Home Bangla Blog প্রশ্ন করেছিলেন সোশ্যাল মিডিয়ার এক উৎসাহী বন্ধু।

প্রশ্ন করেছিলেন সোশ্যাল মিডিয়ার এক উৎসাহী বন্ধু।

227

“… আচ্ছা, যদি কখনও এমন হয় যে, এই দেশে হিন্দুর জনসংখ্যা শতকরা পঞ্চাশ জনেরও নিচে নেমে আসে; ভারত’কে কি তখনও এমন সেকুলার ও বহুত্ববাদী সংস্কৃতির পীঠস্থান হিসাবে দেখতে পাওয়া যাবে …”?? – প্রশ্ন করেছিলেন সোশ্যাল মিডিয়ার এক উৎসাহী বন্ধু। 

“রাখুন মশাই! বহুত্ববাদ কিংবা বিশ্বজনীন মানবিকতা তো অনেক দূরের ব্যাপার, তেমনটি হলে এই দেশে আর সেকুলারিজমের-ও টিকিটুকু খুঁজে পাবেন কিনা তা কি  একবারও ভেবে দেখেছেন ….”??- উত্তর দিই আমি।        

– “কিন্তু কেন…”?

“ … এখনই এই কেন’র অন্তত হাজার’টা জবাব দেওয়া সম্ভব।….”- বলতে থাকি আমি। ১৯৪৭-এর কথাই ধরুন, সে বছরে আমাদের মাতৃভূমি’কে দ্বিখণ্ডিতা হতে হয়; কারন, … আমাদের ‘ভাইয়েরা’ সেদিন ‘কাফের’ হিন্দুদের সঙ্গে থাকতে অস্বীকৃত হয়েছিল। ১৪ দফা দাবী সম্বলিত যে নির্দেশপত্রটি সেদিন মুসলিম লীগের ক্যাডারদের মধ্যে প্রচার করা হয়েছিল, তার অন্যতম’টি কি ছিল? জানা আছে…??
– “প্রতিটি হিন্দু মহিলাকে যেন ধর্ষন করা হয়” !!… হ্যাঁ বন্ধু, তাই ছিল সেই চরম সত্য।   

মূলতঃ এই ভয়ানক নির্দেশটিকে মাথায় রেখেই ধর্মের নামে সেদিন ওই দু-পেয়ে জানোয়ারের দল দেশের সর্বত্র; বিশেষ করে অবিভক্ত ভারতের সীমান্তবর্তী প্রদেশগুলিতে সেসব নির্দেশিকা পালনে প্রচন্ড সক্রিয় হয়ে ওঠে। প্রকাশ্য দিবালোকে হিন্দু, শিখ এবং জৈন মহিলাদের উলঙ্গ মিছিলের দৃশ্য কামাতুর চোখে উপভোগ করে শান্তির দূতেরা। এমনকি আজও পর্যন্ত মাঝে-মধ্যেই পাকিস্তান, আফগানিস্তান, বাংলাদেশ বা মালয়েশিয়ার মত ইসলামপ্রধান দেশগুলিতে শিখ এবং হিন্দু মেয়েদের খোলা বাজারে বিক্রির খবর কানে আসে। বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ট ‘শান্তির ধর্মে’র অনুসারীরা যদিও এর মধ্যে কোন ত্রুটি আদৌ খুঁজে পান না। সর্বোপরি, গোদের উপর বিষফোঁড়ার মত প্রত্যেক শুক্রবারে তারা মূলত এই শিক্ষাই লাভ করেন যে, পছন্দসই গণিমত বা লুঠের মাল হিসেবে আটক করা বিধর্মী মেয়েদের ধর্ষন করাটাই যে তাদের জন্য দস্তুরমত বৈধ!

না, কাউকেই সেদিন বাদ দেওয়া হয়নি! … হিন্দু, শিখ, খ্রিষ্টান বা জৈন মেয়েরা সেদিন সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে আসার পথেও পাইকারিহারে বারংবার গণধর্ষীতা হয়েছেন সেদিনের সে পাকপন্থী নরপিশাচদের হাতে।

আর ভারত ভাগের পরে?
– অবাঞ্ছিত মাতৃত্ব এড়াতে আমাদের হাঁসপাতালগুলিতে দীর্ঘ লাইন পড়ে গেল গর্ভবতী মায়েদের …। একের পর এক চলল গর্ভপাতের পালা!                          
আর তা না হলে এমনি এমনি পাকিস্তান বা আফগানিস্তানের মত দেশগুলিতে হিন্দু জনসংখ্যা আজ ৩০শতাংশ থেকে কমে দাঁড়িয়েছে ০.০১শতাংশে, আর বাংলাদেশে সেই অঙ্কটা ৪৫ শতাংশ থেকে হ্রাস পেয়ে হয়েছে ৮ শতাংশে …??    

১৯৯০’এর প্রায় প্রতিদিনই কাশ্মীরের মাটিতে বকরী ঈদ পালিত হত,… পার্থক্য বলতে এক্ষেত্রে রাস্তা জুড়ে এদিকে ওদিকে পড়ে থাকত ধর্ষিতা বা কোরবানি হওয়া ‘কাফের’ হিন্দুদের প্রাণহীন দেহ আর তাদের ছিন্নভিন্ন যৌনাঙ্গ কিংবা কবন্ধ থেকে বেরিয়ে আসা রক্তস্রোত ধুয়ে দিত সেখানকার রাজপথ; – এই যা!

এই ‘শান্তিপ্রিয়’ জনগণ সেদিন কাশ্মীরের বুক থেকে সোল্লাসে উৎখাত করেছিল প্রায় ৩লক্ষ নিরীহ কাশ্মীরী হিন্দুকে, এবং এই বিতাড়ন পর্ব শুরু হয়েছিল ঠিক তখনই, যখন জনসংখ্যার নিরিখে সেখানকার ‘শান্তিপ্রিয়’ মানুষজন পৌঁছে গেছিলেন ৫০শতাংশ বা তারচেয়েও কিছু বেশিতে …।।        

হোক না সে সম্পূর্ন হিন্দু-অধ্যুষিত মন্দিরের চূড়া থেকে মাইক অপসারিত করবার দাবী, বা হোক সরকারী চাকরীতে তাদের সংরক্ষণের অধিকার নিয়ে সোচ্চার হওয়া, এমনকি হিন্দু করদাতাদের পরিশ্রমলব্ধ টাকায় হজের সাবসিডি আদায়; ইত্যাদি প্রতিটি ক্ষেত্রে এই ‘শান্তির দূতেরা’ ভারতের সংখ্যাগরিষ্ঠ হিন্দুকে গণহত্যার হুমকি দিতেও পিছুপা হয় না। এতেও কি রেহাই আছে? সরকারের কাছে এতকিছু পাবার পরেও তাদের পেট আর কিছুতেই ভরে না; ভরে না মন; অতএব দিনকে-দিন নিত্যনতুন বাহানা উঠতে থাকে। খুব সংক্ষেপে আজ এই সম্প্রদায়কে ভারতের ভি আই পি বললেও যেন কিছুটা কমই বলা হয়। ভাবতেও বড়ই তাজ্জব লাগে যে, ভারতের সবকিছুতে এদের স্বাভাবিক অধিকার থাকা সত্ত্বেও এই দেশের জাতীয়সঙ্গী’তে এদের আপত্তি, পাশাপাশি আমাদের গর্বের তেরঙ্গা’কে অভিবাদন জানাতেও তারা অতিশয় কুন্ঠিত; কারন এসকলই-যে তাদের ধর্মবিরুদ্ধ!

এবারে চলুন, প্রতিবেশ দেশ পাকিস্তানের দিকে একটু চোখ ফেরানো যাক। সেখানে আবার, সংখ্যালঘূর অধিকার, ধর্মনিরপেক্ষতা, সহিষ্ণুতা …?? হা হা হা !!

তবে হ্যাঁ, এটাও ঠিক; পাকিস্তানের হিন্দুদেরও যে এই সব অধিকার দাবী করতে ইচ্ছে করে না, তা কিন্তু সঠিক নয়। তাদেরও বেশ কিছু চাহিদা অবশ্যই রয়েছে। ওহ! না না, অনেক কিছু নয়, আপাতত স্রেফ… একটা-ই স্বপ্ন, – সেটা কি জানেন?
ধর্ষনকারীরা তাদের মেয়েদের ঘরে যেন একসাথে না ঢোকে। তারা সেখানে প্রবেশ করে করুক, কিন্তু এক-এক করে!! হ্যাঁ বন্ধুরা, শান্তির আলয় পাকিস্তানের মত দেশগুলির বুকে ঠিক এই প্রার্থনাই সর্বান্তকরণে অনুরণিত হয় এক সদ্যজাত কন্যার মাতৃহৃদয়ে …!!

অবাক হচ্ছেন…??

না, এতে অবাক হবার কিছুই নেই, বরং এটাই তাদের অবশ্যম্ভাবী ভবিতব্য যে কাশ্মীর বা পাকিস্তানের মত শান্তির ধর্ম অধ্যুষিত এলাকাগুলিতে হিন্দু মেয়েদের আজন্ম গণধর্ষিতা হতে-ই হবে। ঝরে যাবে কতশত নিষ্পাপ ফুলের কুঁড়ি। আর তাই হয়তো  বারবার সেইসব  হতভাগ্য মেয়েদের জীবন বাঁচাতে… তাদের অসহায় মা-বাপকে ধর্ষকদের পায়ে পড়ে আকুতি করতে হবে; “ আমাদের মেয়েটা ছোট,.. তোমরা একজন একজন করে যাও”! – যাতে সে ধর্ষনের পরেও কোনমতে অন্তত বেঁচে থাকতে পারে…!!         

হতভাগা ‘অচ্ছুৎ’ এই হিন্দু ‘কাফের’গুলোর এই দাবিটাও বড্ড বেশি বাড়াবাড়ি নয় কি…?

– আপনারা কি বলেন বন্ধুরা …??   

Question asked by a Quoran- Will India remain a pluralist & secular if the proportion of Hindus falls below say 50%?
My answer-
Grow up, buddy. India will never ever remain a secular country in that case……forget about cosmopolitanism or pluralism.
Why?
Well, there are numerous examples which can be cited…..let’s start with 1947, the year which saw our country getting bifurcated because our ‘brothers’ decided against living with ‘kafir’ Hindus. Muslim League issued 14 orders to its cadres. Do you know what the first point of those 14 orders was?
Well, it was- ALL HINDU WOMEN SHOULD BE RAPED.
The two- footed animals religiously followed all orders in general and this order in particular throughout the country, especially in the bordering states of the undivided India. Hindu, Sikh and Jain women were paraded nakedly in broad daylight while the followers of the most peaceful religion kept enjoying themselves. Even now, Hindu and Sikh women are sold in open markets in countries like pakistan, afghanistan, bangladesh, malaysia etc. The most peaceful people of this world find all these activities perfectly alright…..after all, every Friday they are taught that all women who do not belong to their community, are ganimaat/loot ka maal who can very well be raped by the ‘chosen’ people. Hindu, Sikh, Jain and Christian women were subjected to repeated gangrapes while they were on their way to India. Post partition, almost all the hospitals of India had to conduct back to back abortions.
The Hindu population has got reduced from nearly 30% to 0.01% now in Pakistan and Afganistan as well as from 45% to 8% at Bangladesh.

In Kashmir, Bakri Eid was celebrated almost everyday in the year 1990….the only difference with the usual celebration of this festival was, the roads of Kashmir were filled with the blood emanating out from the slaughtered necks and heads of the ‘kafir’ Hindu men and the genital organs of the raped Kashmiri Hindu Panditas. The ‘peaceful’ people of Kashmir jubilantly celebrated the ethnic cleansing of nearly 3 lakh Kashmiri Hindus. This process of ethnic cleansing starts as soon as the peaceful people of this world attains a population of 50% or above.
In India, these ‘peaceful’ people can threaten the mass murder of Hindus for every single reason (while demanding the removal of loudspeakers from temples even in Hindu majority areas or while demanding the reservation for them in govt. jobs) and even then they are provided with pilgrimage subsidy from the money of Hindu taxpayers. Well , even these acts of the Govt. of India do not satisfy them and they come up with new bahanas/ demand every single day. In short, this community is the V.I.P. community of India.This community has the right to squeeze the resources of India but is not ready to sing the national song/anthem of our country or salute the national flag of India. According to them. all these things are against of their religious ethos.
Now, let’s look at Pakistan. Minority rights, Secularism, Tolerance?……….Hahaha. Well, it is not that the Hindus of pakistan have no aspiration or demand at all.
They too have demands….sorry, not demands but demand, only 1 (as of now).
The Hindu women of porkistan always appeal to the pakistani govt. make sure that their newborn daughters are raped ONE BY ONE.
SHOCKED?
Actually, in Kashmir, pakistan and other such areas the peaceful people never ever fail to GANGRAPE a newborn Hindu girl and as a result of that, the baby girl dies instantly. Therefore the Hindus always appeal to the most peaceful people of porkistan to rape their newborn daughters one by one so that they may survive even after getting raped.
But I think that the ‘dirty’ and ‘kafir’ Hindus are demanding too much……………
What do u say?

http://www.hindustantimes.com/world-news/modern-slaves-in-south-pakistan-girls-are-snatched-away-for-debt-payment/story-B9gZgDucV3ynpTjpXzSHdO.html

http://timesofindia.indiatimes.com/world/pakistan/they-always-choose-the-prettiest-how-girls-are-enslaved-for-debt-payment-in-pakistan/articleshow/56137395.cms

http://indiatoday.intoday.in/story/hindu-women-in-pakistan-exploited-due-to-absence-of-marriage-act/1/460534.html

সৌজন্যেঃ শ্রী Dibyendu Saha
অনুলিখনঃ শ্রী নিহারণ প্রহারণ

%d bloggers like this: