ভারতের এক সময়ের সারা জাগানো দুই ধর্মের দুই  দিকপাল বক্তা! যদিও জাকির নায়েক তার অপকর্ম ও অসৎ উদ্দ্যেশ্যের জন্য ভারত থেকে আজ বিতাড়িত! মূল কথায় আসি- প্রথম দিকের পিস টিভির অধিকাংশ লেকচারে এই দুই বক্তাকে প্রায়ই একই মঞ্চে পাওয়া যেতো! এবং অনেক ক্ষেত্রেই এই দুই বক্তা হিন্দু ও মুসলিম ধর্মের মাঝে একটা মেলবন্ধন খুঁজে পেতেন। ড. রবি শঙ্কর তার সহজ সরল ও উদার নীতির চেতনায় তার বক্তব্য উপস্থাপন করলেও জাকির নায়েকের অনেক কথায় পাওয়া যেত ধুরন্ধর কিছু কৌশল! যে কৌশলে তিনি ইসলামকে বসাতেন শ্রেষ্ঠত্বের আসনে!!  মূলতঃ ড. রবি শঙ্কর ও ভারতের অন্যান্য ধর্মীয় নেতাকে ব্যবহার করে জাকির নায়েক যে ভারতে একটা শক্তিশালী ইসলামী শক্তি উজ্জ্বীবিত করে আসছিলেন সেটা অনেকেই  ভাবতে পারেন নি। এমন কি ভাবতে পারেন নি ড. রবি শঙ্কর পর্যন্ত!!  যার ফলশ্রুতিতে আজ ইসলামি মৌলবাদী শক্তির প্রভাবে ভারতের অনেক মুসলিম অধ্যুষিত রাজ্যই বেসামাল। সবচেয়ে বড় সত্য হল, এই জাকির নায়েক ভিত্তিক ইসলামি শক্তিই আজ বাংলাদেশের অনেক মুসলিমকে কট্টর ধারায় পরিচালিত করে সংখ্যালঘু আক্রমণের দিকে ঠেলে দিয়েছে এবং করেছে ব্যাপক ভাবে উজ্জীবিত!! আর মসজিদে মসজিদে ও ওয়াজ মাহফিলের অনেক বক্তার বক্তব্য সেই হিংস্র চেতনার আগুনে দিয়েছে বাতাস!!  দাউ দাউ করে জ্বলেছে একের পর এক সংখ্যালঘু এলাকা!!  আশা করা যায় ভবিষ্যতে এমন ভুল আর কোন ধর্মীয় নেতা বাংলাদেশ কিংবা ভারতে করতে যাবেন না!!  আর এখনের সমস্যা বাংলাদেশ ও ভারতের কিছু বামপন্থি হিন্দু নেতা, লেখক ও বুদ্ধিজীবি!! যারা সারা বিশ্বে ইসলামী মৌলবাদী চেতনার একের পর এক আঘাত দেখেও বুঝতে পারছেন না এর পরিণতি কি হবে! তাই নতুন প্রজন্মের কাছে আহবান উদার হও তবে বামপন্থি ধাঁচের উদার নয়!! যারা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের মাঝেও  পিনাকি ভট্টাচার্যের মতো ইসলাম রক্ষার প্রেরণা খুঁজে পায়!! এবং ভাবে বাংলাদেশ হয়েছিল ইসলাম রক্ষার নিমিত্তে!!