Thursday, July 29, 2021
Home Bangla Blog খালি পেটগুলো বেশ অমায়িক ; ভরা পেটগুলোই সাম্প্রদায়িক !

খালি পেটগুলো বেশ অমায়িক ; ভরা পেটগুলোই সাম্প্রদায়িক !

খালি পেটগুলো বেশ অমায়িক ;
ভরা পেটগুলোই সাম্প্রদায়িক ! 

এদুটি লাইন আমিই লিখেছিলাম। কয়েক বছর আগে।  এটিই হল তথাকথিত লেফট ন্যারেটিভ এবং স্বাধীনতার পর থেকেই বাংলা সাহিত্য শাসন করে চলেছে। জন্ম দিয়েছে খাড়া বড়ি থোড়, থোড় বড়ি খাড়া অসংখ্য কবিতা, গল্প, উপন্যাস, প্রবন্ধ।  একসময় আমিও এতে বিশ্বাস রাখতাম।  এখন যে রাখিনা, তা বলাই বাহুল্য। রোহিঙ্গা মুসলমান নামক পৃথিবীর সবচেয়ে দরিদ্র জনগোষ্ঠীটি সম্পর্কে জানার পর, আরও অনেকের চৈতন্য উদয় ঘটেছে। যাদের ঘটেনি তাঁরা শুয়োরের মাংস নিয়ে এই সব “অত্যাচারিত, নিপীড়িত, ক্ষুধার্ত ” শরণার্থীদের আশ্রয় শিবিরে চলে যান — বলুন ক্ষুধার তো কোনো ধর্ম নেই — তারপর প্রাণে বেঁচে ফিরতে পারলে কথা হবে! 

প্রিয় বন্ধুদের কাছে তাই একটি প্রশ্ন রাখছি। একটু ভেবে উত্তর দেবেন। আমার বন্ধু তালিকায় প্রায় সব ধর্মের মানুষই আছেন। আমরা সবাই জানি মার্ক্সবাদী তথা বামপন্থীরা মানুষকে মূলত দুটি শ্রেণিতে ভাগ করেন – haves এবং havenots অর্থাৎ ধনী এবং দরিদ্র। ফরাসী ভাষায় বুর্জোয়া এবং প্রলেতারিয়েত।  শ্রেণিসংগ্রাম তত্ব্বের উপরই মার্ক্সবাদী দর্শনটি দাঁড়িয়ে আছে। লড়াই বা সংগ্রামের চালিকাশক্তি হোল খিদে।  সবার জন্য খাদ্য, বস্ত্র এবং বাসস্থান — এই শ্লোগানটিকে কেন্দ্র করেই বামপন্থীরা তাঁদের লড়াইকে সংহত করেন। এছাড়া অন্য কোনো শ্রেণিবিন্যাস তাঁরা স্বীকার করেন না। যেমন হিন্দু, মুসলমান,  শিখ ইত্যাদি নামে ভিন্ন শ্রেণি তাঁদের তত্ত্বে নেই। সেটাই স্বাভাবিক।  কারণ অর্থনীতিকে ভিত্তি করেই তাঁরা এই বৈজ্ঞানিক শ্রেণিবিন্যাস করেছেন। ক্ষুধার্ত মানুষের কোনো ধর্ম বা জাত নেই। এই মর্মে একটু আগে আমি একটি পোষ্টও করেছি।  কিন্তু আমার প্রশ্ন হোল ঠিক কতটা খিদে পেলে একজন মুসলমান  শুয়োরের মাংস খাবেন, অথবা একজন হিন্দু (বুদ্ধিজীবী বাদ দিয়ে অবশ্যই) গোরুর মাংস খাবেন। খেলেও তাঁদের সংখ্যা শতকরা কত ভাগ?  সেই মাত্রার খিদে কি কারও পেয়েছে?  অর্থাৎ আপনার কি এমন ঘটনা চোখে পড়েছে?  হ্যাঁ আমার মাতৃভূমির কথাই বলছি।  “শির দিয়া, সার না দিয়া” এই উচ্চারণটি হিংস্র মৌলবাদী তথা আপাত নিরীহ সাতে পাঁচে না থাকা ধর্মপ্রাণ মানুষ, উভয়ের ক্ষেত্রেই কম বেশি প্রযোজ্য। যে ধর্মই হোক।
তাই এড়িয়ে যাবেন না। প্রশ্নটা কিন্তু হেলাফেলার নয়। এর উপরই একটি দর্শনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপিত হয়েছে। ধরুন, আপনি গোরু এবং শুয়োর দুই-ই রান্না করে  নিয়ে শহরের পথে বেরিয়ে পড়লেন। ফুটপাথবাসী মানুষের কাছে সরাসরি প্রশ্ন করে জেনে নিন সে কোন ধর্মের অনুসারী।  এবার হিন্দু হলে তাকে গোমাংস খেতে দিন, মুসলিম হলে শুয়োর। অবশ্যই জানিয়ে, গোপন করে নয়। এর ফল কি হতে পারে?  শতকরা কতজন ক্ষুধার্ত সানন্দে “ধর্ম বহির্ভূত ” খাবার খেতে পারেন?  আপনার মূল্যবান মত দিন।

—-

RELATED ARTICLES

আফগানিস্তান: আমেরিকা চিরকাল আফগানদের পাহারা দিবে কেন?

আফগানিস্তান: আমেরিকা চিরকাল আফগানদের পাহারা দিবে কেন? আমেরিকা কি আফগানদের বিপদে ফেলে চলে গেছে? 8 ই মে আফগানিস্তানের একটি স্কুলের বাইরে বোমা বিস্ফোরণের পরেও...

বৈদিক সভ্যতা! মানব সভ্যতার অহংকার।

বৈদিক সভ্যতা! মানব সভ্যতার অহংকার। আজকের দিনে কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া হিন্দু তরুন তরুনীরা তাদের নিজ ধর্ম, কৃষ্টি ও সংস্কৃতির বিষয়ে আলোচনা করার ক্ষেত্রে চরম...

সতীদাহ কি হিন্দু ধর্মের প্রথা, বাল্য বিবাহ ও রাত্রীকালীন বিবাহের উৎপত্তির কারণ কি?

সতীদাহ কি হিন্দু ধর্মের প্রথা ? এবং বাল্য বিবাহ ও রাত্রীকালীন বিবাহের উৎপত্তির কারণ কি? ধর্মীয় বিষয় নিয়ে চুলকানো মুসলমানদের স্বভাব| এই চুলকাতে গিয়ে মুসলমানরা নানা...

Most Popular

বৈদিক সভ্যতা! মানব সভ্যতার অহংকার।

বৈদিক সভ্যতা! মানব সভ্যতার অহংকার। আজকের দিনে কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া হিন্দু তরুন তরুনীরা তাদের নিজ ধর্ম, কৃষ্টি ও সংস্কৃতির বিষয়ে আলোচনা করার ক্ষেত্রে চরম...

বেদে স্পষ্ট করে গো হত্যা নিষেধ আছে-দুর্মর

বেদে স্পষ্ট করে গো হত্যা নিষেধ আছে। অপপ্রচার এর জবাব গো হত্যা এরজবাব। অনেক বিধর্মী এবং অপপ্রচার কারী রা বেদে গো হত্যা এর কথা...

পুষ্যমিত্র শুঙ্গ: ভারতে বৈদিক ধর্মের পুনঃপ্রতিষ্ঠাতা। বৌদ্ধধর্মের শাসন সমাপ্তি করেছিল মৌর্য সাম্রাজ্যের সাথে!

পুষ্যমিত্র শুঙ্গ: ভারতে বৈদিক ধর্মের পুনঃপ্রতিষ্ঠাতা। বৌদ্ধধর্মের শাসন সমাপ্তি করেছিল মৌর্য সাম্রাজ্যের সাথে! ভারতবর্ষে অনেক মহান রাজা রয়েছেন। হিন্দু ধর্ম গ্রন্থ এবং ঐতিহাসিক সাহিত্য...

অনাদি হিন্দু জাতি কী? হিন্দু জতি সুদূর অতীত থেকেই অস্তিত্বশীল, কখনও কৃত্রিম সত্তা ছিল না।

অনাদি হিন্দু জাতি কী? হিন্দু জতি সুদূর অতীত থেকেই অস্তিত্বশীল, কখনও কৃত্রিম সত্তা ছিল না। আজকাল হিন্দু ও জাতীয়তাবাদের মতো শব্দগুলি শোনা যাচ্ছে এবং...

ভারতীয় সভ্যতার এমন শক্তি আছে যা ভােগবাদী দুনিয়াকে সঠিক পথের সন্ধান দিতে পারে।

ভারতীয় সভ্যতার এমন শক্তি আছে যা ভােগবাদী দুনিয়াকে সঠিক পথের সন্ধান দিতে পারে। প্রথমদিকে নানাভাবে অতিরিক্ত চাহিদা নিয়ন্ত্রণে বাধ্য করতে হবে। প্রয়ােজনে শক্তি প্রয়ােগ...

আমাদের সুপ্রাচীন সভ্যতার গৌরবময় মহান ঐতিহ্য জানতে হবে, সময় এসেছে ভুল সংশােধনের।

সুপ্রাচীন সভ্যতা: আমাদের সুপ্রাচীন সভ্যতার গৌরবময় মহান ঐতিহ্য জানতে হবে, সময় এসেছে ভুল সংশােধনের। যে কেউ খোলা চোখে তাকালে আধুনিক বিশ্বের চতুর্দিকে নানা ধরনের পরস্পর...

আর্যরা বহিরাগত নয়: আর্য দ্রাবিড় এক জনজাতি, ‘আর্যরা বহিরাগত’ এই তত্ত্বের উদ্ভাবনের কারণ কি?

আর্যরা বহিরাগত নয়: আর্য দ্রাবিড় এক জনজাতি, 'আর্যরা বহিরাগত' এই তত্ত্বের উদ্ভাবনের কারণ? আর্যরা বহিরাগত নয়: আর্য দ্রাবিড় এক জনজাতি, "আর্যরা বহিরাগত আক্রমণকারী- একটি...
%d bloggers like this: