ভর্তুকিমূলক শাসনব্যবস্থায় কোনোদিন সবাইকে সন্তুষ্ট করা যায় না।

Spread the love

ভর্তুকিমূলক শাসনব্যবস্থায় কোনোদিন সবাইকে সন্তুষ্ট করা যায় না বরং দেশের অর্থনীতি দুর্বল হয়ে পড়ে!  জাতি কোনোদিন স্বাবলম্বী হতে পারে না !  দুর্বলকে শুধু নিজের পায়ে দাঁড়ানোর রাস্তাটা তৈরী করে দিতে হবে !  ভর্তুকি ব্যবস্থাও  একধরণের তোষণের রাজনীতি !  দেশ স্বাধীন হবার পর এই ভর্তুকি 10 বছরের জন্যে ধার্য করা হয়েছিল কিন্তু আজও সেই ব্যবস্থা চলছে !  ফোকটে  কিছু পেতে পাবলিক এক্সপার্ট !  সরকারের কাছ থেকে 5 টাকা ভর্তুকি পেতে 5 ঘণ্টা লাইনে দাঁড়াতে তার কোনো আপত্তি নেই !  নিজের স্ফূর্তি করার জন্যে গাদা গাদা টাকা খরচ করতে পারে কিন্তু সরকারের ভর্তুকি বন্ধ করা চলবে না !
    এই ভাবে দেশের মধ্যে এক শ্রেণীর কামচোর  সুবিধাবাদী গোষ্ঠী তৈরী হয়েছে !  দেশের কাছ থেকে নিতে এক পায়ে খাড়া কিন্তু দেশকে মল মূত্র  ঘর্ম  ছাড়াআর কিছু দেবে না !  ভর্তুকি ব্যবস্থায় এমনই সুযোগসন্ধানী  জাতি দিয়ে কি কখনো মজবুত রাষ্ট্র গড়ে উঠতে পারে ?
   জাতপাতের নামে সংরক্ষণ  ও তার জন্যে ভর্তুকি সে ধনাঢ্য  ব্যক্তি হলেও , ধর্মের নামে সংরক্ষণ ও তার জন্যে ভর্তুকি সে জেহাদি তহবিলে  গেলেও !  এখনও এগুলোতে  লাগাম  টানা হবে না ? সংরক্ষণ ব্যবস্থা বন্ধ না হলে ভর্তুকি ব্যবস্থাও বন্ধ হবে না আর জাতি ল্যাংরা  খোঁড়াই হয়ে থাকবে !  কেবলমাত্র অর্থনৈতিকভাবে  দুস্থ  মানুষকে তাকে স্বাবলম্বী করার লক্ষ্যে একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত তার আর্থিক সাহায্য দরকার !
   যতরকমের সরকারি জনপ্রতিনিধি  আছে আগে তাদের সব ভর্তুকি তুলে দিতে হবে তাহলে রাজনীতিটাও  একটু পরিচ্ছন্ন  হয় !