শুধু শুধু শান্তির পেছনে লাগে !
————————————–
ভারতে হিন্দুত্ববাদী শক্তির উত্থানে বিশ্ব ভয়ে থর থর করে কাঁপছে ! কাঁপুনি লেগেছে প্রতিবেশী শান্তির পায়রাদের দেশ পাকিস্তান বাংলাদেশেও । শালা বিধর্মীর দেশ ভারতে গোমাতার পূজারীরা প্রায় সকল শক্তি দখল করে নিয়ে রাষ্ঠ্রের মাথায় চড়ে নৃত্য করছে । মুসলমান বিদ্বেষীরা আসামে ‘এন আর সি’র নামে ৪০ লক্ষ বাঙালি(বাঙালি মুসলমান) বিতরণ করবে । খাইসে রে ! বাংলাদেশে আইসা ভীড় বাড়াইলে তো সমস্যা । এই গোমাতার সন্তানেরা সব সময় মুসলমানের পেছনে লাগে । আমরা মুসলমানরা সক্কল সময়ে শান্তির বাণী ছড়িয়ে দিয়ে এই উপমহাদেশে বিস্তার লাভ করেছি, বংশ বৃদ্ধি করে বসবাস করছি , এটা এই শালা গোমাতার সন্তানদের সহ্য হয় না । আর ওই শালা ইন্ডিয়ার সেনাপ্রধান, শালা মুসলমান বিদ্বেষী, বলে কিনা আসামের ৯ জেলায় মুসলমান জনসংখ্যা বৃদ্ধির পেছনে বাংলাদেশ থেকে মুসলমানের অনুপ্রবেশ দায়ী ! শালারে আমরা কি শান্তিতে, সহমর্মিতার সঙ্গে তোদের সাথে সেই যুগ যুগ ধরে বাস করছি, তোরা জানিস না । এই উপমহাদেশে আমাদের ইসলামের অপার শান্তির মহিমার কিছু নিদর্শন তোদের সামনে তুলে ধরি :

➤২০০৬ সালে মার্চে বারানসীতে বোমা বিস্ফোরণ প্রাণ নেয় ২৮ জন হিন্দুর । সঙ্কটমোচন হনুমান মন্দিরে পূজারত, প্রার্থনায় ব্যস্ত ২০১ জন হিন্দু আহতও হয়েছিল আমাদের শান্তিপূর্ণ ক্রিয়াকর্মে । আমাদের পূর্বপুরুষেরা একইভাবে, একই কায়দায় সোমনাথ মন্দিরে হিন্দু হত্যা করেছিল, অন্যান্য মন্দিরগুলিতেও করেছিল, আমরা কেবল সেই ট্র্যাডিশন বজায় রেখে চলেছি । তফাতের মধ্যে আগে শুধু ব্যবহার করতাম তরবারী, আর এখন করি বন্দুক আর বোমা । এটাই কি আমাদের দোষ ?

➤২০০৬ সালের এপ্রিলে জম্মু ও কাশ্মীরের ডোডাতে আরও একটা ছোট্ট গণহত্যা করে ৩৫ জন নিরীহ হিন্দুকে মেরেছিলাম । খুব বেশি দোষ করেছি কি আমরা ?

➤২০০৮-এর ২৬শে নভেম্বর মুম্বইয়ে আমরা মাত্র ১৬৪ জন অ-মুসলিমদের হত্যা করেছিলাম আর আহত করেছিলাম ৬০০-র একটু বেশি । ১১ জন ইসরায়েলি ইহুদীদের হত্যা করার আগে ওদেরকে আমরা ব্লেড দিয়ে যৌনাঙ্গ চিরে দিয়েছিলাম । আমাদের লুটেরা ও খুনী পূর্বপুরুষদের ঐতিহ্য ধরে রাখা সুন্নত, আর তোরা আমাদের এসবের জন্য সকল সময় গালি গালাজ করিস । শালারা সাম্প্রদায়িক !

➤২০১২-তে আসামে কংগ্রেস সরকারের প্রশ্রয় পেয়ে আমরা বাংলাদেশী স্বধর্মীয় ভাই বেরাদার নুপ্রবেশকারীদের ঢুকিয়ে জুলাই মাসে আসামের বোড়ো, খ্ৰীষ্টান ও হিন্দুদের ৭৭ জনকে খুন করেছিলাম । এত্ত বড় প্রদেশ আসাম, এত্ত লোক, ৭৭ জন খুনে কি এসে যায় তোদের শালা গোমাতার বাচ্চারা !

➤২০১৩-য় উত্তরপ্রদেশের মুজফফরনগরে একটা হিন্দু মেয়েকে একটু ইন্টু সিন্টু করেছিলাম আমরা, শালা কত সাহস, সেই মেয়ের ভাই প্রতিবাদ করতে এসেছিল ! শালাকে দিয়েছি জবাই করে ! তারপর দাঙ্গা বাধিয়ে সালের ২৫শে আগষ্ট থেকে ১৭ই সেপ্টেম্বরের মধ্যে ২০ টা হিন্দুকে গুনে গুনে মেরেছি ! ৯৩টা পালিয়ে বেঁচেছিল ! অখিলেশ যাদবের সমাজবাদী পার্টির সরকার নির্দেশ দিলো যে, সরকারী হাসপাতালে চিকিৎসা হবে শুধু দাঙ্গাপীড়িত মুসলিমদেরই হিন্দুর সেখানে ‘NO ENTRY’ । দেখ, দেখে শেখ আমাদের থেকে, কি করে সেকুলারিজম আদায় করে নিতে হয় !

এখন শালা গোমাতার সন্তানরা আসাম থেকে বাঙালি খেঁদাবি না আমাদের বাঙালি ভাই বেরাদারদের খেঁদাবি ‘এন আর সি’ র নাটক করে ? তোরা জানিস সেই কত বছর আগে থেকে আমাদের ধম্মের ভাই বেরাদাররা কষ্ট করে বর্ডার পেরিয়ে আসামে এসেছে দুটো করে খেতে, আর তোরা শালা আজকে আমাদের তাড়াবি ?

যেই হিন্দুগুলা বাংলাদেশে আমাদের ভাই বেরাদারের মাইর খায়া আসামে পালায়া আসছে, সেগুলারে খেঁদা, আমাদের কেন ? শুধু শুধু শান্তির পেছনে লাগে !