“হিন্দু আতঙ্কবাদ”

সামনে গুজরাট ও হিমাচলপ্রদেশের ভোট তাই নরেন্দ্র মোদীকে হারাতে নতুন করে দেশকে অসহিষ্ণু করার পরিকল্পনা করছে সেকুলার রাজনৈতিক নেতা, ভন্ড অভিনেতা-অভিনেত্রী, বুদ্ধিজীবী ও পুরস্কার ফেরত গ্যাংরা ।

কমল হাসান নাকি হিন্দু আতঙ্কবাদ নিয়ে খুব চিন্তিত, অথচ এই কমল হাসান-আমির খানদের মত অভিনেতারা ইসলামিক আতঙ্কবাদ দ্বারা ২৬/১১ মুম্বই হামলা, পাঠানকোট হামলা, দাউদের বোমা হামলার সময় মুখে কন্ডোম এঁটে বসে থাকেন ।
কই তখন তো কমল হাসান-আমির খানরা ইসলামিক আতঙ্কবাদ নিয়ে চিন্তিত হয় না?
কই তখন তো আমির খানের স্ত্রী দেশ ত্যাগের কথা বলে না?
আসলে যতই হোক একই ধর্মের মানুষ বলে কথা, জিহাদের মত ধার্মিক কাজের বিরোধীতা করলে মহান মানুষটি গোঁসা করবেন তাই জিহাদীদের বিরুদ্ধে একটাও কথা খরচ উনারা করেন না ।

সারা বিশ্বের বুকে ইসলামিক আতঙ্কবাদীরা থাবা বসিয়ে যাচ্ছে, “আল্লা হু আকবর” ধ্বনি দিয়ে প্রকাশ্যে মানুষকে হত্যা করছে অথচ আমাদের দেশের শান্তির ধর্মের মানুষদের কে বাপের জন্মেও দেখলাম না প্রতিবাদ করতে অথচ
মায়ানমারের বৌদ্ধরা রোহিঙ্গাদের কিছু করলে, ভারতবর্ষের হিন্দুরা জয় শ্রী রাম ধ্বনি দিলে এরা পথে নেমে প্রতিবাদ করে ।

ভারতবর্ষের বুকে হিন্দু আতঙ্কবাদীরা কত মানুষকে হত্যা করেছে একটু বলবেন?
হিন্দু আতঙ্কবাদীরা কটা বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে একটু বলবেন?

ভারতবর্ষের মাটিতে বাস করে যারা পাকিস্তানের হয়ে লড়াই করেন, দাউদ ইব্রাহিম হয়ে নিরীহ মানুষদের হত্যা করেন, ইয়াকুব মেমন হয়ে মানুষ হত্যা করেন, আফজল গুরু হয়ে সংসদ হামলা করেন অথচ সেই আতঙ্কবাদীদের নাকি কোনো ধর্ম হয়না????

ফ্রান্স, নিউইয়র্ক, লন্ডন যেখানেই আতঙ্কবাদীরা হামলা করেছে সেখানেই “আল্লা হু আকবর” ধ্বনি দিয়েছে কই “জয় শ্রী রাম” ধ্বনি তো আর দেয় নি? তাহলে আপনারা কি করে বলেন যে আতঙ্কবাদীর কোনো ধর্ম হয়না?

দু একজন গেরুয়া তিলক কেটে জয় শ্রী রাম বলছে, কেউ তাজমহলে শিবস্ত্রোত পাঠ করছে তাতেই যদি হিন্দু আতঙ্কবাদ দেখতে পান আপনারা তাহলে হিন্দুরা যদি সত্যিই সত্যিই কট্টরপন্থী হয়ে যায় তাহলে আপনারা কি করবেন একটু বলবেন দয়া করে?

রাখালের বাঘের গল্পের মত বারবার এক কথা অনুগ্রহ করে বলবেন না,আপনাদের কথা যেদিন সত্যি হয়ে যাবে সেদিন টুপিওয়ালারাও জয় শ্রী রাম বলতে বাধ্য হবে মনে রাখবেন…..