মমতা ব্যানার্জি কেবল মুসলিম তোষনকারী নয়, তিনি মুসলিম সাম্প্রদায়িকও বটে —-
1. কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশের তোয়াক্কা না করেই তিনি বছরে 200 কোটি টাকা ইমাম ভাতা দিচ্ছেন। এই টাকাটা জনগণের ট্যাক্সের টাকা তিনি ওয়াকফ বোড্ কে দেন এবং বোড্ তা প্রতিমাসে ইমামদের 2500 টাকা ও মুয়াজ্জিমদের 1000 টাকা করে দেয় । (হাইকোর্ট বলেছিল জনগণের ট্যাক্সের টাকা কোনও বিশেষ সম্প্রদায়কে এইভাবে দেওয়া যায়না ।)

2. সরকারের ভুল সিদ্ধান্তের জন্য হাইকোর্টে কেস হয়ে SSC/Primary বন্ধ আছে  । 2010 সালের 10 অক্টোবরের পর 2017 সালের 12ই মে পর্যন্ত মাত্র 2বার SSC হয়েছে ; তাও আবার টাকার বিনিময়ে অযোগ্য অনেক কে চাকরি দেওয়া হয়েছে । আবগারি দপ্তরে যে 1268 জন Constables নেওয়া হয়েছে তার অধিকাংশই টাকার বিনিময়ে অযোগ্যদের নেওয়া হয়েছে ।

3. সপ্তম শ্রেণীর বইতে রামধনু তুলে দিয়ে রংধনু করা হয়েছে কেবলমাত্র মুসলমানদের খুশি করবার জন্য ।

4. তিনি গোমাংস খাওয়া নিয়ে এত কথা বললেও শুকরের মাংস নিয়ে একটি কথাও বলেননি, যদি মুসলিমরা বিরক্ত হয় !!

5. অভিনেত্রী কাজল, কবি শ্রীজাত নিয়ে মন্তব্য করলেও তিনি সনু নিগম নিয়ে নিরব থেকেছেন ।

6. তিনি হিজাব পরে নামাজ/ইফতারে গেলেও রথের দড়ি টেনেছেন জুতো পরে, খালি পায়ে নয় ।

7. রাম নবমীর মিছিলে তরবারি থাকায় হিন্দু যুবকদের বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা করে গ্রেফতার করা হয়েছে;  অনেক স্থানে লাঠি চার্জ করা হয়েছে । মহরমের সময় কিন্তু ইহার কিছুই করা হয়না । তখন কি ফুলের তোড়া নিয়ে মিছিল হয় ?

8. তেহট্টর স্কুলে নবী দিবস পালনে আপত্তি থাকায় প্রাচীন সরস্বতী পুজো বন্ধ করা হয়েছে । ছাত্রছাত্রীরা পুজোর দাবিতে মিছিল করায় সেই মিছিলে পুলিশ দিয়ে লাঠি চার্জ করা হয়েছে । আহত কয়েকজন হসপিটালে ভর্তি ।

9. মহরমের মিছিল থাকায় দুর্গাপুজোর বিসর্জন বন্ধ করা হয়েছে । যা হাইকোর্টের রায়ে পুনরায় করা গেছে । এখন প্রশ্ন হল, হিন্দু ধর্মাচরণের জন্য হাইকোর্টের দ্বারস্থ হতে হবে ?

10. বিশ্বহিন্দু পরিষদের নেতা প্রবীণ তোগারিয়া রাজ্যে আসতে চাইলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে 144 ধারা জারি করা হয় । অথচ সৌদি ধর্মগুরু , দিল্লি মসজিদের ইমাম দের কে সাদরে গ্রহণ করা হয় ।

11. কেবলমাত্র ধর্মের ভিত্তিতে মুসলমানদের জন্য শিক্ষা ও চাকরিতে 10% সংরক্ষণ করা হয়েছে । যা সংবিধান বিরোধী ।

12. 2015 সালের WBCS Gr-B তে D.S.P পদে যে 5 জন নেওয়া হয়েছে তার 4 জনই মুসলিম সংরক্ষিত । যা 80% সংরক্ষণ, যদিও 10% হলে প্রায় 1 জন হওয়ার কথা । ইহা আগুন নিয়ে খেলা ।
13. কেবলমাত্র মুসলিম দের জন্য হসপিটাল, ছাত্রাবাস নির্মান করা হচ্ছে ।

14. উঃ 24 পরগনার দেগঙ্গাতে হিন্দু নির্যাতন করেছিল হাজী নূরুল ইসলাম, ক্যানিংয়ের নলিয়াখালি তে আহমেদ হাসান ইমরান । এখন হাজী নুরুল তৃণমূলের বিধায়ক  (হাড়োয়া) এবং ইমরান রাজ্যসভার সাংসদ ।

15. মোদীকে দাঙ্গাবাজ বলা হয়; যদিও গুজরাটে 2002 সালের পর একটিও দাঙ্গা হয়নি । অথচ এই রাজ্যের তৃণমূলের মুসলিম নেতারা হিন্দুদের বিরুদ্ধে পরিকল্পনামাফিক প্রতিবছর দাঙ্গা করছে- ধূলাগড় (হাওড়া), কালিয়াচক(মালদা), দেগঙ্গা(উঃ 24 পরগনা), নলিয়াখালি (ক্যানিং), রামপুরহাট(বীরভূম), মঙ্গলকোট (বর্ধমান) ।

16. সুদুর উ: প্রদেশের মহম্মদ আখলাখের জন্য তৃণমূল নতা/নেত্রীদের পরান জ্বলিয়া গেলেও বীরভূমের সিউড়িতে মহরমের চাঁদা না দেওয়ায় মুসলমানরা ইন্দ্রজিৎ কে পিটিয়ে হত্যা করলেও সবাই আশ্চর্যজনক ভাবে নিরব ।

17. সংঘের স্কুলে প্রচলিত শিক্ষার পাশাপাশি হিন্দু ধর্মীয় শিক্ষা দেওয়ায় সেগুলিকে বন্ধ করা হয়েছে । অথচ মাদ্রাসাতে ইসলামি শিক্ষা নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী নিরব । যদিও সব জঙ্গিই মাদ্রাসা থেকেই শিক্ষা পেয়েছে ।

18. নলহাটিতে নিরাপত্তার অভাব দেখিয়ে দুর্গাপুজো করতে দেওয়া হয়নি । অথচ নিরাপত্তার অভাবে কোনওদিন কোথাও ইসলামিক জলসা বন্ধ করা হয়নি । যে পুলিশ একটা পুজোর নিরাপত্তা দিতে পারেনা, তাহারা 9.13 কোটি রাজ্য বাসির নিরাপত্তা কি করে দেবে ? পুলিশ মন্ত্রী ব্যর্থতার দায় এড়াতে পারেনা ।

19. রামনবমীর মিছিল , ধর্মতলায় হিন্দু সংহতির সমাবেশ,  বিরিগেদে RSS এর সমাবেশ করতে অনুমতি দিতে না চাওয়া হয় । অথচ মুসলিমদের যেকোনো মিছিল/সমাবেশের অনুমতি বিনা বাক্যবয়ে দেওয়া হয় । যদিও মুসলিমদের সমাবেশ /মিছিল থেকেই কলকাতায় পুলিশের উপর হামলা, কালিয়াচকে থানায় ও BSF & Police এর গাড়িতে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে এবং অনন্তকাল ধরে এইরকম ঘটনা ঘটে চলেছে । কিন্তু হিন্দুদের কোনও মিছিল থেকে কোনও দিন অপ্রিতিকর ঘটনা না ঘটলেও অনুমতি দিতে টালবাহানা করা হয় ।