বাংলাদেশে সংখ্যালঘু নিধনের নমুনা:

১- রাতের আঁধারে সংখ্যালঘুদের বাড়ীতে ঢিল ছুড়ে ভয় দেখিয়ে দেশছাড়া হতে বাধ্য করা;

২- রাতের আঁধারে সংখ্যালঘুদের বাড়ীতে ঢুকে পুরুষদেরকে হাত-পা বেঁধে শারীরিক নির্যাতন করে এবং নারীদেরকে ধর্ষণ করে ভয় দেখিয়ে দেশছাড়া করা;

৩- ভয়-ভীতি দেখিয়ে জমি-বাড়ী নামমাত্র মূল্যে লিখিয়ে নিয়ে দেশছাড়া হতে বাধ্য করা;

৪- সুযোগ বুঝে সংখ্যালঘুদের বৌ-বেটিদেরকে ধরে নিয়ে ধর্ষণ করে হত্যা করে মামলা না করতে হুমকি দেয়ার মাধ্যমে দেশ ত্যাগে বাধ্য করা;

৫- জোর করে সংখ্যালঘুদের গ্রামছাড়া করার মাধ্যমে দেশত্যাগ করতে বাধ্য করা;

৬- সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে ঘটানো সব ধরণের অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে না দেয়ার মাধ্যমে দেশত্যাগে বাধ্য করা;

৭- দেশে সংখ্যালঘু মেয়েদেরকে সংখ্যাগুরু ছেলেদের দ্বারা ইনিয়ে বিনিয়ে ফুসলিয়ে মুসলিম বানিয়ে বিয়ে করার মাধ্যমে;

৮- দেশে সংখ্যালঘু ছেলেদেরকে সংখ্যাগুরু মেয়েদের দ্বারা ইনিয়ে বিনিয়ে ফুসলিয়ে মুসলিম বানিয়ে বিয়ে করার মাধ্যমে;

৯- কোনো প্রকার কারণ ছাড়াই সংখ্যালঘুদেরকে হত্যা বা গুম করে পরিবারকে পঙ্গু করে দেয়ার মাধ্যমে;

১০- যোগ্যতা থাকা স্বত্বেও সংখ্যালঘুদেরকে উপযুক্ত পদে নিয়োগ না দেয়ার মাধ্যমে চূড়ান্ত হতাশাগ্রস্থ করে তোলার মাধ্যমে দেশত্যাগ করতে বাধ্য করা এবং

১১- সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে ইসলাম অবমাননার মিথ্যা অভিযোগ এনে ব্যাপক তান্ডবলীলা চালিয়ে এবং  অভিযুক্তকে মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে আতঙ্ক ছড়ানোর মাধ্যমে দেশ ত্যাগে বাধ্য করা।

এছাড়াও আরও নিত্য নুতন পদ্ধতি অবলম্বন তো রয়েছেই যা আমার জানা নেই। দুঃখের বিষয়, এসবের কোনোটাতেই প্রশাসন সংখ্যালঘুদের পাশে না দাঁড়িয়ে উল্টো তাদেরকে ভয় দেখিয়ে তাড়িয়ে দেয়। তারপরেও বিভিন্ন সংখ্যালঘু দল বা গোষ্ঠী সংখ্যালঘুদেরকে দেশে থেকে নিঃস্ব হয়ে মরার জন্যে সোনার হরিণের পিছনে দৌড়াতে পরামর্শ দেয়। তারা কি প্রকৃতপক্ষে সংখ্যালঘুদের মঙ্গল কামনা করেন নাকি সরকারের নিকট থেকে  নিজেদের জন্যে সুবিধা আদায়ে তৎপর?