টাকা নেওয়ার ভিডিও ফুটেজগুলি প্রকাশ্যে আসার পর মমতাদি এবং দলের নেতারা বলেছিলেন কুৎসা, জাল ভিডিও, তৈরি করা ছবি, কেউ টাকা নেয়নি ইত্যাদি ইত্যাদি।

এখন যে অভিযুক্তরা তদন্তে হাজিরা দিতে যাচ্ছেন, কেউ বলছেন, টাকা নিয়ে ক্লাবকে দিয়েছি। সমাজসেবায় দিয়েছি। এতটা নিইনি, কম নিয়েছি। এমপি হওয়ার আগে নিয়েছি। ইত্যাদি।
তার মানে যে কারণেই হোক, তাঁরা নিয়েছেন।

এখন কথা হল, মমতাদি যে শুরুতে বলেছিলেন জাল ভিডিও, ‘ম্যানুফ্যাকচার্ড’ ভিডিও, এই কুৎসিত মিথ্যার দায়টা কার?
যাঁদের ছবিতে দেখা গেছে, তাঁরাই মমতাদিকে ভুল বলেছিলেন?
নাকি মমতাদি সব জেনেও মানুষকে ভুল বলেছেন?
আজ মূলস্রোত মিডিয়া প্রশ্ন তুলবে না।
“খোলা হাওয়ার সন্ধানে” প্রশ্ন তুলতে গেলে “ছেলে ঢুকিয়ে” কন্ঠরোধের চেষ্টা হবে।
কিন্তু, এভাবে কি প্রশ্ন ঠেকানো সম্ভব?

যখন সারদা তদন্তে আমাকে ডাকা হত, যেতাম, তখন নিয়মিত ছবি, খবর। এখন নারদ ভিআই পিদের হাজিরার ছবি ছাপতে অনেক মিডিয়ার পা কাঁপছে। অনেক বিপ্লবী কাগজে খবর ভিতরের পাতায় দশ লাইন। যত বীরত্ব ছিল আমার উপর। যেকোন গল্প খাইয়ে দেওয়া। আর এখন ভিআইপিদের হাজিরা যথাসম্ভব আড়াল। মানুষের চর্চার বাইরে রাখার চেষ্টা।

যাক সে কথা। শুরুর প্রশ্নে ফিরি।
“জাল ভিডিও”- এই মিথ্যা বিবৃতির দায় কার?
সংশ্লিষ্টদের না মমতাদির?

কিন্তু কী আশ্চর্য, তাঁরা তো মমতাদির সঙ্গেই হাসিমুখে !!!
তাহলে “জাল ভিডিও” বলে মিথ্যা বিবৃতির দায়টা কার?