প্রিয় আল আমীন ভাই,
তোমাদের বাংলা কবে থেকে হল? পূর্ব বাংলা ছিনিয়ে নিয়ে, সেটাকে পূর্ব পাকিস্তান বানিয়ে, সেখান থেকে সব বাঙালি হিন্দুকে অত্যাচার করে তাড়িয়ে দিয়ে, আবার এই বাংলাকে ‘তোমাদের’ বলছ? তোমাদের বাংলা নয়। তোমাদের জন্য আছে পাকিস্তান অথবা বাংলাদেশ। তোমরা মুসলমান বা পাকিস্তানি বা বাংলাদেশী। তোমরা বাঙালি কি করে হবে? বাঙালিরা তো দুর্গাপূজা, সরস্বতী পূজা করে। বাঙালিরা তো ভাইফোঁটা করে। বাঙালিরা তো গাজন, বোলান, ভাদু, টুসু, গোষ্ঠ, দোল, সংকীর্তন, রাস, পুণ্যিপুকুর, শিবরাত্রি, সত্যনারায়ণ, রথযাত্রা, পৌষ সংক্রান্তি  – এসবের মধ্যে কিছু না কিছু অবশ্যই করে। তোমরা তো এসবের একটাও কর না। বাঙালিরা “বন্দে মাতরম” বলে, তোমরা বল না। কারণ তোমরা মুসলমান। বাঙালি নও। শরৎচন্দ্র লিখে গেছেন জানো না – “আজ বাঙালিদের সঙ্গে মুসলমানের ফুটবল ম্যাচ” !
যাও, তোমাদের পাকিস্তান ও বাংলাদেশটাকে একটু ভদ্রস্থ কর, যাতে ইউরোপ আমেরিকায় গিয়ে ‘পাকিস্তানী’ বা ‘বাংলাদেশী’ বলে পরিচয় দিতে লজ্জা না হয়। যাতে এয়ারপোর্টের ইমিগ্রেশনে শাহরুখ খানের মত অবস্থা না হয়। তোমাদের সন্তানদের মাদ্রাসায় না পাঠিয়ে স্কুলে পাঠাও যাতে তারা আত্মঘাতী সন্ত্রাসবাদী (ফিদায়েঁ) না হয়ে সফটওয়ার ইঞ্জিনিয়ার, ডাক্তার, চার্টার্ড একাউন্ট্যান্ট হতে পারে। পরিবারকে একটু ছোট কর। স্ত্রীদেরকে শুধু সন্তান উৎপাদনের যন্ত্র হিসাবে ব্যবহার না করে ওদেরকে একটু স্বাধীনতা দাও। বোরখার অন্ধকার থেকে বের করে একটু আলো দাও। তবেই তোমাদের সন্তানরা জন্নতলোভী জেহাদি না হয়ে আধুনিক ও একটু আলোকপ্রাপ্ত হবে।
বাঙালিদের দিকে নজর দিতে হবে না। নিজেদের দিকে নজর দাও।
@ আল আমীন