একজন জাকির নায়েক কিভাবে পুরো পৃথিবীকে বিষাক্ত করে তুলেছে চিন্তা করুন।

জাকির নায়েকের একজন ভক্ত মালয়েশিয়ান একজন আইনজীবীকে হত্যার হুমকি দিয়ে যে ম্যাসেজ করেছে হুবহু আমরা প্রতিনিয়ত ফেইসবুক ইনবক্সে এরকম হুমকি পাই। আশ্চর্য হব না, যদি সেই হুমকিদাতা বাংলাদেশী কোন মুসলমান হয়ে থাকে। মালয়েশিয়াতে প্রচুর বাংলাদেশী শ্রমিক বসবাস করে। সিংঙ্গাপুরে এর আগে বাংলাদেশী শ্রমিকদের জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়ার ঘটনা ঘটেছিলো। যাই হোক, গণমাধ্যম থেকে জানা গেছে একজন আইনজীবীকে জাকির নায়েকের জনৈক ভক্ত মুসলমান ম্যাসেজে হুমকি দিয়ে লিখেছে, ‘তুই একটা জারজ। তুই জাকির নায়েককে বহিষ্কার করতে চাস, যতক্ষণ তোকে না পাবো ততক্ষণ খুঁজবো আর তোর দেহ তেকে ওই শুকরের মাথা আলাদা করে ফেলবো। ইসলাম আর মালয়েশিয়া জাতির স্বার্থে আমি এই শপথ করছি’।

শেষ খবর হচ্ছে মালয়েশিয়ান সরকার থেকে এবার জাকির নায়েককে বের করে দেয়া দাবী উঠেছে। ভারতে নাকি হিন্দুত্ববাদী সরকার আসাতেই শান্তিবাদী ইসলাম প্রচারক জাকির নায়েককে দেশ থেকে বের করে দেয়া হয়েছে। যদিও ভারত জাকির নায়েককে ফিরিয়ে নিতে চাইছে। সে নিজেই পলাতক। সাম্প্রদায়িক উশকানি ও জঙ্গিবাদের মদদদাতা হিসেবে তার সংগঠন ও তার কার্যক্রম তদন্তে উঠে আসে। বাংলাদেশে হলি আর্টিজেনের হামলাকারীদের জিহাদী প্রেরণাও ছিলো জাকির নায়েক। এই ভাইরাস যেখানেই যাবে সেখানেই মানুষে মানুষে বিভেদ ঘৃণা আর বিদ্বেষ সৃষ্টি করবে। কারণ সে ইসলাম নামের ভাইরাস বহন করে চলেছে। ইবনে কাথিরের সুরা নিসার তাফসির থেকে জানা যায় কুরআনের নিসা ১৪৪ আয়াত অনুসারে হযরত উমার মদিনা থেকে খ্রিস্টানদের বের করে দিয়েছিলেন। আউনুত তিরমিযী (খন্ড-১, পৃষ্ঠা-৩২৭) শরীফে বলা আছে অুমসলিমদের সঙ্গে মুসলমানরা ঘনিষ্ঠ বন্ধুত্ব করতে পারবে না। কারণ এটা কুরআনের নিষেধ। মাআরিফুল কোরআনের দ্বিতীয় খন্ড, পৃষ্ঠা ২০১-এ অনুরূপ কথা বলা আছে যে অমুসলিমদের সঙ্গে বন্ধুত্ব করা যাবে না। প্যারাডক্সিক্যাল সাজিদ কি হযরত উমারের চেয়ে বেশি ইসলাম বুঝে? ইবনে কাথিরের চেয়ে বেশি ইসলাম বুঝে? আর যে জাকির নায়েকের লেকচার নকল করে এই বই লেখা হয়েছিলো সেই জাকির নায়েকই মালয়েশিয়াতে এখন বের হবার মুখে পড়েছে অমুসলিমদের প্রতি তার ঘৃণা প্রকাশের জন্যই।

জাকির নায়েককে মালয়েশিয়া থেকে বের করে দেয়াই সমাধান নয়। তাকে মালয়েশিয়াতেই হয় খাঁচায় ভরে রাখেন নয়ত বিশেষ স্কলারশিপ দিয়ে চীনের সংশোধন ক্যাম্পে পাঠিয়ে দিন। যত মাদ্রাসা মক্তব আছে সেখানকার মুফতি মাওলানাদের সংশোধন ক্যাম্পে পাঠান। একজন জাকির নায়েক কিভাবে পুরো পৃথিবীকে বিষাক্ত করে তুলেছে চিন্তা করুন। আমি ফান করে কিছু বলছি না। ভাইরাস নিয়ে ঠাট্টা তামাশা করা যায় না…।