কাত্যায়ন (খ্রিস্টপূর্ব ৩য় শতক) একজন সংস্কৃত ব্যাকরণবিদ এবং বৈদিক আমলের প্রথিযশাবৈদিক ভারতের একজন অধিবাসী ছিলেন।
গনিতবিদ। তিনি


তিনি দুটি বিশেষ কাজের জন্য এখনও বিখ্যাত হয়ে আছেন

  • তিনি ভর্তিকা(Varttika) নামে একটি বই লেখেন। এটি পাণিনির
    ব্যকারনের ব্যাখ্যা এবং ‘পতঞ্জলি’ র মহাভাষ্য। এটি সংস্কৃত ব্যকারনের মূল
    বই হয়ে ওঠে। এবং ১২ শতক পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের বাধ্যতামুলক পাঠ্যপুস্তক
    হিসেবে পরিচিত ছিল।

• তিনি ‘সুল্বসুত্রের’ একটি অংশের ব্যাখ্যা লেখেন। এটি নয়টি সুত্রের
একটি লিখন যেখানে জ্যামিতির মৌলিক বিষয় গুলো নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।
এখানে লম্ব,ত্রিভুজ,রম্বস প্রভৃতি জ্যামিতিক বিষয় গুলো আলোচনা করা হয়েছে।

দর্শন

তথ্যসুত্র

Joseph (2000), p. 328