শুরু হল পুরস্কার ফেরতের পালা….
সূচনাপর্ব শুরু হয়েছে “শবনম হাসমি”র হাত ধরে।
কারন- ট্রেনে গো-মাংস নিয়ে ওঠার সন্দেহভাজন জুনেইদ নামক এক মুসলিম ছেলে কে ট্রেনের উত্তেজিত জনতা মেরে ফেলেছে।

বা…. রে….. বা…..

কি সুন্দর সিস্টেম……;
অবাক হয়ে যাই এসব দেখে…. যে….
★ যখন মহরমের চাদা না দেওয়ার জন্য মল্লারপুরের ইন্দ্রজিত কে পিটিয়ে মারে।

★ ধুলাগরের ২৫০ টি হিন্দু পরিবারের বাড়িতে ভাঙচুর করে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়।

★ কালিয়াচকে ২০০ জেহাদি হামলা করে।

★ মুর্শিদাবাদের ৪০০ বছরের রথযাত্রা আটকে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়।

★ বাদুরিয়া তে ঈদ উপলক্ষে সেখানকার স্থানীয় মুসলিম রা পাকিস্তান এর পতাকা টাঙায়।

★ দেগঙ্গায় ২০০ বছরের পুরানো মন্দির ভেঙে দেওয়া হয়।

★ বাকুড়া তে এক মুসলিম অধ্যুষিত এলাকায় ৪০ টি হিন্দু পরিবার কে তাদের বাড়ি/জমি-ভিটা থেকে উচ্ছেদ করা হয়।

★ কলকাতা তে অনুষ্ঠিত কোনো হিন্দু সংগঠন এর সভা কে আটকে দেওয়া হয়।

ভারতে এগুল বিচ্ছিন্ন ঘটনা, আর পাকিস্তানে, বাংলাদেশে, কাশ্মীর এ হিন্দুদের কি অবস্তা সেটা ভেবেছেন? ওইসব জাইগায় হিন্দুরা যে অবস্তায় আছে তার তুলনায় ভারতে মুসলিম্রা অনেক অনেক ভালো আছে। এখানে ঈমাম ভাতা দেওয়া হয়, মহরমের জন্য বিসর্জন বন্ধ হয়, স্কুলে সরশ্বতী পুজো বন্ধ হয়, নবির জন্মদিন পালনের জন্য স্কুল বন্ধ করে দেওয়া হয়, ঈদের জন্য রথ বিন্ধ থাকে, জাতীয় সংগীতকে হারাম বলে বর্জন করে। প্রকাশ্যে পাকিস্তান জিন্দাবাদ বলে। আর কত স্বাধীনতা সহিষনুতা চান হিন্দুদের কাছ থেকে। যারা এইসব ছটখাট বিষয় নিয়ে প্রতিবাদ করে তাদের আর কেউ মানেনা, কারণ এরা হল ছদ্মবেশি। নিরেপক্ষনয়। নিজেদেরকে তুলেধরার জন্য একটা প্লাটফর্ম দরকার তাই এটাকে ঈশু করছে, কোন লাভ হবে না।

থাক…. আর লিখলাম না।
লিখতে লিখতে আমার হাত ব্যথা হয়ে যাবে, তবুও  লিখে শেষ করতে পারবো না।
আর এই ঘটনা গুলো তো আমরা সচক্ষে দেখতে পাচ্ছি, তাই সবাই জানতে পারছে কিন্তু যেই ঘটনা গুলো আমাদের নজরে আসছে না।

সেগুলো কি হচ্ছে…?
উত্তরঃ- সেগুলো নিয়মিত ভাবে ঘটেই যাচ্ছে।

আর তখন কেউ পুরস্কার ফেরাচ্ছে না, আর কোনো রকম প্রতিবাদও করছে না।
চুপ করে শুধু মৌনব্রত পালন করছে।

এইসব ঘটনা গুলো আর ১০ বছর ঘটলে সারা ভারতে ১২% হিন্দু কমে যাবে।

তাই যারা আমার ডাকে আসে এবং বিভিন্ন জায়গায় হিন্দুত্ববাদি মিটিং / সভা তে যোগ দেয় আর যারা সত্যিই রাস্তায় নেমে কাজ করে, তাদের কে বাদ দিয়ে…. বাকি মুর্খ হিন্দুদের বলছি….. ফেসবুক, whatsapp আমার পোস্টে লাইক, কমেন্ট করে কোনো লাভ নেই।
পারলে হাতে হাত মিলিয়ে রাস্তায় নেমে কাজ করো, নাহলে দরকার নেই তোমাদের।
কারন- এরকম ভাবে তোমরা চলতে থাকলে হিন্দু বিরোধী ঘটনা গুলো আরো বৃদ্ধি পাবে।

   পিনাকী কুমার দাস