আকবর দ্যা গ্রেট (প্রকৃত ইতিহাস) : [দ্বাদশ পর্ব]
(শেয়ার অবশ্যই করবেন)

আকবর এবং ইসলামঃ
পূর্বের পর…
…তবে এই একথা সত্য যে আকবরকে অনেকে অনুরোধ করেছিল এই জিজিয়া ব্যাবস্থা তুলে নেবার জন্য।…এবং রাজনৈতিক কারণে কিছু কিছু ক্ষেত্রে তা শিথিলও করা হয়।…কিন্তু সম্পূর্ন রদ করার সাহস তিনি কোনদিনও করেননি কারণ তার সহি ইসলামকে সঠিক জায়গায় রাখতে হবে না !!!
আকবর ও তাহার পুত্রঃ
…যে সকল মুসলিম শাসকেরা ভারত বর্ষ শাসন করেছে তাদের মাঝে পিতার সাথে বিদ্রোহ করার একটা বড় ধরনের অটুট প্রথা প্রচলিত ছিল।…হুমায়ুনের প্রতি বাবরের ছিল চরম অনাস্থা ও বিদ্বেষ।…তেমনি আকবর ছিলেন জাহাঙ্গীরের কাছে, জাহাঙ্গীর ছিলেন শাহাজাহানের কাছে , শাহাজাহান ছিলেন আওরঙ্গজেবের কাছে।…জাহাঙ্গীর তথা সেলিম ১৬০২ সালে নিজেকে শাসক হিসেবে ঘোষণা করেন এবং এলাহাবাদে তার নিজস্ব রাজ দরবার স্থাপন করেন।
…প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে , তার কয়েক বছর আগেই আকবর তার জিহাদি কার্যক্রমের অংশ হিসেবে হিন্দুদের অবজ্ঞা ও অপমান করে এবং মুসলিমদের বোকা বানিয়ে প্রয়াগরাজ নাম পরিবর্তন করে এলাহাবাদে নামকরণ করেন।
…জাহাঙ্গীর পিতার মৃত্যুর জন্য প্রার্থণা করতেন এবং এমনকি নিজের মুদ্রা নীতিও চালু করেছিলেন।…ঐতিহাসিক স্মিথ বলেছেন যে, জাহাঙ্গীরের (1601-1604) এই বিদ্রোহ সফল হলে সে তার পিতা আকবরকে হত্যা করত।…সে তার পিতাকে হত্যা করার সুবর্ণ সুযোগটি হারায়, কিন্তু তার নাতি আওরঙ্গজেব তার স্বপ্ন পুরণ করে।…যদিও ইতিহাসবিদদের কেউ কেউ মনে করে জাহাঙ্গীরই বিষ খাইয়ে তার পিতা আকবরকে হত্যা করে।
…এই জাহাঙ্গীর নিষ্ঠুরতা এবং হিন্দু নারী সম্ভোগের ক্ষেত্রে তার পিতা আকবরকেও পেছনে ফেলে দিয়েছিলেন।…জাহাঙ্গীর ১৬০২ খ্রিস্টাব্দে ‘আকবরনামা’র রচয়িতা ‘আবুল ফজলকে’ হত্যা করেন, এবং লিখে যান-“I employed the man Bir Singh Bundela who killed Abul Fazal and brought his head to me and for this it was that I incurred my father’s deep displeasure”।
…১৬০৬ সালে পঞ্চম শিখ গুরু ‘অর্জুন দেব’ কে শিখদের ইসলাম ধর্মের শিক্ষা দিতে বলেন।…গুরু অর্জুন তাতে অস্বীকার করলে ৫ দিন ধরে তাকে গরম বালি দিয়ে স্নান করানো হয়।…সারা গায়ে ঘা হয়ে পোকা ধরে গেছিল তার।…শেষে রাভি নদীতে তাকে ভাসিয়ে দেয়া হয়।
…জাহাঙ্গীরের নারী লোলুপতা ছিল সর্বজন বিদিত।…বলিউডের মুসলিম নায়ক দিলিপ কুমার ‘মুঘল-এ-আজম (আনারকলি সেলিম)’ সিনেমা বানিয়েও তাতে পর্দা চরাতে পারেন নি।
…১৩ই ফেব্রুয়ারী ১৫৮৫ সালে মাত্র ১৬ বছর বয়সে রাজা ভগবান দাসের পুত্রী রাজকুমারী “মন্ধবতী বাই” কে গণহত্যার ভয় দেখিয়ে নিজের যৌনদাসী বেগম বানান তিনি।
…তারপর একে একে সেই বছর-ই রাজপুত রাজকুমারী ‘জগৎ ঘোসাইন বেগম’ কে বিয়ে করেন।
…তারপর জুলাই ৭, ১৫৮৬ তে বিকানির এর মহারাজা রাজা রাই সিং এর পুত্রী ‘পদ্মাবতী বাই’,
…তার ৭ দিন পরে জুলাই ১৪, ১৫৮৬ তে কাশগরের সুলতান আবু সইদ খানের মেয়ে ‘মল্লিকা শিখর বেগম,
…তার তিন মাস পর ৫ই অক্টোবর, ১৬৮৬ তে আফগানিস্তানের হেরাতের সুলতান খ্বাজা হুসেইনের কন্যা ‘সাহিব ই জামাল বেগম’,
…১৫৮৭ তে জয়সলমীরের মহারাজা ভীম সিং এর কন্যে ‘মল্লিকা জাহান বেগম’,
…১৫৮৮তে তে রাজা দয়া মালব্যর কন্যা “আনারকলি বেগম”,
…অক্টোবর ১৫৯০ তে মির্জা সাঞ্জার হাজারার মেয়ে ‘জোহরা বেগম’,
…১৫৯১ তে মেরতিয়ার রাজা কেশও দাসের কন্যা ‘করমনাশী বেগম’,
…১১ই জানুয়ারি ১৫৯২ তে আলি শের খানের মেয়ে ‘কানোয়াল রানি’,
…সেবছরই অক্টোবর ১৫৯২ তে কাশ্মীরের রাজা হুসেন চাকের মেয়ে ‘শাহ বেগম’,
…মার্চ ১৫৯৩ তে ইব্রাহিম হুসেন মির্জার মেয়ে ‘নূর ইন নিসা বেগম’,
…সেবছরই সেপ্টেম্বর ১৫৯৩ তে খান্দেশের রাজা আলি খান ফারুকির মেয়ে ‘খান্দেশি বেগম’,
…এক মাস পর অক্টোবর ১৫৯৩ তে বালুচিস্তানের আবদুল্লা খান বালুচের মেয়ে ‘বালুচি বেগম’,
…জুন ২৮, ১৫৯৬ তে কাবুল এবং লাহোরের সুবেদার জাইন খান খোটার মেয়ে ‘খাস মহল বেগম’,
…ফেব্রুয়ারি ১৬০৮ সালে কোয়াসিম খানের মেয়ে ‘সালিহা বানু বেগম’,
…তিন মাস পর জুন ১৭, ১৬০৮ সালে আম্বেরের যুবরাজ জগত সিং এর মেয়ে ‘কোকা কুমারি বেগম’,
…মে ২৫, ১৬১১ তে জাহাঙ্গীর তার দেহরক্ষী ‘শের আফগান’ কে হত্যা করে তার কান্দাহারের অপরূপা পার্সি সুন্দরী বিধবা ‘মেহের উন নিসা’ বা ‘নুরজাহান’ বা ‘নূর মহল’ কে জোর করে হারেম খানায় না রাখতে পেরে বাধ্য হয়ে বিয়ে করেন।
…এরপর ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির হয়ে নীল বিক্রি করতে ফেব্রুয়ারী ১৬১১ সালে ৫ বছরের জন্যে লাহোরে আসা দুই ইংরাজ ব্যবসায়ী William Finch এবং Edward Terry-র লেখা থেকে জানতে পারা যার যে, ‘নুরজাহান’ জাহাঙ্গিরকে নানান ওষুধ খাইয়ে নপুংসক করে দেন বিয়ের ২-৩ বছর পর।…তা না হলে যে জাহাঙ্গীর তার পিতা আকবরের মতন আর কত মেয়ের সর্বনাশ করতেন কে জানে।
…এছাড়াও জাহাঙ্গীর আকবরের ৫০০০ এর বেশি সুন্দরী অভিজাত হিন্দু নারী দিয়ে ঠাসা মুঘল হারেম (বেশ্যাখানা) কে ১১০০০ এর বেশি জোর করে ধরে, বা গণহত্যার ভয় দেখিয়ে দখল করা হিন্দু নারী দ্বারা পরিপূর্ণ করেছিলেন।…জাহাঙ্গীরের মৃত্যুকালে মুঘল হারেমে যৌনদাসীর সংখ্যা ১২০০০ ছাড়িয়ে যায়। [“The Mughal World: India’s Tainted Paradise” Eraly, Abraham, Publisher: Phoenix, 2008 ] [“The Mughal Harem” K.S. Lal,Published by Aditya Prakashan, New Delhi, India, 1998]

(চলবে)

( – Writankar Das – )