পাকিস্তান বাংলাদেশের মুসলিম শাসন ভারতে হিন্দুত্ববাদকে জাগাতে বড় ভূমিকা রেখছে- এটা ভুলে গেলে চলবেনা।দেওবন্ধের হুজুররা সবাই মোনাজাত ধরেছে যাতে মোদী জিততে না পারে। ২৩ তারিখ পর্যন্ত দেওবন্ধ মাদ্রাসায় এই দোয়া চলবে। দোয়ায় কাজ করতে হলে আল্লাহকে যেটা করতে হবে ভারতের হিন্দুদের সেক্যুলারিজমে একনিষ্ঠ করে তুলতে হবে।

আল্লাহ কাফেরদের সেক্যুলার বানাবে আর মুসলমানদের শরীয়া রাষ্ট্রের জন্য জিহাদ করতে বলবে- এই স্ববিরোধীতা মুসলমানদের সমাজ ব্যক্তি ও রাষ্ট্রীয় জীবনে মূল হয়ে উঠছে। এই ভন্ডামীটি করতে স্বয়ং দেওবন্ধ মুরব্বীদের কারোই লজ্জা তো নেই বরং তারা বলছেন, এটি তাদের ধর্মীয় কর্তব্য। হযরত মাওলানা কাজী মু’তাসিম বিল্লাহ নিজেই মুসলিমদের সংখ্যালঘু থাকলে সেক্যুলার ও সংখ্যাগুরু হলেই শরীয়া দাবীর পক্ষে কথা বলতে গিয়ে বলেছিলেন, ‘মাওলানা মাহমুদ মাদানী মাদ্দা যিল্লুহুল আলীর সাথে এক হিন্দু পন্ডিতের বিতর্ক হয়েছিল। 

হিন্দু পন্ডিত প্রশ্ন করলো, তোমরা যখন সংখ্যালঘু থাক, তখন সেক্যুলারিজামের খুব বড় প্রবক্তা হয়ে যাও। দুর্বল অবস্থায় এই মতবাদের পক্ষ নাও। কিন্তু তোমরা সংখ্যাগরিষ্ঠ হলে ইসলামী খেলাফতের দাবী তোলো, কারণ কী? উত্তরে মাওলানা জিহাদ কাকে বলে বুঝাতে গিয়ে বললেন, আমি যে জিনিসকে হক মনে করছি সেটার দাওয়াত ও তাবলীগ আমি করে যাবো। আল্লাহও আমাকে এর হুকুম করেছেন। আমরা এর দাওয়াতকে উম্মতের খায়েরখাহী মনে করি এবং প্রতিবেশী ভাই ও বোনকে তাতে শরিক করে নেওয়া কল্যাণকর বলে বিশ্বাস করি। এখন এই করতে গেলে কেউ যদি আমার গলা টিপে ধরে, তাহলে আমিও শক্তি প্রয়োগ করে ঐ হাত সরিয়ে দিতে বাধ্য হবো’।
এই হচ্ছে পায়ে পা দিয়ে ঝগড়া করার শান্তিপূর্ণ প্রক্রিয়া! ভারত ভাগ হয়ে দুটো মুসলিম দেশ হয়েছিলো। এই দুটো দেশ সেক্যুলারিজমকে ঝেটিয়ে বিদায় করেছে কারণ সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানরা ধর্মনিরপক্ষেতাকে গ্রহণ করবে না। পাকিস্তান-বাংলাদেশে হিন্দু-খ্রিস্টান-বৌদ্ধসহ অমুসলিম পাহাড়ী জনগোষ্ঠি বিলুপ্ত এক প্রজাতিতে পরিণত হয়েছে। এরকমটা হয়েছে কারণ দেশ দুটি ইসলামিক ভাবধারায় ও চেতনায় নিজেকে দাঁড় করাতে গিয়ে রাষ্ট্রের সম নাগরিক অধিকারকে সচেতনভাবে লঙ্ঘন করেছে। বাংলাদেশ ও পাকিস্তানে এক সময় হিন্দু বলতে কিছু থাকবে না। 
এই প্রেক্ষিতে ভারতের গল্পটা আলাদা। এখানে ‘জুলফিকার’ সিনেমা কেটেছেটে নষ্ট করতে হয় মুসলমানদের অনুভূতির ভয়ে বা ভোটের ভয়ে। তসলিমা নাসরিনকে ভারতে শারীরিকভাবে হামলা চালিয়েছে মুসলমানরাই। পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত প্রগতিশীল পার্টিই মুসলিম বাঙালী-অবাঙালীকে একই ‘জাতি’ হিসেবে ধরে তাদের পক্ষে আছে। জনসংখ্যার দিক দিয়ে ভারতে মুসলিমদের সংখ্যা ৪৭ সালের পর বৃদ্ধি পেয়েছে। উল্টো ভারতবর্ষের যে অংশটুকু ‘মুসলিম’ হিসেবে ভাগ হয়েছিলো সেখানে অমুসলিম ভারতীয়দের জায়গা হয়নি। ৬৫, ৯০ সালের দাঙ্গা পূর্ব পাকিস্তান থেকে অবশিষ্ঠ হিন্দুদের পালাতে হয়েছিলো ভারতে। 
৪৭ সালে দেশভাগে হিন্দুরা সর্বস্ব হারালেও ৭১ সালে পূর্ব পাকিস্তানের মুসলমানদের স্বাধীনতা সংগ্রামে বুক দিয়ে তাদের আশ্রয় দিয়েছিলো। যারা একদিন যাদের জন্য নিজ দেশ হারিয়েছিলো তাদেরই বুকে টেনে নেয়ার ইতিহাস পৃথিবীতে বিরল। কিন্তু সেই ভারতের হিন্দুরাই কেন প্রবলভাবে মোদির ভক্ত হয়ে উঠছে? কেন তারা হিন্দুত্ববাদে আকৃষ্ট হচ্ছে? পরিস্কারভাবে বললে তারা কেন মুসলিম বিরোধী হয়ে উঠছে?
এর একমাত্র কারণ মুসলিমদের রাজনৈতিক বিশ্বাস। কোন হিন্দু কি চাইবে মনুর আইনে ভারত শাসিত হোক? এসব জিনিস শিবসেনা, বজরং কি স্বয়ং মোদি চাইলেও হিন্দুরা মেনে নিবে না। হিন্দুরা ‘হিন্দু’ পরিচয়ে একটা জাতি হতে চাইছে যেমনটা মুসলিমরা ভারত জুড়ে এক ধরণের শক্তি তৈরি করতে পেরেছে।  রাম, শিব, কালি, হনুমানে বিভক্ত হিন্দুরা কোনদিন হিন্দু বলতে কোন উম্মাহ হিসেবে একত্র অনুভব করেনি। তার উপর ১৯ শতকে কোলকাতা কেন্দ্রিক রেনেসার প্রভাব সারা ভারতে পড়েছিলো।
ভারত ১৯৪৭ সালে সেক্যুলার রাষ্ট্র হিসেবে স্বাধীন হয়েছিলো। পাকিস্তান বাংলাদেশ ঘোষণা দিয়ে নিজেদের মুসলমান বলে পরিচয় দিয়েছে। ভারতে মুসলিমদের বিচ্ছিন্নতাবাদী মনোভাব, ভারতের কোন কোন অংশকে কেটে মুসলিম স্ট্রেট বানানোর প্রচেষ্টা হিন্দুদের ভীত করে তুলেছে। সত্যিকার অর্থে ভারতীয় হিন্দুরা মুসলিমদের আর আস্থায় নিতে পারছে না। বিধায় কোন রকম ধর্মকর্ম না করা হাজার হাজার হিন্দু আজ ‘হিন্দুত্ববাদীদের’ বেছে নিয়েছে। 
রাহুল, মমতা, কমিউনিস্টদের কথায় কোন আশা তারা দেখতে পায় না। সেক্যুলারিজম যাদের হাতে তারা মিনি পাকিস্তান ভারতের মধ্যে হতে দেখলেও যখন উদাসিন থাকে তখন সাধারণ হিন্দুরা তাদের আস্থায় নিতে পারে না। এখানেই মোদীর জয়। ইউরোপের লিবারালদের ভুল থেকে যেমন ডানপন্থিদের জনসমর্থন বৃদ্ধি পাচ্ছে তেমন ভারতে হিন্দুত্বাদীরা। মোদি ফের ক্ষমতায় আসলে মুসলিমদের ভীত হবার কি আছে? 
কাস্মিরে মুসলিম স্ট্রেট বানানোর সমর্থন করেছেন? পাকিস্তানে হিন্দু খেদালে আনন্দিত হয়েছেন? বাংলাদেশে মুসলিম মৌলবাদের উত্থানে হাততালি দিযেছেন? তুরস্কের এরদোয়ানকে নিজেদের প্রেসিডেন্ট জ্ঞান করেছেন? আইএসকে সমর্থন করেছেন?… এবার ভাবছেন হিন্দুত্ববাদী মোদী আসলে এসব জেনেও কি পিঠের চামড়া আস্ত রাখবে? মমতা কিংবা রাহুল এসব দেখেও দেখবে না?…
ভারতীয় মুসলিম সমাজ এখনো সময় আছে নিজেদের আত্মসমালোচনা করতে শুরু করুন। বাংলাদেশ পাকিস্তানে সেক্যুলার শাসনের পক্ষে কথা বলুন। 
এরদোয়ানের মুসলিম জাতীয়তাবাদ আপনাদের রক্ষা করবে না। মোনাজাত ধরে আল্লাহ সাহায্য যদি মিলত তাহলে মুহাম্মদ তলোয়ার হাতে ইসলাম কায়েম করতে গিয়ে দাঁত ভাঙ্গত না। ভারতে যদি নিজেদের সেক্যুলার শাসনে নিরাপদ মনে করেন তাহলে পাকিস্তান বাংলাদেশে সেক্যুলার শাসনের পক্ষে কথা বলুন। হিন্দু নিপীড়নের বিপক্ষে শক্ত অবস্থান নিন। বিগত ৫০ বছরে পাকিস্তান বাংলাদেশের মুসলিম শাসনও ভারতে হিন্দুত্ববাদকে জাগাতে বড় ভূমিকা রেখে- এটা ভুলে যাবেন না।