আশ্চর্যের বিষয় হলো এই বাঙ্গালীরা যখন ইসলাম কবুলে বাধ্য হলো, তখন ওদের ইসলামী জাতীয় চেতনার জ্বর শুরু হয়ে শক্তিশালী ও সংগঠিত হয়ে চলতে লাগলো | যারা কবুল করলোনা তারা? তারা কেবল নিজের একমাত্র সন্তানের(বেশির ভাগের একটি কন্যা) হোমওয়ার্ক (যে যুগে যেরকম, এটা এখনকার ) নিয়ে ব্যস্তই থাকলো | কমুনিষ্টদের শিক্ষা অনুযায়ী নিজের জাতির জন্য কিছু না করার ওজর হিসেবে বিশ্বমানবতার আশ্রয় নিলো | আমার ছেলের না বাংলাটা ঠিক আসেনা হয়ে গেলো | বাঙ্গালী তো আছেই, হিন্দু বাঙ্গালীর উন্নতি বা ঐক্যের ব্যাপারটাই একটা অশ্লীল ও-আঁতেলীয় গান্ডুত্বে পরিণত হলো | বাংলা দৈনিক ‘যুগশঙ্খ’ পত্রিকায় দেখলাম একজন লিখেছেন যে আসামের হিন্দু বাঙালিদের  detention ক্যাম্পে রেখে বিনা কারণে অত্যাচার করা হচ্ছে কিন্তু বাঙালি  হিন্দুদের এক করা যাচ্ছে না | ওখানে বাঙ্গালী জাতির পক্ষে চল্লিশটা আলাদা আলাদা সংগঠন আছে | শত শত আলাদা আলাদা নেতা আছে | কেউ কারো কথা শুনছে না | এখন হায় ভগবান করা ছাড়া কোনো কিছু করার নেই | আর পশ্ছিম বঙ্গে ? খিস্তি চলে আসছে ……. শেষে…  শিলাদিত্যের মতো জেলে যেতে হবে হয়তো  | ইমাম ভাতা জিন্দাবাদ WBUT-কে সেকুলার নাম দেয়া জিন্দাবাদ, সেকুলার ধর্ম করলে ১৫% কোটা জিন্দাবাদ ( এখন আর  জেল হবে না )