ্ঠান আস্বাদন করবে। এভাবে- একদিন, দুইদিন বা টাকার সামর্থ্য অনুযায়ী তিন চার দিনের অনুষ্ঠানের পরিকল্পনা করতে হবে। আগেই বলেছি, কোনোভাবেই পদাবলী কীর্তন করা যাবে না এবং নামকীর্তনও একবার শুরু হলে তা আব বন্ধ করা যাবে না, এই ধরণের অবাস্তব থিয়োরি বাদ দিয়ে, কিছু সময় ধরে কীর্তন করতে হবে এবং কিছু সময় ধরে চালাতে হবে আলোচনা অনুষ্ঠান, তাহলেই শুধু হবে হিন্দু সমাজের মঙ্গল।

কারণ, শুধু নামকীর্তনে মানুষের পারলৌকিক কল্যান হতে পারে, কিন্তু ইহলৌকিক কল্যান কিছুই হয় না। এর কারণ, নামকীর্তনে জ্ঞানমূলক কোনো কিছু থাকে না, তাই সমাজে জ্ঞানের চর্চা হয় না, কিন্তু জ্ঞানের চর্চা ছাড়া কোনো সমাজ টিকে থাকতে পারে না। একারণেই মুসলমানরা প্রতিটি পাড়ায় বা মসজিদ মাদ্রাসায় বছরে একবার করে হলেও ওয়াজ মাহফিলের আয়োজন করে, উদ্দেশ্য আর কিছুই নয়, মুসলমানদের মধ্যে এবং ক্ষেত্র বিশেষ হিন্দুদের মধ্যেও ইসলামিক জ্ঞানের সঞ্চার করা। এসব কারণেই অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, কোনো কোনো হিন্দু, হিন্দু ধর্ম সম্পর্কে যতটুকু জানে, তার চেয়ে বেশি জানে ইসলাম সম্পর্কে। ওয়াজ মাহফিলের মঞ্চের সামনে মুসলমানদের উপস্থিতি খুব বেশি না হলেও, মুসলমানদের এই ধরণের ওয়াজ মাহফিল যে একেবারে বৃথা যায়, তা নয়; বছরের পর বছর ধরে মিথ্যা শুনতে শুনতে কোনো কোনো হিন্দু বিভ্রান্ত হয় এবং কেউ কেউ ইসলাম গ্রহনও করে ফেলে, এরকম কয়েকটি ঘটনা আমি জানি।

মুসলমানদের এই ধরণের জ্ঞান চর্চা মূলক ওয়াজ মাহফিল মূলত হিন্দু সমাজের উপর এক ধরণের সূক্ষ্ম ইসলামিক আগ্রাসন। এই আগ্রাসনের পাল্টা হিসেবে আমাদেরকেও ধর্মীয় সভা করতে হবে এবং হিন্দু ধর্মীয় জ্ঞান সবার মধ্যে ছড়িয়ে দিতে হবে, তাহলেই বন্ধ হবে সমাজের ক্ষয়। কিন্তু শুধু মাত্র ধর্মীয় সভা করে হিন্দুদেরকে সেখানে পাইকারী দরে আকৃষ্ট করা যাবে বলে মনে হয় না, কারণ আত্মগর্বী হিন্দুরা প্রায় প্রত্যেকেই নিজেকে খুব বড় ব’লে ভাবে; তাই নিজে কিছু না জানলেও অন্যের কাছে জ্ঞানের কথা শোনাকে তারা নিজেদের জন্য অপমানজনক বলে মনে করে!

সবাই যে এমন- তা নয়, কিন্তু কোনো অনুষ্ঠান করতে হলে তাতে সব ধরণের লোককেই আনার চিন্তাভাবনা করে অনুষ্ঠান সাজাতে হবে। এজন্যই রাখতে হবে নামকীর্তন ও আলোচনা সভা। কিছু সময় ‘হরে কৃ্ষ্ণ’ গান হবে, তারপর কিছু সময় ধরে হবে আলোচনা সভা; এভাবে অনুষ্ঠানকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। হরে কৃষ্ণ গান এক্ষেত্রে কাজ করবে বিজ্ঞাপন হিসেবে, আর আলোচনা সভার জ্ঞান হবে মূল প্রোডাক্ট, যা মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া ই হবে ঐ অনুষ্ঠানের মূল উদ্দেশ্য। মাঝে মাঝে আমি বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করি। একবার এক অনুষ্ঠান শেষে একজন আমাকে বললো, লাখ লাখ টাকা খরচ করে হরিবাসর করে যে জ্ঞান লাভ হয় না, আজকে, আপনার দেড় ঘণ্টার বক্তৃতায় তার চেয়ে অনেক বেশি জ্ঞান লাভ হলো, আপনাকে ধন্যবাদ।

কিন্তু দীর্ঘদিন থেকে সমাজে যে ধারা চলে আসছে, তা একদিনে পরিবর্তন করা সম্ভব নয়, এই পরিবর্তন ঘটাতে হবে আস্তে আস্তে। প্রথমে সবাই পদাবলী কীর্তনের বিরুদ্ধে একটা শক্ত অবস্থান নেন। নিজের এলাকায় পদাবলী কীর্তনের হরিবাসর বন্ধ করে নামকীর্তন চালু করুন এবং অন্য এলাকা থেকে পদাবলী কীর্তনের উদ্দেশ্যে হরিবাসরের জন্য চাঁদা নিতে এলেও তা দেওয়া বন্ধ করুন এবং নামকীর্তন চালু করতে বলুন। এভাবে হিন্দু সমাজের অবক্ষয়টা প্রথমে বন্ধ হবে। তারপর নামকীর্তন একবার চালু হয়ে গেলে একে সংস্কার ক’রে উপরে আমি যেভাবে বললাম, সেভাবে নাম কীর্তন ও আলোচনা সভার সিস্টেম চালু করুন, যাতে লোকজন দুচারটা জ্ঞানের কথা বলতে পারে এবং শুনতে পারে।

আমি অনেক ভেবে দেখেছি, এভাবেই হবে হিন্দু সমাজের মঙ্গল এবং এটাই সমাজ রক্ষার একমাত্র পথ।

বর্তমানে যারা হিন্দু ধর্ম নিয়ে কাজ করে, তারা শাস্ত্র সম্পর্কে জ্ঞান লাভ করার চেয়ে গুরুত্ব দেয় গান-বাজনা-কীর্তন এবং খোল-করতাল-হারমোনিয়াম বাজানো শেখার দিকে এবং যখনই এতে কিছু দখল এসে যায়, তখনই ধুতি-ফতুয়া প’রে কপালে লম্বা করে তিলক লাগিয়ে নিজেকে মহাগুরু হিসেবে তুলে ধ’রে অনুষ্ঠানের মধ্য গিয়ে গানের সাথ শুরু করে কান্নাকাটি বা নাচানাচি। মনে রাখবেন, এটা কোন ধর্ম নয়, এটা যাত্রাপালার মতো বিনোদন এবং এই একইরকম বিনোদন হচ্ছে যেকোনো ধরণের বারোয়ারি পূজা, যাতে পুরোহিত তার মতো ক’রে পূজা ক’রে চলে যায়, আর আমরা সাউন্ডবক্সে গান বাজানো এবং প্রসাদ ও খিচুড়ির আয়োজন এবং তা বিলি বন্টন ও খাওয়া-দাওয়া নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ি। এগুলো কোনো ধর্ম নয়, ধর্ম হচ্ছে- শাস্ত্র জ্ঞান অর্জন, সেই জ্ঞান অন্যদেরকে প্রদান এবং একনিষ্ঠ মনে একা বা সম্মিলিতভাবে পরমেশ্বর শ্রীকৃষ্ণের উদ্দেশ্যে প্রার্থনা।

যতদিন এই ফরম্যাটে হিন্দু সমাজ রূপান্তরিত না হচ্ছে বা না হবে, ততদিন হিন্দু সমাজের ক্ষয় কেউ রোধ করতে পারবে না। এভাবে চলতে থাকলে- লক্ষ লক্ষ কোটি কোটি টাকার মন্দির আর আশ্রম, বর্তমানের দর্শনীয় স্থান আর ভবিষ্যতের মসজিদ মাদ্রাসা হবে। কারণ, সঠিক জ্ঞানের অভাবে, হিন্দু ধর্মীয় কালচার যদি আপনার সন্তান বা আগামী প্রজন্ম পালন না করে তাহলে হিন্দু সমাজ টিকে থাকবে কিভাবে ? আর ঐ মন্দির বা আশ্রম কী কাজে লাগবে,  আর কে তার তত্ত্বাবধান করবে ? কিন্তু ইসলাম তো আর বিলুপ্ত হবে না, তাই তখন মুসলমানরা সেগুলো দখল করে মসজিদ আর মাদ্রসায় রূপান্তরিত করবে, আর সেগুলোতে হয়তো- আমাদেরই আগামী প্রজন্ম নামাজ পড়বে বা আরবি শিখবে। তাই হিন্দু ধর্ম ও কালচারকে বাঁচাতে হলে আমাদের সন্তান অর্থাৎ আগামী প্রজন্মকেকে ধর্মীয় শিক্ষায় শিক্ষিত করতে হবে এবং এমন একটা ব্যবস্থা চালু করতে হবে যাতে, অটোমেটিক্যালি সেই শিক্ষা পরবর্তী প্রজন্মতে ট্রান্সফার হতে পারে, তাহলে আমরা না থাকলেও আমাদের শিক্ষা থাকবে এবং তা আগামী সকল প্রজন্মকে পথ দেখিয়ে এগিয়ে নিয়ে যাবে, যাতে টিকে থাকবে হিন্দু ধর্ম ও হিন্দু সমাজ।