সংকীর্ণ রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটের মানদণ্ডে দণ্ডিত হয়ে অনেক সময় অনেক মহৎপ্রাণ আমাদের চেতনার অন্তরালে চলে যায়। কিছু স্বার্থান্ধ মানুষ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে সেই মহৎপ্রাণের ইতিহাস সাধারণ মানুষের দৃষ্টি থেকে মুছে দেবার আপ্রাণ মিথ্যা চেষ্টা চালিয়ে যায়। আত্মবিস্মৃত বাঙালিহিন্দু জনমানবের একটি বৃহৎ আংশই আজ নিজেদের আপন ইতিহাস থেকে বিচ্যুত। আমরা ভুলে গেছি নিজেদের অস্তিত্ব রক্ষাকারী রক্ষকের নাম বা বলা যেতে পারে সুপরিকল্পিত ভাবে নিরন্তর চেষ্টা চালানো হয়েছে সেই রক্ষাকর্তার নাম যেন আমাদের প্রজন্ম জানতে না পারে।

আজ পবিত্র দিনে স্মরণ করি বাঙালিহিন্দুর অসাংবিধানিক  রক্ষাকর্তা শ্রী শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের পুণ্যাত্মাকে। যাঁহার সিংহবিক্রমেরর এবং ঐকান্তিক সংগ্রামের ফলে বাঙালিহিন্দু অস্তিত্ব আজো উজ্জ্বল এই বিশ্বের মাঝে।

শতশত রাজনৈতিক চক্রান্ত কে ছিন্নভিন্ন করে বাঙালিহিন্দুদের অস্তিত্ব রক্ষা করে তিনি আজ বাঙালিহিন্দুদের কাছে বিস্মৃতির অতলতলে চলে গিয়েছেন, কিন্তু শ্যমাপ্রসাদ না থাকলে বাঙালি হিন্দুর ধ্বংস নিশ্চিত ছিল, যার উদাহরণ পূর্বতন পাকিস্তান বা বর্তমান বাংলাদেশের ১৯৪৭ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত  হিন্দুদের সামাজিক  পরিস্থিতি অনুধাবন করলেই সহজে বোঝা যায়। তবুও আজ পশ্চিমবাংলা আছে বলে অবশিষ্ট অনেকেরই আশার আলো আজও জীবিত আছে।আর যতদিন পশ্চিমবঙ্গ থাকবে ততদিন শ্যামাপ্রসাদের নাম থেকে যাবে বাঙালিহিন্দুর হৃদয়ের অন্তস্তলে।

প্রণাম জানাই এই মহৎপ্রাণকে।