বাঙলাদেশের হিন্দুরা শিক্ষিত এবং কন্ডম ব্যবহার করতো! ওহো সরি, পরিবার পরিকল্পনা করতো তাই……………

Spread the love

বাঙলাদেশের হিন্দুরা শিক্ষিত এবং কন্ডম ব্যবহার করতো! ওহো সরি, পরিবার পরিকল্পনা করতো তাই……………

♣ মিয়ানমারের মোট জনসংখ্যার ১০ শতাংশই মুসলিম আর এই ১০ শতাংশের ০২ শতাংশ মুসলিম জনগোষ্ঠীর বাস মিয়ানমারের আরাকান রাজ্যে।

বহুদিন ধরেই বর্মিজ বাহিনী কতৃক বারংবার আক্রান্ত হচ্ছে আরাকানের রোহিঙ্গা মুসলিম সম্প্রদায়!

কিন্তু কেন? খুব স্বাভাবিক প্রশ্ন।

যে মিয়ানমারে রাজধানী ইয়াংগুন সহ দেশব্যাপী ০৮ শতাংশ মুসলিম সম্প্রদায় শান্তিতে বাস করছে, ব্যবসা করছে সেই একই দেশে একটি মাত্র প্রদেশে নারী শিশু সাধারণ রোহিঙ্গা মুসলিম নিপীড়ন কেন? কেনই’বা দেশটির এ অদ্ভূত দৈত আচরণ!!!!

একেবারেই সহজ উত্তর আরাকান রোহিঙ্গা ব্যতীত মিয়ানমারের অনান্য অঞ্চলে বসবাসরত মুসলিমরা অসভ্য সন্ত্রাসী নয় এমনকি তাদের সাথে কারো বিরোধ নেই এবং রোহিঙ্গাদের বিষয়ে মিয়ানমারের অন্য অঞ্চলের মুসলিমদের বিন্দুমাত্র মাথা ব্যথা নেই কারণ তারা জন্মগতভাবে অপরাধী নয় আর অপরাধ ও দেশবিরোধীদের তারা সমর্থনও করেনা।

কিন্তু আরাকান রোহিঙ্গা মুসলিম সম্প্রদায় সেই মগের মুল্লুকের দস্যু ঢাকা পর্যন্ত তাদের দস্যুতা চালিয়েছে, এরা সন্ত্রাসী, মাদক ও অস্ত্র পাচার, অসভ্য পশ্চাদপদতা সহ কোন অপরাধ বাঁকি আছে যার সাথে তারা সম্পৃক্ত নয়? বরং রোহিঙ্গারা জন্মগতভাবেই অপরাধী।

তার সাথে নতুন করে যোগ হয়েছে আন্তর্জাতিক জ্বালানী মুনাফা ভোগীদের চীন-মিয়ানমারের পাইপলাইন, যা আরাকান রাজ্যের উপর দিয়েই যাচ্ছে। এ পাইপলাইনের নিরাপত্তার ইস্যুটিও এখনকার নিপীড়নের অন্যতম একটি কারণও  হতে পারে।

তবুও এটা তাদের ভূমি তারাই সেখানে থাকবে এটা তাদের জন্মগত অধিকার, সেখান থেকে যদি তাদের সরাতেই হয় তবে নির্যাতন নিপীড়ন কেন? অন্যত্র স্থানান্তর করে নিলেই হয়।

অথচ তা না করে তাদেরকে ঠেলে দেয়া হচ্ছে বাঙলাদেশে! করা হচ্ছে অমানবিক নিপীড়ন! কোনভাবেই মানা যায়না।  মানবতাবাদীরা এর প্রতিবাদ করবেই।

এবার মানবতাবাদীদের সাথে নিয়ে বাঙলাদেশে যাওয়া যাক।

♣ ৪৭’এ দেশ ভাগের কালে বাঙলাদেশে (পূর্ব বাঙলায়) হিন্দু জনসংখ্যা ছিলো মোট জনসংখ্যার ৩২ শতাংশ।

১৯৫১ তে তা নেমে আসে ২২ শতাংশে, ১৯৭১’এ মহান মুক্তিযুদ্ধ পূর্ব পর্যন্ত যা নেমে যায় ১৩.৫ শতাংশে এবং ১৯৭৫ এর ১৫ ই আগষ্ট পূর্ব ১৯৭৪ শুমারী অনুযায়ী বাঙলাদেশে হিন্দু সংখ্যা ছিলো মোট জনসংখ্যার ১৪ শতাংশ  (তথ্য : এনএইচআরসি) যা বর্তমানে জাদুঘরের প্রাণী পর্যায়ে নেমে হয়েছে ০৮ শতাংশ! শতাংশের হিসেবে মিয়ানমারের মোট মুসলিম জনসংখ্যার’চে কম।
কিন্তু কেন?  কারণ কি? এভাবে কেন হিন্দু সম্প্রদায়ের জনসংখ্যা হ্রাস পেল?

উত্তর খুঁজেছেন কি কখনো হে মহা-মানবতাবাদী?

খুঁজতে গেলেই উত্তর আসবে, শালারা মালাউন কাফের মরুক জাহান্নামে যাক, এদেশ তাদের নয় মুসলমানের!!!
হিন্দুদের এক’পা ভারতে! সুযোগ পেলেই পাড়ি জমাই ভারতে!

বাংলাদেশে সর্বমোট হিন্দু জনসংখ্যা বিশ্বের মধ্যে দ্বিতীয় এবং সাত মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ ইয়েমেন, জর্দান, তাজিকিস্তান, সিরিয়া, তিউনিশিয়া, ওমান, কুয়েত’র সম্মিলিত জনসংখ্যার চেয়েও বেশি! জি ছিলো।  তবুও অতিজ্ঞানী কোন মানবতাবাদী বুদ্ধিজীবি হয়তো বলবে হিন্দুরা শিক্ষা-দীক্ষায় অগ্রগামী ছিলো, তারা কন্ডম ব্যবহার করতো, পরিবার পরিকল্পনা করতো তাই তাদের সংখ্যা বাড়েনি!

> ৪৬ এ নোয়াখালীতে দাঙ্গা হয়নি? ৫০ এ বরিশাল দাঙ্গা হয়নি? ৬৫ তে দেশজুড়ে দাঙ্গা হয়নি?

লক্ষ লক্ষ মানুষ ধর্মের নামে নির্যাতন নিপীড়ন লুটপাট হত্যা ধর্ষণের স্বীকার হয়ে দেশত্যাগে বাধ্য হয়নি?

একদিনে নিপীড়নের স্বীকার হিন্দু সম্প্রদায়ের পাঁচলক্ষ মানুষ ভিটেমাটি পেলে জীবন বাঁচাতে পরদেশে পালিয়ে যায়নি?

> বাবরি মসজিদ ধ্বংসকে কেন্দ্র করে বাঙলাদেশে সারে চার হাজার মন্দির ধ্বংস লুটপাট নিপীড়ন হত্যা ধর্ষণের স্বীকার হয়ে লক্ষ লক্ষ হিন্দু দেশত্যাগ করেনি?

> ১৯৯৪ এর ১১ এপ্রিল স্বাধীন এ ভূমির খাগড়াছড়ির লোগাং’এ গণহত্যার ঘটনা ঘটেনি?

> বাঁশখালি, রামু, মিরশরায়, ভোলা, নাসিরনগড়, যশোরের মালুপাড়া, বরিশাল, সাওতাল পল্লী সহ দেশজুড়ে পরিকল্পিতভাবে হিন্দু সম্পদ দখলের জন্য দাঙ্গা লাগিয়ে লক্ষ লক্ষ হিন্দুকে হত্যা ও দেশত্যাগে বাধ্য করা হয়নি?

> মানিক সাহা গোপাল মুহুড়ী কে হত্যা করা হয়নি?

> পূর্নিমা সহ অসংখ্য হিন্দু নারীদের ধর্ষণ ও হত্যা করা হয়নি?

> বৌদ্ধে মন্দির সহ ঘরবাড়ি লুটপাট অগ্নিসংযোগ হত্যাকান্ড হয়নি?

> নিরপরাধ রসরাজকে জেলে বন্দি করে নিপিড়ন এবং দেশত্যাগে বাধ্য করা হয়নি?

> হিন্দুদের তারিয়ে হিন্দু সম্পত্তি জোরদখল করে বহু মুসলিম’তো  নামের পাশে সেন/ঠাকুর উপাধীও দখল করে নিয়েছে!

কি করেনি?

মনুষ্যত্বের বাটখারাটি শূণ্য করে বিবেক গিলাফ জুংগালে বন্দি করা আজকের রোহিঙ্গাপ্রেমী মানবতাবাদীরা কি বলবেন?

৭০ বছর ধরে শুধুমাত্র ধর্মের দোহায় দিয়ে একটি জনগোষ্ঠীকে নির্যাতন নিপিড়ন হত্যা ধর্ষণ লুটপাট ভিটেমাটি দখল করলেন। তাদের পিতৃভূমি থেকে অত্যন্ত নির্দয় নির্মমভাবে শরণার্থী করে দিলেন বাস্তুহারা করলেন কোটি কোটি মানুষকে।  নিজের জন্মভূমিতে থাকতে দিলেন না কোটি কোটি মানুষকে। অথচ তাদের কোন অপরাধ ছিলোনা, তারা ছিলোনা কোন দেশ সমাজ বিরোধী কাজে তবুও তাদের চিরতরে উচ্ছেদ করেছেন তাদেরই নিজ ভূমি থেকে?

অসভ্য রোহিঙ্গাদের প্রতি প্রেম এই আপনাদের মানবতা মোড়ানো দয়ার খোমা সেদিন কোথায় ছিলো?
কোথায় ছিলো সেদিন আপনাদের চোঁখের জল?

লিখেছেন, সাইফুল ইসলাম