এই দেশটি ইউরোপীয় ইউনিয়নের একমাত্র যে দেশে একটিও মসজিদ নাই বা তৈরি করার অনুমতিও নাই। পৃথিবীতে এমন একটি দেশও রয়েছে যেখানে মুসলমানরা বসবাস করেন তবে সেখানে মসজিদ নির্মাণের অনুমতিও নেই। এই দেশের নাম স্লোভাকিয়া। স্লোভাকিয উন্নত বিশ্বের একটি দেশ, যেখানে মুসলমানদের অবশ্যই বাস করে তবে সেখানে মসজিদও নেই বা তৈরি করার অনুমতি নাই। তথ্য অনুসারে, স্লোভাকিয়ায় বসবাসকারী মুসলমানরা তুর্কি এবং উগার সতেরো শতক থেকে এখানে বসবাস করে আসছে। ২০১০ সালে স্লোভাকিয়ায় মুসলমানদের জনসংখ্যা ছিল প্রায় ৫২ হাজার।

 

স্লোভাকিয়া বিশ্বের এমন একটি দেশ, যেখানে কোনও মসজিদ নেই এবং সেখানে কোনও মসজিদও তৈরি করা যায় না। এমনকি সেখানকার সরকার তাদের দেশে ইসলামকে অফিসিয়াল স্ট্যাটাস দিতে অস্বীকার করেছে।এই দেশটিকে একসময় উগোস্লাভিয়া বলা হত। এর পরে, যখন এটি ভেঙেছিল, স্লোভাকিয়া একটি পৃথক দেশে পরিণত হয়েছিল। যুগোস্লাভিয়া ভেঙে তৈরি হওয়া বসনিয়া ও আলবেনিয়ার মতো অন্যান্য দেশের অনেক মুসলমান এখানে শরণার্থী হয়ে এসেছিলেন। এই জায়গার রাজধানী ব্রাটিসিওভা। এশিয়া থেকে আসা অন্যান্য মুসলমানরাও আছেন।

 

স্লোভাকিয়া ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য দেশ। তবে এটি ইউরোপীয় ইউনিয়নের সর্বশেষে এর সদস্য হয়। এ দেশে একটি মসজিদ নির্মাণ নিয়েও বিতর্ক রয়েছে। 2000 সালে, স্লোভাকিয়ার রাজধানীতে একটি ইসলামিক কেন্দ্র তৈরির বিষয়ে একটি বিতর্ক হয়েছিল। ব্রাতিসিওভের মেয়র স্লোভাক ইসলামী ওয়াকফ ফাউন্ডেশনের সমস্ত প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছেন।

এমন একটি দেশ যেখানে মসজিদ বা নির্মাণের অনুমতি নেই
এমন একটি দেশ যেখানে মসজিদ বা নির্মাণের অনুমতি নেই

 

প্রকৃতপক্ষে, ২০১৫ সালে শরণার্থীদের ইউরোপে স্থানান্তর একটি বড় ইস্যু হয়ে দাঁড়িয়েছে। সেই সময়, স্লোভাকিয়া 200 জন খ্রিস্টানকে আশ্রয়ও দিয়েছিল, কিন্তু মুসলিম শরণীয়দের আশ্রয় দিতে অস্বীকার করেছিল। এ বিষয়ে স্পষ্টতা প্রদান করে স্লোভাকিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রক বলেছে যে তাদের মুসলমানদের উপাসনার কোনও জায়গা নেই, যার কারণে মুসলমানদের আশ্রয় দেওয়া দেশে অনেক সমস্যার কারণ হতে পারে। তবে এই সিদ্ধান্তের সমালোচনাও করেছিল ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

এর আগে স্লোভাকিয়ার প্রেসিডেন্ট রবার্ট ফিকো অস্ট্রিয়ান একটি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, ‘স্লোভাকিয়া খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের দেশ। এই দেশে আমরা লাখ লাখ মুসলিম অভিবাসীকে আশ্রয় দিতে পারব না। কারণ তারা এসে সারা দেশে মসজিদ বানাতে শুরু করবে এবং আমাদের প্রকৃতি, সংস্কৃতি ও রাষ্ট্রীয় মূল্যবোধ পরিবর্তনের চেষ্টা করবে।’

তাৎপর্যপূর্ণভাবে, ৩০ নভেম্বর ২০১৬ -এ স্লোভাকিয়া একটি আইন পাস করে যাতে ইসলামকে ধর্মীয় মর্যাদা দেওয়া নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। এই দেশে ইসলামকে ধর্ম চর্চ করার কোন কেনা প্রতিষ্ঠান নাই বা তৈরিকরার কোন অনমতিও নাই। স্লোভাকিয়া ইউরোপীয় ইউনিয়নের একমাত্র দেশ যেখানে একটিও মসজিদ নেই।

 

পশ্চিমা দেশগুলিতে ইসলামবিরোধী ছড়িয়ে পড়ার মাঝে স্লোভাকিয়া একটি আইন পাস করেছিল যা ইসলামকে সরকার-অনুমোদিত ধর্মের মর্যাদা দেওয়া থেকে নিষেধ করেছে। স্লোভাক ন্যাশনাল পার্টির পক্ষে সংসদে এই প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়েছিল। এতে বলা হয়েছে যে কোনও ধর্মের আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি দেওয়া যেতে পারে যখন তার অনুসারীদের সংখ্যা কমপক্ষে 50 হাজার হয় তবে ইসলামকে নয়। দলীয় নেতা আন্দ্রেজ ড্যানকো বলেছেন, ভবিষ্যতে যে কোনও মসজিদ নির্মাণ বন্ধে আমাদের সম্ভাব্য সব পদক্ষেপ নেওয়া উচিত। স্লোভাকিয়ার প্রধানমন্ত্রী রবার্ট ফিকো বলেছেন যে এই দেশে ইসলামের কোনও স্থান নেই।

শব্দ দূষণ মোকাবেলায় স্লোভাকিয়ায় একটি শক্তিশালী আইনও রয়েছে। এই দেশে, সকাল দশটা থেকে সন্ধ্যা অবধি আপনি কারও সাথে উচ্চ সরে কথা বলতে পারবেন না এবং হট্টগোল করতে পারবেন না। যদি কেউ এটি করে তবে পুলিশ তাকে ধরতে পারে এবং জরিমানাও দিতে হতে পারে।

 

উল্লেখ্য, বর্তমানে স্লোভাকিয়ার প্রায় ৫২ লাখ জনসংখ্যার মধ্যে মাত্র শূন্য দশমিক ২ শতাংশ মুসলিম। শুধু স্লোভাকিয়া নয়, ইউরোপের অন্যান্য দেশ যেমন চেক রিপাবলিক, হাঙ্গেরি ও এস্তোনিয়ার মতো পূর্ব এবং দক্ষিণ ইউরোপের দেশগুলো মুসলিমবিদ্বেষী নীতি গ্রহণ করেছে।

 

আরো দেখুন…..