Thursday, September 23, 2021
Home Bangla Blog আচ্ছা, আপনাদের ধনঞ্জয়ের কথা মনে পড়ে? .. ধনঞ্জয় চট্টোপাধ্যায় ...??

আচ্ছা, আপনাদের ধনঞ্জয়ের কথা মনে পড়ে? .. ধনঞ্জয় চট্টোপাধ্যায় …??

আজ ১৪ই আগস্ট …

একটি বিশেষ দিন। … না, মশাই আমার বলার বক্তব্য এই নয় যে, আজ পাকিস্থানের জন্মদিন .., বা আজ ১৫ই আগস্টের … অর্থাৎ আমাদের স্বাধীনতা (মতান্তরে ঐস্লামিক অধীনতা) দিবসের ঠিক আগের দিন … ।।

আচ্ছা, আপনাদের ধনঞ্জয়ের কথা মনে পড়ে? .. ধনঞ্জয় চট্টোপাধ্যায় …??

২০০৪-এর স্বাধীনতা দিবসে কলকাতা-সহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রকাশিত একাধিক প্রভাতী  সংবাদপত্রের প্রথম পৃষ্ঠায় শীর্ষ-সংবাদটি ছিল অভিন্ন৷ মহানগরের অষ্টাদশী এক ছাত্রী হেতাল পারেখকে খুন ও ধর্ষণে অভিযুক্ত ধনঞ্জয় চট্টোপাধ্যায়ের ফাঁসি হয়েছিল তার আগের দিন ভোরে৷ এই দণ্ডাদেশ ঘিরে বিতর্ক চলেছে অবশ্য তারও বেশ কিছু দিন আগে থেকেই৷ ১৯৯০-এর ৫ মার্চ পদ্মপুকুর এলাকার এক অ্যাপার্টমেন্টের তিন তলার ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার হয়েছিল ২১টি গুরুতর আঘাতের চিহ্ন-সহ হেতালের রক্তাক্ত লাশ৷ ঘটনার পরের কয়েক দিন জুড়েও মিডিয়ায় চলেছিল তুমুল চর্চা৷ দু’মাস পর, ১২ মে বাঁকুড়ার কুলুডিহি গ্রামের বাড়ি থেকে অভিযুক্ত ধনঞ্জয়ের গ্রেপ্তারি ফের তরঙ্গ তুলেছিল৷ তার পর সময়ের সঙ্গেই থিতিয়ে গিয়েছিল চর্চা-আলোচনা৷ চোদ্দো বছর পর ধনঞ্জয়ের ফাঁসির দিন ঘোষণা হতেই বিতর্ক পৌঁছয় অন্য মাত্রায়৷ মৃত্যুদণ্ডের বৈধতা নিয়ে জন-পরিসরে যুক্তি, পাল্টা যুক্তির অভূতপূর্ব বিস্ফোরণের সাক্ষী হয়েছিল এই দেশ৷ সুপ্রিম কোর্ট এবং রাষ্ট্রপতি-রাজ্যপালের কাছে ক্ষমাভিক্ষার শেষ চেষ্টায় ফাঁসির দিন এক দফা পিছিয়েও যায়৷ শেষ পর্যন্ত অবশ্য নিম্ন আদালতের মৃত্যুদণ্ডের আদেশই বহাল থাকে৷

অবশেষে … ২০০৪-এর ১৪ অগস্ট কাকভোরে আলিপুর জেলে ফাঁসি হয়ে যায় বছর চল্লিশের ধনঞ্জয়ের৷

সে রাতে এই মহানগরীর অনেকেই দু চোখের পাতা এক করতে পারেন নি,  …. আমার কিশোর মনও সেদিন…. না জানি কোন এক অজানা শোকে ভীষণ ভারাক্রান্ত হয়ে পড়েছিল। কত মানুষ কেঁদেছিলেন, .. আলিপুর সেন্ট্রাল জেলের সামনে… বেশ কিছু কিশোর কিশোরী মোমবাতি জ্বালিয়ে বিমর্ষ রাত্রি যাপন করেছিলেন … । না …তবুও  কিছুতেই কিছু হয় নি।

সেই .. ফাঁসুড়ে নাটা মল্লিক … !! – জনসমক্ষে তার হিরো হয়ে ওঠার কাহিনী….. ।

কি … এবার কিছু মনে পড়ছে??

ফাঁসির আগে তৎকালীন কারাকর্তার কাছে ধনঞ্জয় চট্টোপাধ্যায়ের শেষ আর্জি ছিল, ‘আপনি বড় অফিসার৷ দেখবেন, যে কোনও অভিযোগের তদন্ত যেন ঠিকঠাক হয়৷’
ধনঞ্জয় স্বল্পশিক্ষিত৷ এক দশক আগে তিনি যে কথাটা বলেছিলেন, আজ অনেকটা সেই সুরেই বলছেন ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিসটিক্যাল ইনস্টিটিউটের (আইএসআই) ফলিত রাশিবিজ্ঞান বিভাগের এক দল অধ্যাপক৷ মামলার কাগজপত্র খুঁটিয়ে দেখে, সাক্ষীদের বয়ান এবং কলকাতা পুলিশের তরফে বিচার-পর্বে পেশ করা মেটিরিয়াল এভিডেন্স বিশ্লেষণ করে অধ্যাপক দেবাশিস সেনগুন্ত, প্রবাল চৌধুরীরা দেখিয়েছেন, ধনঞ্জয়কে দোষী সাব্যস্ত করার মতো সংশয়াতীত কোনও প্রমাণই হাজির করা যায়নি আদালতে৷ বরং হেতাল পারেখ হত্যার পিছনে ‘অনার কিলিং’-এর ইঙ্গিতই দিচ্ছে তাঁদের গবেষণা।

আপনাদের নিশ্চয়ই মনে আছে, এই ফাঁসির ব্যাপারে সবচেয়ে বেশি তদ্বির করেছিলেন, তৎকালীন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী শ্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য্য এবং তার স্ত্রী কমরেড মীরা ভট্টাচার্য্য ও তাদের কন্যা .. সুচেতনা।
অর্থাৎ পুরো ভট্টাচার্য্য পরিবার আলিমুদ্দিন স্ট্রীট সহ সমগ্র রাজশক্তিকে নিয়ে পথে নেমে এসেছিলেন .. এক সহায়সম্বল হীন দরিদ্র হিন্দুকে ফাঁসিতে লটকাবার বাসনায়।
তাদের সে প্রচেষ্টা ব্যার্থ হয়নি… । ধনঞ্জয়ের ফাঁসি হয়েছিল।
দেশবিরোধী কি কোন কাজ করেছিল সে? যদি কোন অপরাধ সে করে থাকে, (?) তা হল একটি জঘন্য ধর্ষণ কান্ড ঘটিয়েছিল সে। তাহলে… ধানতলা কাণ্ডে মুসলমান জেহাদিদের দ্বারা প্রথমে ধর্ষিতা ও পরে নৃশংস ভাবে নিহত হওয়া অনিতা দেওয়ান সহ তিন তিনজন হিন্দু মহিলা মেডিক্যাল অফিসার সহ তাদের হিন্দু ড্রাইভারের  সেই পৈশাচিক হত্যার ঘটনার সাফাই দেওয়া জ্যোতি বাবুর কথাতেই তো বলা যায় .. “এ রকম ঘটনা তো কতই ঘটে”। সেক্ষেত্রে অপরাধীরা মুসলমান হওয়ায় তাদের ছাড় মেলে..। অথচ গরীব বলে টাকা না থাকার কারণে প্রয়োজনীয় উকিল নিয়োগ করে কেস লড়তে না পারা … হিন্দু ধনঞ্জয়ের গলায় ফাঁসির দড়ি লাগাতে এদের এক মুহুর্তও দেরি হয় না!
যাই হোক.. এ তো গেল তখনকার কথা। এই বার … আসি আসল প্রশ্নে….
এ হেন বামেরা সাম্প্রতিক ফাঁসি হওয়া ইয়াকুব মেমনের ক্ষেত্রে কি অবস্থান নিল? …
সিপিএমের ডেঁপো নেতা সীতারাম ইয়েচুরি তো ইয়াকুবের ফাঁসির বিরোধিতায় সরব হয়ে স্পষ্ট বলেছেন যে, সে প্রহসনের বিচার প্রক্রিয়ার বলি হল।
অর্থাৎ একটি ধর্ষণ ও হত্যা কান্ডে অভিযুক্ত ধনঞ্জয়কে  দোষী সব্যস্ত করে ফাঁসিতে ঝোলানো যায়, কিন্তু ইয়াকুব তো প্রায় তিনশত মানুষের জঘন্যতম হত্যাকারীদের মধ্যে একজন। তার জন্য ইয়েচুরি-বৃন্দা সহ অপরাপর বামপন্থীদের এত দৌত্য কেন? … ইয়াকুব মুসলমান বলে?
মরীচ ঝাঁপির মানুষগুলোকে হিন্দু বলে মারতে তোমাদের হাত কাঁপে নি, আর দেশদ্রোহী ‘মেমন’ মুসলমান বলে দরদ উথলে উঠছে??
এখন… 
কোথায় গেলেন … কমরেড বুদ্ধ দেব?
কোথায় গেলেন … কমরেড মীরা দেবী?
কোথায় গেলেন … কমরেড সুচেতনা?

আপনাদের লজ্জা করেনা …? – সেদিন কত টাকা খেয়েছিলেন পারেখ পরিবারের কাছ থেকে? আর আজই বা কত পেট্রোডলার পকেটস্থ করেছেন? 

আর এভাবেই ইয়াকুব মেমনের ফাঁসির ঘটনাটিতে আপনারা (এই তথাকথিত ধর্মনিরপেক্ষতার ঠিকাদার, বামপন্থীরা) কি দেশ বিরোধী …তথা সভ্যতা বিরোধী নির্লজ্জ মুসলিম তোষণের ক্ষেত্রে আরও একবার অক্সিজেন যোগালেন না?

ছিঃ … আপনাদের ধিক্কার জানানোর মত কোন ভাষা আছে কি???

Previous articleস্বাধীনতা দিবস…? না … স্বাদ-হীনতা দিবস?? আজ ১৫ই আগস্ট, .. ভারতবর্ষের আমাদের স্বাধীনতা দিবস। তাই তো ? স্কুলের বাচ্চারা স্কুলে গিয়ে শিখবে .. আজ থেকে ৭০ বছর আগে এই দিনেই ব্রিটিশদের তাড়িয়ে ভারতবর্ষের স্বাধীনতা এনে দিয়েছিলেন গান্ধী ও নেহেরু। সস্তার লজেন্স মুখে পুরে … তারা শিখবে, … ৮০০বছর মুসলমানের গোলামী করলেও আজও তারা আমাদের ভাই .. অথচ প্রায় ২০০ বছর রাজত্বকারী ব্রিটিশ আমাদের শত্রু। কিন্তু এরই পাশাপাশি, বার কয়েক হয়তো নেতাজী বা ক্ষুদিরামের নামও উল্লেখিত হবে। .. মাইকের নিরবিচ্ছিন্ন উৎকট অমাইক চিৎকারে পাড়া মাথায় তুলবে “ এ্যয় মেরে প্যায়ারে ওতন … আর লতার গান.. বন্দেমাতরম” – এই সারাদিন ধরে চলতে থাকবে। আর বাংলা বলতে ক্যালক্যাটা ইউথের গন সঙ্গীত। … সক্কাল সক্কাল “মুরগী পাঁঠার” দোকান আর দুপুর থেকে বিরিয়ানির দোকানের কর্মচারীদের একদিন নাভিশ্বাস ওঠার যোগাড় হবে। … পাড়ায় পাড়ায় ফুটবল টুর্নামেন্টের ধুম পড়বে, … – …কত্তো লাচা হবে … গানা হবে … একটু লাল জল খেয়ে হিটকি ধরে পড়ে থাকতে দেখা যাবে। মদ্দা কথা .. আজ আমাদের ভীষণ আনন্দের দিন। আজ স্বাধীনতা দিবস। সত্তর বছর আগে ঠিক এই দিনটিতেই ইংরেজদের হাত থেকে শাসনক্ষমতার রাশ ভারতীয়দের হাতে সমর্পিত হয়? … তাই তো? …. লক্ষ করে দিখুন…. আপনার – আমার বাচ্চাটিও হয়তো ঠিক এই পরিমন্ডলেই ধীরে ধীরে বেড়ে উঠছে। এরই নাম কি স্বাধীনতা? … ওহে মুর্খ … বাঙালী হিন্দুর দল। এই যে তোমরা আজ প্রায় জামা কাপড় খুলে আনন্দে ধেই ধেই করে নাচছো? যারা আজ স্বাধীনতা উদযাপন করছো, … তোমাদের কি একবারও মনে হয় না যে, … এই দিনটিতে (১৫ আগস্ট) আর যাই হোক বাঙালী হিন্দুর আনন্দ করা কখনোই সাজে না! কেন? … হঠাৎ কেন এমন বিচার? কারন …এই দিনটি ছিল বলেই … আজ আমার পিঠে … “উদ্বাস্তুর তকমা”, বাঙালী হিন্দুর সাত পুরুষের বাস্তু ভিটা …ফেলে রেখে লক্ষ লক্ষ- হিন্দু মহিলার ইজ্জত বিসর্জন দিতে হয়েছে; যা এক পরিপুর্ন সভ্যসমাজের সম্পূর্ণ পরিপন্থী …।। … এই দিনটিতেই আরবের দস্যুরা ভারত মাতাকে তিন খণ্ড করে রক্তাক্ত করেছে। ‘পাকিস্তান আর বাংলাদেশকে’ পরিণত করেছেন মুসলমানের সিঙ্গল এ্যকাউন্টে, অথচ ভারতের ক্ষেত্রে তা হয়েছে .. ‘হিন্দু মুসলমানের জয়েন্ট এ্যকাউন্ট’। এই দিনটার জন্যেই আজ বাংলাদেশে হিন্দু কমে ৮%, আর পাকিস্থানে ১%এরও কম। আজও হিন্দুদের উদ্বাস্তু হতে হচ্ছে, কেবলমাত্র ঐ কালা দিনটির সৃষ্টির কারনেই। তাহলে এবার নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন …. আমার প্রতিবাদটা ঠিক কোন জায়গায়? … কিন্তু মনে প্রশ্ন হয় … এভাবে আর কতদিন? যত হাঁসি, তত কান্না … বলে গাছেন রামশর্মা……।। হাঁসি তো অনেক হল ভাই,… সামনে কিন্তু এবার সত্যিই ভয়ঙ্কর বিপদ এগিয়ে আসছে। অতয়েব সাধু সাবধান! তাই … এইদিনে আমাদের মৌজ মৌস্তি করা মোটেও শোভনীয় নয়। বরং এই নির্দিষ্ট দিনেই সঙ্কল্প গ্রহণ করা উচিৎ, অন্যায় ভাবে দখল করা হিন্দু ভুমি পুনরাধিকারের…।। পাশাপাশি… এই দিনটিকে চাইলে সারা ভারত .. তাদের নিজেদের মতন করে পালন নিশ্চয়ই করতে পারেন। কারন তারা উদ্বাস্তু হবার যন্ত্রণা ভোগ করেন নি। কিন্তু আমার মতে, বাঙালী হিন্দু …. অর্থাৎ “১৫ই আগস্টে স্বাধীনতা'র নামে, ওপার বাংলা থেকে অশেষ গ্লানি ভোগ করে আসা সর্বস্বান্ত ও নিঃসহায় নিরাপরাধ হিন্দু বাঙ্গালীর কাছে, হাজার হলেও কিছুতেই এই দিনটিকে আনন্দের দিন বলে মানতে পারা সম্ভব কি? … একি সত্যিই বাঙালী হিন্দুর কাছে এক মস্ত বড় স্বাদ-হীনতা নয়?
Next articleচোখের সামনে নেহরুর ভারত থেকে দেশটা নরেন্দ্র মোদীর ভারত হয়ে গেল!!!
RELATED ARTICLES

কন্যাদান : হিন্দুমিসিক হিজাবি বলিউড-কর্পোরেটদের দ্বারা কন্যাদানের বিরুদ্ধে অপপ্রচার প্রচার।

কন্যাদান: হিন্দুমিসিক হিজাবি বলিউড-কর্পোরেটদের দ্বারা কন্যাদানের বিরুদ্ধে অপপ্রচার প্রচার। হিন্দুমিসিক বলিউড মাফিয়া এবং কর্পোরেটরা নারীর ক্ষমতায়নের আড়ালে হিন্দু ঐতিহ্য, আচার -অনুষ্ঠান এবং উৎসবের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ...

আর্য আক্রমণ তত্ত্ব মিথ্যা এবং আর্য সভ্যতার প্রমাণ সিন্ধু সভ্যতা।-দুর্মর

আর্য আক্রমণ তত্ত্ব মিথ্যা এবং আর্য সভ্যতার প্রমাণ সিন্ধু সভ্যতা। আমাদের দেশের সরকারি বইয়ে আর্যদের আগমনকে 'আর্য আক্রমণ তত্ত্ব' বলা হয়। এই বইগুলিতে আর্যদের...

আজ ভারতীয় হিন্দু সমাজ প্রায় নিশ্চিন্ন মাত্র একটি শব্দের প্রভাবে ।-ডাঃ মৃনাল কান্তি

মাত্র একটি শব্দের প্রভাবে আজ ভারতীয় হিন্দু সমাজ প্রায় নিশ্চিন্ন।-ডাঃ মৃনাল কান্তি আপনি নিশ্চয়ই ভারত মাতা কি জয়, জাতীয়তাবাদ, রাষ্ট্রদ্রোহের মতো শব্দগুলি প্রতিদিন শুনেছেন।...

Most Popular

কন্যাদান : হিন্দুমিসিক হিজাবি বলিউড-কর্পোরেটদের দ্বারা কন্যাদানের বিরুদ্ধে অপপ্রচার প্রচার।

কন্যাদান: হিন্দুমিসিক হিজাবি বলিউড-কর্পোরেটদের দ্বারা কন্যাদানের বিরুদ্ধে অপপ্রচার প্রচার। হিন্দুমিসিক বলিউড মাফিয়া এবং কর্পোরেটরা নারীর ক্ষমতায়নের আড়ালে হিন্দু ঐতিহ্য, আচার -অনুষ্ঠান এবং উৎসবের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ...

আর্য আক্রমণ তত্ত্ব মিথ্যা এবং আর্য সভ্যতার প্রমাণ সিন্ধু সভ্যতা।-দুর্মর

আর্য আক্রমণ তত্ত্ব মিথ্যা এবং আর্য সভ্যতার প্রমাণ সিন্ধু সভ্যতা। আমাদের দেশের সরকারি বইয়ে আর্যদের আগমনকে 'আর্য আক্রমণ তত্ত্ব' বলা হয়। এই বইগুলিতে আর্যদের...

আজ ভারতীয় হিন্দু সমাজ প্রায় নিশ্চিন্ন মাত্র একটি শব্দের প্রভাবে ।-ডাঃ মৃনাল কান্তি

মাত্র একটি শব্দের প্রভাবে আজ ভারতীয় হিন্দু সমাজ প্রায় নিশ্চিন্ন।-ডাঃ মৃনাল কান্তি আপনি নিশ্চয়ই ভারত মাতা কি জয়, জাতীয়তাবাদ, রাষ্ট্রদ্রোহের মতো শব্দগুলি প্রতিদিন শুনেছেন।...

২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ঘৃণ্য চক্রান্ত ব্যর্থ করল প্রশাসন!

২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ঘৃণ্য চক্রান্ত ব্যর্থ করল প্রশাসন! সবচেয়ে বড় কথা হল আইএসআইয়ের এই সম্পূর্ণ...

Recent Comments

%d bloggers like this: