Sunday, September 19, 2021
Home Bangla Blog আশ্রয় দেওয়া দেশগুলোতে জিহাদ একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে ওঠছে।

আশ্রয় দেওয়া দেশগুলোতে জিহাদ একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে ওঠছে।

শরণার্থী : আশ্রয় দেওয়া দেশগুলোতে ইসলামী মৌলবাদিদের জিহাদ একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে ওঠছে।নিউজিল্যান্ড ইসলামী জিহাদিদের ছুরি হামলা, হামলাকারী একজন শ্রীলংকান মুসলিম শরণার্থী। অন্য দিকে জার্মানিতে নিউজিল্যান্ড মডেলে জিহাদি হামলার শিকার হয়েছে দুই জার্মান নাগরিক। জানা যায়, আক্রমণকারী জিহাদি একজন আফগান শরণার্থী।

বার্লিনের উইলমার্সডর্ফ এলাকায় এই জিহাদি হামলার ঘটনা ঘটে। তদন্তকারী জার্মান পুলিশ কর্তারা বলেছেন যে, ভুক্তভোগী মহিলা শরিয়তের আইন না মেনে চলায় তীব্র বিদ্বেষ থেকেই এই হামলা করেছে অভিযুক্ত আফগান জিহাদি। উল্লেখ্য ২০১৬ সালে জার্মানিতে শরণার্থী হিসেবে স্থান পায় হামলাকারী আফগান শরণার্থী জিহাদি৷ 

অনেক দেশ আফগান শরণার্থীদের আশ্রয় দিতে অস্বীকার করছে। শরণার্থীদের ঠেকাতে তুরস্ক ২৯৫ কিলোমিটার দীর্ঘ প্রাচীরও তৈরি করেছে।

আফগানিস্তানে তালেবানের বিজয়কে বিশ্বজুড়ে মৌলবাদী ইসলামী শক্তি তাদের বিজয় হিসেবে বিবেচনা করছে। আল কায়েদা এবং আইএসআইএস -এর মতো সন্ত্রাসী সংগঠন বিজয় উদযাপন করছে এবং বলছে যে এটি কেবল শুরু। তারা সেই সব দেশে একই রকম জিহাদ শুরু করবে যেখানে কথিত মুসলিমরা নির্যাতিত হচ্ছে।

বিশ্বের বড় দেশগুলো, বিশেষ করে পশ্চিমা দেশগুলো নীরবে এই সব ঘটছে দেখছে এবং তারা সম্ভবত এই ভ্রান্ত ধারণার মধ্যে আছে যে এই আগুনের শিখা সেখানে পৌঁছাবে না। কিন্তু সন্ত্রাসের এই আগুন পৃথিবীর যে কোন প্রান্তে যে কোন প্রান্তে পৌঁছাতে পারে।

নিউজিল্যান্ডে সন্ত্রাসী হামলা

আইএসআইএস সন্ত্রাসী নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ড শহরের একটি সুপার মার্কেটে ছুরি দিয়ে ৬ জন মানুষকে আক্রমণ করে। এই হামলায় ছয় জন আহত হয়েছে, যার মধ্যে তিনজনের অবস্থা এখনও খুব গুরুতর। আপনি এই আক্রমণের 20 সেকেন্ডের ভিডিওটি দেখুন, যা আপনাকে বলবে যে ইসলামী জিহাদি সন্ত্রাসবাদ কোন একটি দেশের সমস্যা নয়। এটি পুরো বিশ্বের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ।

শরণার্থী থেকে  হত্যাকারীতে পরিণত হয়েছে

নিউজিল্যান্ডের নিরাপত্তা সংস্থা এই সন্ত্রাসীর নাম জানায়নি কিন্তু এই হামলাকারী ২০১১ সালে শ্রীলঙ্কা থেকে নিউজিল্যান্ডে এসেছিল। অর্থাৎ তিনি ছিলেন শরণার্থী। কিন্তু পরবর্তীতে ২০১৬ সালে সন্ত্রাসী সংগঠন আইএসআইএস -এ যোগ দেয়। কয়েক বছর আগে পর্যন্ত পৃথিবীর সব দেশ যারা শরণার্থীদের স্থান দিয়েছিল, এখন সেখানে ইসলাম এবং অন্যান্য ধর্মের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলছে এবং ইসলামী মৌলবাদের আদর্শ এই দেশগুলোর জন্য একটি চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

শরণার্থী চ্যালেঞ্জ

২০২০ সালে, বিশ্বে মোট ২৬.৪ মিলিয়ন শরণার্থী ছিল। এই সংখ্যাটি এমন যে নিউজিল্যান্ডের মতো পাঁচটি দেশ এতে গঠিত হতে পারে। এই ২৬.৪ মিলিয়ন উদ্বাস্তুদের ৫০ শতাংশেরও বেশি মুসলিম আফগানিস্তান, ইরাক ও সিরিয়ার মতো দেশ থেকে, যেখানে জিহাদের নামে সংঘাত চলছে। ইউরোপ সহ অনেক দেশ কয়েক বছর আগে পর্যন্ত এই শরণার্থীদের একটি বড় হৃদয় দিয়ে জায়গা দিয়েছিল, কিন্তু পরে এই শরণার্থীরা তাদের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে ওঠে।

উদাহরণস্বরূপ, আজ থেকে বহু বছর আগে ফ্রান্স হাজার হাজার মুসলিম শরণার্থীকে আশ্রয় দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু কিছু বছর পর এই লোকেরা আলাদা শিক্ষা ও উপাসনা পদ্ধতির অধিকার দাবি করতে শুরু করে। তাদের সন্তানদের স্কুলে পাঠানোর পরিবর্তে, লোকেরা বাড়িতেই সেমিনারি শিক্ষা দিতে শুরু করে এবং এই ধর্মীয় উন্মাদনার কারণ দিন দিন ফ্রান্সে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই পরিস্থিতি মোকাবেলায় ফ্রান্সকে এ বছর একটি নতুন আইন আনতে হয়েছিল।

ইউরোপের মতো একই ঘটনা ঘটেছে নিউজিল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়ায়। 2019 সালে, নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলা হয়েছিল, তারপরে দেখা গেছে যে ইসলাম এবং খ্রিস্টান ধর্মের লোকদের মধ্যে সংঘাতও বেড়েছে। আজ এই সব দেশ মুসলিম দেশ থেকে আসা শরণার্থীদের এতটাই ভয় পায় যে তাদের জন্য নিয়ম কঠোর করা হয়েছে।

যেমন দক্ষিণ আফ্রিকা বলেছে আফগান শরণার্থীদের তাদের দেশে অশ্রায় দেবে না। ফ্রান্স বলেছে যে এখন মাত্র কয়েকজনকে আশ্রয় দেবে এবং এই লোকদেরও তদন্ত করা হবে। রাশিয়া অবশ্যই তালেবানকে সমর্থন করছে, কিন্তু তারা তাদের দেশে আফগান শরণার্থীদের স্থান দিতে অস্বীকার করেছে। সুইজারল্যান্ড আরও বলেছে যে শুধুমাত্র কয়েকজন শরণার্থীকে আসতে দেওয়া হবে এবং মুসলিম দেশ হওয়া সত্ত্বেও তুরস্ক শরণার্থীদের তাদের দেশে আসতে বাধা দিতে 295 কিলোমিটার দীর্ঘ প্রাচীর তৈরি করছে। 

এমন কি কোন মুসলিম দেশ এই শরণার্থীদের আশ্রয় দিতে অস্বীকার করেছে। ওআইসি সহ সকল মুসলিম দেশ ভারতের মুসলিম নিয়ে কথা বলেও এখন আফগান শরণার্থী নিয়ে চুপ।

এই দেশগুলোর এই মনোভাবের সবচেয়ে বড় কারণ হলো ইসলামী মৌলবাদ। যদিও এই দেশগুলি এখনও মনে করে যে শরণার্থীদের থামিয়ে দিয়ে তারা এই ধরনের বাহিনীর হাত থেকে পালাতে পারবে। যদিও সত্য হল যে এর আগুন পৃথিবীর যে কোন জায়গায় পৌঁছতে পারে যদি পৃথিবী এখনো সজগ না হয়।

এই ঘটনার পর থেকে ভারতে আফগান শরণার্থীদের স্থান দেওয়া নিয়েও উঠছে প্রশ্ন। কারণ কিছুদিন আগেই শাহীনবাগ মডেলে দিল্লিতে আন্দোলন করেছিল আফগান শরণার্থীরা। ফলে স্বাভাবিকভাবেই তাদের স্থান দেওয়ার ব্যাপার নিয়ে বিচলিত ভারত সাধারণ নাগরিকরা।

আর পড়ুন…..

RELATED ARTICLES

২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ঘৃণ্য চক্রান্ত ব্যর্থ করল প্রশাসন!

২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ঘৃণ্য চক্রান্ত ব্যর্থ করল প্রশাসন! সবচেয়ে বড় কথা হল আইএসআইয়ের এই সম্পূর্ণ...

আশ্রয় দেওয়া দেশগুলোতে জিহাদ একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে ওঠছে।

শরণার্থী : আশ্রয় দেওয়া দেশগুলোতে ইসলামী মৌলবাদিদের জিহাদ একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে ওঠছে।নিউজিল্যান্ড ইসলামী জিহাদিদের ছুরি হামলা, হামলাকারী একজন শ্রীলংকান মুসলিম শরণার্থী। অন্য দিকে জার্মানিতে...

কেরালা ভারতে অশান্তির নীরব রাজধানী হয়ে উঠছে। আগামী ১০ বছরের মধ্যে কেরালা পরবর্তী কাশ্মীর হয়ে যাবে।

কেরালা ভারতে অশান্তির নীরব রাজধানী হয়ে উঠছে। আগামী ১০ বছরের মধ্যে কেরালা পরবর্তী কাশ্মীর হয়ে যাবে। কেরালার হিন্দুদের কাছ থেকে ভারতের অনেক কিছু শেখার আছে। কাশ্মীরি...

Most Popular

২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ঘৃণ্য চক্রান্ত ব্যর্থ করল প্রশাসন!

২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ঘৃণ্য চক্রান্ত ব্যর্থ করল প্রশাসন! সবচেয়ে বড় কথা হল আইএসআইয়ের এই সম্পূর্ণ...

আশ্রয় দেওয়া দেশগুলোতে জিহাদ একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে ওঠছে।

শরণার্থী : আশ্রয় দেওয়া দেশগুলোতে ইসলামী মৌলবাদিদের জিহাদ একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে ওঠছে।নিউজিল্যান্ড ইসলামী জিহাদিদের ছুরি হামলা, হামলাকারী একজন শ্রীলংকান মুসলিম শরণার্থী। অন্য দিকে জার্মানিতে...

কেরালা ভারতে অশান্তির নীরব রাজধানী হয়ে উঠছে। আগামী ১০ বছরের মধ্যে কেরালা পরবর্তী কাশ্মীর হয়ে যাবে।

কেরালা ভারতে অশান্তির নীরব রাজধানী হয়ে উঠছে। আগামী ১০ বছরের মধ্যে কেরালা পরবর্তী কাশ্মীর হয়ে যাবে। কেরালার হিন্দুদের কাছ থেকে ভারতের অনেক কিছু শেখার আছে। কাশ্মীরি...

মন্দির-মসজিদ সহাবস্থান যতগুলি ধর্মীয় সহিষ্ণুতার বিজ্ঞাপন দেখেন তার সবগুলিই মন্দির আগে প্রতিষ্ঠা হয়েছে তারপর মসজিদ।

মন্দির-মসজিদ সহাবস্থান যতগুলি ধর্মীয় সহিষ্ণুতার বিজ্ঞাপন দেখেন তার সবগুলিই মন্দির আগে প্রতিষ্ঠা হয়েছে তারপর মসজিদ। সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের চট্টগ্রামে একজন মুসলিম যুবক চন্দ্রনাথ ধামে...

Recent Comments

%d bloggers like this: