হেলেন কেলার
“”””””””””””””””””””
দৃষ্টিহীন ও শ্রবণ-প্রতিবন্ধী হয়েও হেলেন কেলার পারতেন নৌকা চালাতে,নদীতে সাঁতার কাটতে,দাবা ও তাস খেলতে, ঘরে বসে নকশিকাঁথা সেলাই করতে। হেলেন রাজনৈতিক বিষয় নিয়েও লেখালেখি করেছেন।

এবং সবকিছু খুবই ভালোভাবে করতে পারতেন।

তার জীবনের সবচেয়ে স্মরনীয় ঘটনা, ১৯৫৫ সালে বাক-শ্রবণ ও দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের জীবনের বিড়ম্বনা ও দুঃখ-দুর্দশাকে উপজীব্য করে নির্মিত ডেলিভারেন্স চলচ্চিত্র প্রযোজনা করেন হেলেন কেলার। ট্রেভলিন মিলার রচিত এই নির্বাক ছবি পরিচালনা করেন জর্জ ফস্টার প্ল্যাট ।এই ছবির প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেন হেলেন নিজেই। এবং অস্কার লাভ করেন। ১৯৫৯ সালে হেলেন কেলার জাতিসংঘ কর্তৃক বিশেষ সম্মানে ভূষিত হন।
১৮৮০ সালে ১৭ শে জুন, হেলেন কেলার আলাসামার তাসকুম্বিয়ায় জন্মগ্রহণ করেছিলেন।
১৯ মাস পরে ১৮৮২ সালে অসুস্থতার পরে হেলেন তার দৃষ্টি ও শ্রবণশক্তিটি হারিয়েছিলেন।
হেলেনের বাবা-মা হেলেনের শিক্ষক হিসাবে পার্কিনস স্কুলের স্নাতক অ্যান সুলিভানকে নিয়োগ করেন। অ্যান প্রথমে হেলেনকে শেখায় যে বস্তুর নাম রয়েছে এবং তারপরে কীভাবে তার আঙ্গুলগুলি বানান তা ব্যবহার করতে হয়। অবশেষে, হেলেন সাংকেতিক ভাষার মাধ্যমে যোগাযোগ করতে, ব্রেইলে পড়তে এবং লিখতে, স্পর্শে-ঠোঁটে পড়তে, এবং কথা বলতে শিখেন।  বোস্টন এবং নিউইয়র্কের স্কুলে পড়া শেষে, হেলেন র‌্যাডক্লিফ কলেজ থেকে ১৯০০ সালে ম্যাট্রিক পাস করেন । হেলেনের প্রথম বই, “দি স্টোরি অব মাই লাইফ” নামে একটি আত্মজীবনী ১৯০৩ সালে প্রকাশিত হয়েছিল। তিনি মোট ১২টি বই রচনা করেন।
প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য ১৯১৫ সালে একটি প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, যা পরবর্তীকালে হেলেন কেলার ইন্টারন্যাশনাল নামে পরিচিত লাভ করে। সময়ের সাথে সাথে মিশনটি অন্ধত্ব, দুর্বল স্বাস্থ্য এবং অপুষ্টিজনিত কারণ এবং পরিণতির সাথে লড়াই করার জন্যে বিখ্যাত হয়।
১৯২৪ সালে হেলেন অন্ধদের জন্য আমেরিকান ফাউন্ডেশনে যোগদান করেন। তিনি তার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ফাউন্ডেশনের মুখপাত্র এবং রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন করছেন।
এরপর ১৯৬১ সালে হেলেন স্ট্রোকের শিকার হন এবং জনজীবন থেকে অবসর গ্রহণ করেন।
আমেরিকার তৎকালীন রাষ্ট্রপতি লিন্ডন জনসন ১৯৬৪ সালে তাকে রাষ্ট্রপতি পদক প্রদান করেন।
১৯৬৮সালের ১লা জুন, হেলেন কানেকটিকাটে তার নিজের বাড়িতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।
উল্লেখযোগ্য তিনি কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের একজন অনুরাগী ছিলেন।১৯৩৬ সালে নিউইয়র্কে
কবিগুরুর সাথে সাক্ষাৎ করেন।