Sunday, September 19, 2021
Home Bangla Blog ২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের...

২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ঘৃণ্য চক্রান্ত ব্যর্থ করল প্রশাসন!

২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ঘৃণ্য চক্রান্ত ব্যর্থ করল প্রশাসন! সবচেয়ে বড় কথা হল আইএসআইয়ের এই সম্পূর্ণ ষড়যন্ত্রে, 1993 মুম্বাই বিস্ফোরণের পর প্রথমবারের মতো দাউদের আন্ডারওয়ার্ল্ডের সক্রিয় ভূমিকা দেখা গেছে।

দিল্লি পুলিশের স্পেশাল সেল এবং গোয়েন্দা ব্যুরো উত্তরপ্রদেশ এটিএস -এর সাহায্যে একটি বড় সন্ত্রাসী হামলার ষড়যন্ত্র বানচাল করেছে। মঙ্গলবার দিল্লি পুলিশের বিশেষ সেল প্রকাশ করে যে, পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই এবং দাউদ ইব্রাহিম গ্যাং দশেরা উৎসব, রামলীলা বা নবরাত্রি উৎসবের সময় দিল্লি, মহারাষ্ট্র এবং উত্তর প্রদেশে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ষড়যন্ত্র করছিল। তারা জনাকীর্ণ জায়গাগুলোকে টার্গেট করতে চেয়েছিল। 

তাদের পরিকল্পনায় সফল হওয়ার আগেদিল্লি পুলিশের বিশেষ সেল এই সন্ত্রাসী মডিউলের ছয়জন কর্মীকে গ্রেপ্তার করে। পুলিশ তাদের কাছ থেকে আইইডি, গ্রেনেড, বেরেটা পিস্তল এবং আরডিএক্সযুক্ত কার্তুজ উদ্ধার করেছে। এখন পর্যন্ত এক কেজি আরডিএক্স জব্দ করা হয়েছে।
 
গ্রেপ্তার হওয়া ছয়জন সন্ত্রাসীর নাম মুম্বাইয়ের বাসিন্দা জান মোহাম্মদ শেখ ওরফে সমীর কালিয়া। দিল্লির জামিয়া নগরের ওসামা ওরফে সামি, রায় বেরেলির মূলচাঁদ ওরফে শাজু, প্রয়াগরাজের জীশান কামার, বাহরাইচের মোহাম্মদ আবু বকর এবং লখনউয়ের বক্সি তালাবের বাসিন্দা মোহাম্মদ আমির জাভেদ। দিল্লি এবং উত্তর প্রদেশের বেশ কয়েকটি শহরে অভিযানের সময় তাদের সবাইকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। প্রয়াগরাজ থেকে অস্ত্র ও বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়েছে। 
 
জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে ওসামা সালাম এয়ারের একটি ফ্লাইট ধরার পর 22 এপ্রিল লখনউ থেকে মাস্কাট (ওমান) রওনা হয়েছিল। ওসামা মাস্কাটে জীশানের সাথে দেখা করেন। জীশানও এসেছিলেন প্রশিক্ষণের জন্য। মাস্কাতে দুজনেই ১৫ থেকে ১৬ জন বাংলাদেশির সাথে দেখা করেন। পরে তারা ছোট দলে বিভক্ত হয়ে পড়ে। ওসামা এবং জিশানকে একটি গ্রুপে রাখা হয়েছিল।
 
ওসামা ও জীশানকে ছোট নৌকায় করে ওমানের মাস্কাট থেকে গোয়াদার বন্দরের কাছে জিওয়ানি শহরে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তাকে এক পাকিস্তানি কর্মকর্তা গ্রহণ করেন এবং তাকে সিন্ধু প্রদেশের ঠাটার একটি ফার্ম হাউসে নিয়ে যাওয়া হয়। এই ফার্ম হাউসে তিনজন পাকিস্তানি ছিল। তাদের মধ্যে হামজা ও জব্বার নামে দুজন পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর ইউনিফর্ম পরেছিলেন। ওসামা ও জীশানকে এখানে 15 দিনের জন্য প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছিল দুজনেই একে 47 চালানোর জন্য এবং বোমা বিস্ফোরণ করতে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছিল। 
 
এই দুই পাকিস্তানি সৈন্যই একজন লেফটেন্যান্ট বা মেজর পদমর্যাদার আইএসআই কর্মকর্তার নির্দেশে কাজ করে। ওসামাকে এবং মোহাম্মদ আবু ওখলা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। জীশান কামার, আমির জাভেদ ও মূলচাঁদ ওরফে সাজুকে ইউপি এটিএসের সহায়তায় গ্রেফতার করা হয়।
 
কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আন্ডারওয়ার্ল্ড ডন দাউদ ইব্রাহিমের ভাই আনিস ইব্রাহিম এতে সক্রিয় ভূমিকা রাখছেন। আনিস ইব্রাহিম তার মেষপালকদের মাধ্যমে দেশের অভ্যন্তরে আইইডি, গ্রেনেড, পিস্তল এবং কার্তুজ পরিবহন করে। পাকিস্তান থেকে ভারতে বিস্ফোরক পরিবহন এবং বোমা বিস্ফোরিত না হওয়া পর্যন্ত লুকিয়ে রাখার দায়িত্বে ছিলেন আনিস ইব্রাহিম। আন্ডারওয়ার্ল্ডের সাহায্যে, এই আরডিএক্স এবং আইইডি প্রয়াগরাজ পৌঁছেছিল যেখানে এটি লুকানো ছিল এবং নিরাপদ রাখা হয়েছিল। 
 
দিল্লি, মুম্বাই এবং ইউপি শহরে বিস্ফোরণের জন্য এই বিস্ফোরক এবং অস্ত্র সন্ত্রাসীদের হাতে তুলে দেওয়ার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল মোহাম্মদ শেখ এবং মূলচাঁদ ওরফে সাজুকে। পুলিশ জানিয়েছে, এই বিস্ফোরকগুলি উৎসবের সময় জনাকীর্ণ স্থানে ব্যবহার করা কথা ছিল।

কর্মকর্তারা জানান, করাচির পূর্বে ঠাটা একই জায়গা যেখানে ২৬/১১ মুম্বাই হামলার অভিযুক্ত আজমল কাসাবকে আইএসআই এবং পাকিস্তান নৌবাহিনীর এলিট ফোর্স স্পেশাল সার্ভিস গ্রুপ প্রশিক্ষণ দিয়েছিল। আগে পাকিস্তান সন্ত্রাসীদের প্রশিক্ষণের জন্য দুবাই রুট ব্যবহার করত, এই রুট দিয়েই সন্ত্রাসীদের আনা হয় এবং ফেরত পাঠানো হয়।কিন্তু প্রথমবারের মতো ওমান যাওয়ার পথ ব্যবহার করা হয়েছে। এর সাথে, বড় কথা হল 1993 মুম্বাই বিস্ফোরণের পর প্রথমবারের মতো, উৎসবের মরসুমে সিরিয়াল বিস্ফোরণের আইএসআইয়ের এই সম্পূর্ণ ষড়যন্ত্রে দাউদের আন্ডারওয়ার্ল্ড গ্যাংয়ের সক্রিয় ভূমিকা দেখা গেছে। 
 
নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে এই সন্ত্রাস মডিউল থেকে দুটি জিনিস বেরিয়ে আসে। প্রথমত, আইএসআই কীভাবে দিল্লি এবং ইউপি -র 22 বছর থেকে 30 বছরের ছেলেদের সহজেই মৌলবাদী করছে এবং তাদের মাস্কাটের মাধ্যমে পাকিস্তানে নিয়ে যাচ্ছে। যেহেতু সামরিক বাহিনী গত কয়েক বছরে নিয়ন্ত্রণরেখা (লাইন অফ কন্ট্রোল) কঠোরভাবে বৃদ্ধি করেছে, তাই আইএসআই ছেলেদের ফ্লাইটের মাধ্যমে পাকিস্তানে প্রশিক্ষণের জন্য পাঠানোর একটি নতুন উপায় খুঁজে পেয়েছে। 
 
দ্বিতীয়ত, জইশ-ই-মোহাম্মদ এবং লস্কর-ই-তৈয়বার স্লিপার সেল নেটওয়ার্ক দুর্বল হয়ে পড়েছে। এমন পরিস্থিতিতে আইএসআই দাউদের আন্ডারওয়ার্ল্ড নেটওয়ার্ক সক্রিয় করেছে। কিন্তু ভালো বিষয় হচ্ছে গোয়েন্দা সংস্থা এবং পুলিশের তৎপরতার কারণে, বিস্ফোরণের পরিকল্পনা যথাসময়ে বানচাল করা হয়েছিল। এজন্য দিল্লি পুলিশ, ইউপি পুলিশের পাশাপাশি গোয়েন্দা সংস্থার প্রশংসা করা উচিত। 

আর পড়ুন….

RELATED ARTICLES

২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ঘৃণ্য চক্রান্ত ব্যর্থ করল প্রশাসন!

২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ঘৃণ্য চক্রান্ত ব্যর্থ করল প্রশাসন! সবচেয়ে বড় কথা হল আইএসআইয়ের এই সম্পূর্ণ...

আশ্রয় দেওয়া দেশগুলোতে জিহাদ একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে ওঠছে।

শরণার্থী : আশ্রয় দেওয়া দেশগুলোতে ইসলামী মৌলবাদিদের জিহাদ একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে ওঠছে।নিউজিল্যান্ড ইসলামী জিহাদিদের ছুরি হামলা, হামলাকারী একজন শ্রীলংকান মুসলিম শরণার্থী। অন্য দিকে জার্মানিতে...

কেরালা ভারতে অশান্তির নীরব রাজধানী হয়ে উঠছে। আগামী ১০ বছরের মধ্যে কেরালা পরবর্তী কাশ্মীর হয়ে যাবে।

কেরালা ভারতে অশান্তির নীরব রাজধানী হয়ে উঠছে। আগামী ১০ বছরের মধ্যে কেরালা পরবর্তী কাশ্মীর হয়ে যাবে। কেরালার হিন্দুদের কাছ থেকে ভারতের অনেক কিছু শেখার আছে। কাশ্মীরি...

Most Popular

২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ঘৃণ্য চক্রান্ত ব্যর্থ করল প্রশাসন!

২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ঘৃণ্য চক্রান্ত ব্যর্থ করল প্রশাসন! সবচেয়ে বড় কথা হল আইএসআইয়ের এই সম্পূর্ণ...

আশ্রয় দেওয়া দেশগুলোতে জিহাদ একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে ওঠছে।

শরণার্থী : আশ্রয় দেওয়া দেশগুলোতে ইসলামী মৌলবাদিদের জিহাদ একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে ওঠছে।নিউজিল্যান্ড ইসলামী জিহাদিদের ছুরি হামলা, হামলাকারী একজন শ্রীলংকান মুসলিম শরণার্থী। অন্য দিকে জার্মানিতে...

কেরালা ভারতে অশান্তির নীরব রাজধানী হয়ে উঠছে। আগামী ১০ বছরের মধ্যে কেরালা পরবর্তী কাশ্মীর হয়ে যাবে।

কেরালা ভারতে অশান্তির নীরব রাজধানী হয়ে উঠছে। আগামী ১০ বছরের মধ্যে কেরালা পরবর্তী কাশ্মীর হয়ে যাবে। কেরালার হিন্দুদের কাছ থেকে ভারতের অনেক কিছু শেখার আছে। কাশ্মীরি...

মন্দির-মসজিদ সহাবস্থান যতগুলি ধর্মীয় সহিষ্ণুতার বিজ্ঞাপন দেখেন তার সবগুলিই মন্দির আগে প্রতিষ্ঠা হয়েছে তারপর মসজিদ।

মন্দির-মসজিদ সহাবস্থান যতগুলি ধর্মীয় সহিষ্ণুতার বিজ্ঞাপন দেখেন তার সবগুলিই মন্দির আগে প্রতিষ্ঠা হয়েছে তারপর মসজিদ। সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের চট্টগ্রামে একজন মুসলিম যুবক চন্দ্রনাথ ধামে...

Recent Comments

%d bloggers like this: