Monday, September 20, 2021
Home Bangla Blog হযরত মুহাম্মদ কি চাঁদকে দ্বিখন্ডিত করেছিলেন?

হযরত মুহাম্মদ কি চাঁদকে দ্বিখন্ডিত করেছিলেন?

হযরত মুহাম্মদ কি চাঁদকে দ্বিখন্ডিত করেছিলেন?
……………………………………………………….
……………………………………………………….
সুরা কামারের ১ নং আয়াতে বলা হয়েছে-  اقْتَرَبَتْ السَّاعَةُ وَانْشَقَّ الْقَمَرُ‘‘কিয়ামত নিকটবর্তী হয়ে গেছে এবং চন্দ্র দ্বিখন্ডিত হয়েছে’’। (সূরা কামারঃ ১)। ইবনে কাথির এই সুরার ব্যাখ্যায় একদম শুরুতেই বলেছেন চন্দ্র দ্বিখন্ডিত হওয়াকে কিয়ামত আসন্ন হিসেবে বুঝানো হয়েছে। (ইবনে কাথিরের তাফসির, সুরা কামার, খন্ড-১৭, পৃষ্ঠা-১৭৯)। এছাড়া হাফেয ইবনে রজব বলেন, ‘‘আল্লাহ তাআলা চন্দ্র দ্বিখন্ডিত হওয়াকে কিয়ামত নিকটবর্তী হওয়ার অন্যতম আলামত হিসাবে নির্ধারণ করেছেন। কিন্তু ইসলামী  স্কলার, আলেম-ওলামাবৃন্দ দাবী করেছেন যে, নবী মুহাম্মদ মক্কাবাসীদের দাবীর মুখে চন্দ্রকে দ্বিখন্ডিত করেছিলেন। এ বিষয়ে মুসলিম শরীফ ও সহি বুখারীতে হাদিসও রয়েছে। কিন্তু এই হাদিস ও কুরআনের আয়াত নিয়ে বড় ধরণের ঘাপলা রয়ে গেছে তা এখানে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে। প্রথমত সুরা কামারে মুহাম্মদের চন্দ্র দ্বি-খন্ডিত করার মত ঘটনাকে কেন পরিস্কার বর্ণনা করা হলো না? সুরা কামারের কোথাও বলা নেই মুহাম্মদ আঙ্গুল দ্বারা আকাশের চাঁদকে দুইভাগ করে ফেলেছেন। এটা বর্ণনা করা হয়েছে হাদিসে। বরং এই সুরার তাফসির করতে গিয়ে ইবনে কাথির উল্লেখ করেছেন নবী তার তর্জনী ও মধ্যমা আঙ্গুল দুটি দেখিয়ে বলেছেন আমার আগমন ও কিয়ামতের সূচনা এভাবে নিকটবর্তী। আমরা হাদিসের চন্দ্র দ্বিখন্ডিত ঘটনাকে ব্যাখ্যা করার আগে প্রথমেই স্মরণ করিয়ে দিতে চাই যে, কুরআনে মুহাম্মদকে কোন রকম অলৌকিক ক্ষমতা প্রদর্শনের বিষয়ে আল্লাহ সাফ জানিয়ে দিয়েছেন যে, এটা তার হাতে এবং তিনি এই জাতিকে সেটা দেখাবেন না, কারণ এটা দেখালে যদি তারা ঈমান না আনে তাহলে তারা ধ্বংস হয়ে যাবে আল্লাহর গজবে…(সুরা আন’আম)। এছাড়া যতবার নবী মুহাম্মদকে আকাশ থেকে আল্লাহ’র কোন প্রমাণ, তার কাছে আগত ফেরেস্তাদের উপস্থিতির প্রমাণ মক্কাবাসী দেখতে চেয়েছে তখন মুহাম্মদ তার অপরাগতা জানিয়ে দিয়েছেন। যখনই মুহাম্মদকে কোন অলৌকিক ক্ষমতা দেখাতে বলা হয়েছে তখনই তিনি বলেছেন তিনি তো একজন সতর্ককারী মাত্র। তোমরা ঈমান আনলে ভাল, না আনলে কিছু  করার নেই। এমতবস্থায় চন্দ্র দ্বিখন্ডিত করার মত ঘটনা শুধুমাত্র হাদিসেই সন্ধান পাওয়া যায়। কিন্তু হাদিসের এই ঘটনাকে আজকের যুগের ইসলামী বক্তা, ইসলাম ও বিজ্ঞানকে জগাখিচুরী বানানো স্কলারদের কিন্তু বেশি একটা উচ্চবাচ্য করতে দেখা যায় না! বলতে গেলে নিজে থেকে তারা চন্দ্র দ্বিখন্ডিত করার ঘটনাকে সামনে আনেন না। কেন আনতে চান না সেটাই এখন ব্যাখ্যা করা হবে। তার আগে হাদিসে যেভাবে চন্দ্রকে দুই ভাগ করার কথা বলা আছে তা একটু জেনে নেই।

জানা গেছে হাদীস সংকলনের তৃতীয় যুগের (নবী মুহাম্মদের মৃত্যুর ২৫০ বছর পর) মোহাদ্দেসীনে কেরামের মধ্যে একজন বিখ্যাত মোহাদ্দেসেুর যার নাম আবু নাঈম আহমদ ইবনে আবদুল্লাহ ইস্কাহানী (৪৩১ হি.) তার সংকলিত ‘দালায়েলুন নবুওয়াতি’ হাদীস গ্রন্থে বলা হয়েছে, আতা ও জেহাক নামক দুইজনের সূত্রে হজরত ইবনে আব্বাস (রা.)-এর একটি বর্ণনা (খেয়াল করুন কতজনের মুখে ঘুরে ফিরে নবীর মৃত্যুর ২৫০ বছর পরে, আজ থেকে ১৪০০ বছর আগের উদ্ধৃত করা  একটা হাদিস বর্ণনা করছে- //তিনজন কাফের নেতা ছাড়াও আছ ইবনে হিশাম, আসওয়াদ ইবনে মোত্তালেব এবং নজর ইবনে হারেসের নবী মুহাম্মদের নিকট উপস্থিত হয়ে চাঁদদ্বিখণ্ডিত করার দাবী জানিয়েছিল। এই বর্ণনায় তারা স্পষ্ট দাবী জানিয়েছিল, ‘ইনকুনতা ছাদেকাফা শাক্কে লানা আল কামারা কিরকাতাইনো নিছফান আলা আবি কোবাই সে ওয়া নিছকাল আলা কাইকুআনে।’ কাফেররা বলল, আপনি যদি সত্যবাদী হন তা হলে চাঁদকে দ্বিখন্ডিত করে আমাদেরকে দেখান, যার অর্ধেক আবু কোবাইস পর্বতে এবং অর্ধেক কাইকুআন পর্বতে পতিত হবে। রাসূলুল্লাহ (সা.) বললেন, আমি যদি তা করে দেই তাহলে তোমরা ঈমান আনবে কি? তারা বলল, হাঁ। বর্ণনাকারী বলেন, রাতটি ছিল পূর্ণিমার। রাসূলুল্লাহ (সা.) আল্লাহর দরবারে প্রার্থনা করেন, তারা (কাফেররা) যা চায় তা যেন আল্লাহ তাকে দান করেন। অতঃপর চাঁদ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়, অর্ধেক আবু কোবাইল পর্বতে পতিত হয় এবং অর্ধেক কাইকুআনপর্বতে পতিত হয়//।

আজকের যুগে বিজ্ঞানের নবম শ্রেণীর একজন ছাত্রও জানে যে এরকম কোন ঘটনা নবী মুহাম্মদের পক্ষে ঘটানো কোন ক্রমেই সম্ভব নয় কেননা এখানে যে দাবী করা হয়েছে সেটা উদ্ভট আর অবাস্তব। যদি আপনি ধার্মীক হন, অলৌকিক ঘটনায় বিশ্বাসী হোন তবু আপনার পক্ষে নবীর চন্দ্র দ্বি-খন্ডিত করার ঘটনাকে বিশ্বাস করার কোন উপায় নেই! মুসার লাঠিকে শাপ হওয়া কিংবা সাগরকে দুইভাগ করে রাস্তা করাও “অলৌকিক” হিসেবে মেনে নেওয়া যাবে কিন্তু চন্দ্রকে দুইভাগ করে দুই পাহাড়ে ফেলা খোদ আল্লার পক্ষেও সম্ভব নয়! কেন নয়, সেটাই এখন বলছি।

মানুষ যদি আকাশের চাঁদকে একটা ঝলসানো রুটির মত মনে করে থাকে তাহলে তাকে মাঝ বরাবর ছিড়ে দুই পাহাড়ের মধ্যে এনে ফেলা সম্ভব বৈকি! সম্ভবত যে বা যারা এই হাদিসটি মনের মাধুরী মিশিয়ে তৈরি করেছিলেন তাদের চন্দ্র সম্পর্কে জ্ঞান এরকমই ছিল। তারা মনে করেছিল চাঁদ একটা মাখনের রুটি। তাদের ধারণা নেই চাঁদ পৃথিবীর মতই একটি গোল বলের মত বস্তু, পৃথিবীর মতই এর ভূমি আছে, পাহাড়পর্বত, খাদ, গিরিখাদ সমেত এক পাখুরে ভূমি। এর আকার ৩,৪৭৪.২০৬ কিলোমিটার (২,১৫৯ মাইল)। এবার বলুন সৌদি আরবের চেয়ে হাজার হাজার গুণ বড় একটা চাঁদ কিভাবে মক্কার দুটো পাহাড়ে গিয়ে পতিত হয়!! পুরো পৃথিবী যেখানে চাঁদ ভেঙ্গে পড়লে ধ্বংস হয়ে যাবার কথা সেখানে মক্কাবাসী চেয়ে চেয়ে দেখল চাঁদ টুকরো হয়ে দুই পাহাড়ের নিচে গিয়ে পতিত হচ্ছে! আকাশে রোজ দেখা চাঁদকে যে আকারে আমরা দেখি সেভাবেই তাকে কল্পনা করলে এরকম কল্পনা শক্তি প্রয়োগ করাই সম্ভব। চাদেঁর যে আয়তন সেটা পৃথিবীর কয়েকটি বৃহৎ মহাদেশ বা রাষ্ট্রের মিলিত আয়তনের চেয়ে বড়। বলা বাহুল্য গোটা সৌদি আরবের যে আয়তন তাতে চাদেঁর অর্ধেকও যদি সেখানে ভেঙ্গে পড়ে সেটা দেখার জন্য কোন মানুষ আস্ত থাকবে না। আর সেখানে কিনা মক্কার মত ছোট একটা এলাকায়, যেখানে মানুষ তার দৃষ্টি সীমার মাত্র কয়েক মাইল পর্যন্ত তার চোখ দ্বারা দেখতে সক্ষম, সেই তারাই নাকি বিশাল আকারে চাঁদকে মক্কার দুটো পাহাড়ে গিয়ে দুই ভাগ হয়ে পড়ে থাকতে দেখল! কি হাস্যকর শিশুসুলভ কল্পনা। যারা অলৌকিক ঘটনা বিশ্বাস করেন ধর্মীয় বাধ্যবাধকতার কারণে তাদের পক্ষেও তাই এটা বিশ্বাস করা কোন রূপে উপায় নেই। অলৌকিকেরও একটা ভিত্তি থাকতে হবে। যেমন ধার্মীক ব্যক্তি বিশ্বাস করতে পারেন আল্লাহ পৃথিবীর ঘূর্ণণকে ইচ্ছা করলেই বন্ধ করে রাখতে পারেন, আমাদের বিজ্ঞান ও যুক্তি জানে এটা সম্ভব নয়, তবু অলৌকিক বিশ্বাসে বিশ্বাসী মানুষের এসব বিশ্বাস করতে যুক্তি লাগে না। তবু ঘূর্ণন একটা বস্তু থেমে রয়েছে এর একটা ভিত্তি রয়েছে, এমন কি আকাশে একটা হাতি উড়ছে, গরু গাছে চড়েছে- এরকম কথাতে তবু একটা ভিত্তি রয়েছে কিন্তু আকাশের একটা টুকরা ভেঙ্গে পড়ছে যেমন কোনভাবেই সম্ভব নয় কেননা শূন্যের কোন টুকরা হয় না তেমনি আমাদের চেয়ে বিশাল বস্তু, যার সামনে আমরা পিঁপড়ার চেয়েও তুচ্ছ সেটাকে অনতিদূরে পতিত হতে দেখাও সম্ভব না! “অলৌকিক” হলেও সম্ভব নয়!

এবার আসুন পরিসমাপ্ত করার আগে কিছু বেসিক জ্ঞান জানি। নবী মুহাম্মদ যখন দুনিয়াতে কিছু ছাগলের রাখলকে সাহাবী বানিয়ে মক্কা চষে বেড়াচ্ছেন তখন প্রসিদ্ধ গ্রীক সভ্যতা বর্তমান। এমনকি ভারতবর্ষে তখন জ্ঞান-বিজ্ঞানের চর্চা বিশেষত জ্যোতির্বিজ্ঞানের চর্চা উল্লেখ করার মত পর্যায়ে ছিল। হাজার বছর আগে থেকে যখন দূরবীন আবিস্কার হয়নি তখনও জ্যোতির্বিজ্ঞানিরা রাতের আকাশে গ্রহ-নক্ষত্রকে পর্যবেক্ষণ করতে বছরের পর বছর নির্মিষ চেয়ে থাকতেন। ততদিনে আকাশের একটা মানচিত্রও মানুষ তৈরি করে ফেলেছিল। এই নিবিড় পর্যবেক্ষণকালে আজ পর্যন্ত সেকালের কোন বৈজ্ঞানিক নথি পাওয়া যায়নি যেখানে আকাশ হতে চাঁদ হঠাৎ তার স্থান থেকে বিচুৎ হয়ে গিয়েছিল। চাঁদকে দ্বি-খন্ডিত হতে দেখেছে এরকম কোন নথি মহাকাশ গবেষণাগারে পাওয়া যায়নি। পৃথিবীতে জোয়ার-ভাটার মত গুরুত্বপূর্ণ ঘটনার জন্য চাঁদের অবস্থান দায়ী। এটা মক্কার রাখালদের জানার কথা নয়। চাঁদ ভেঙ্গে দুটুকরা হয়ে গেলে পৃথিবীর জলসীমার কি অবস্থা হবে সে সম্পর্কেও তাদের কোন ধরণা নেই। সবচেয়ে বড় কথা পৃথিবীতে ডায়নোসারের মত প্রাণী বিলুপ্ত হয়ে গেছে পৃথিবীর বায়ুমন্ডল ভেদে করে একটা বড় ধরণের গৃহাণুর পতনের কারণে। সেখানে বৃহৎ আকারে একটা উপগ্রহ দুই টুকরা হয়ে মক্কার দুটো পাহাড়ে পড়ে গেলো আর সেটা মক্কার রাখলরা চেয়ে চেয়ে দেখলেন! বাহ্, আজকের এই বিজ্ঞানের যুগেও যদি কিছু মানুষ এইরকম রূপকথাকে যুক্তিহীনভাবে বিশ্বাস করে যান তাহলে ১৪০০ বছর আগের উট আর দুম্বা চড়ানো রাখালদের আর দোষ কি?

[প্রথম প্রকাশ: ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮]

RELATED ARTICLES

২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ঘৃণ্য চক্রান্ত ব্যর্থ করল প্রশাসন!

২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ঘৃণ্য চক্রান্ত ব্যর্থ করল প্রশাসন! সবচেয়ে বড় কথা হল আইএসআইয়ের এই সম্পূর্ণ...

আশ্রয় দেওয়া দেশগুলোতে জিহাদ একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে ওঠছে।

শরণার্থী : আশ্রয় দেওয়া দেশগুলোতে ইসলামী মৌলবাদিদের জিহাদ একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে ওঠছে।নিউজিল্যান্ড ইসলামী জিহাদিদের ছুরি হামলা, হামলাকারী একজন শ্রীলংকান মুসলিম শরণার্থী। অন্য দিকে জার্মানিতে...

কেরালা ভারতে অশান্তির নীরব রাজধানী হয়ে উঠছে। আগামী ১০ বছরের মধ্যে কেরালা পরবর্তী কাশ্মীর হয়ে যাবে।

কেরালা ভারতে অশান্তির নীরব রাজধানী হয়ে উঠছে। আগামী ১০ বছরের মধ্যে কেরালা পরবর্তী কাশ্মীর হয়ে যাবে। কেরালার হিন্দুদের কাছ থেকে ভারতের অনেক কিছু শেখার আছে। কাশ্মীরি...

Most Popular

২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ঘৃণ্য চক্রান্ত ব্যর্থ করল প্রশাসন!

২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ঘৃণ্য চক্রান্ত ব্যর্থ করল প্রশাসন! সবচেয়ে বড় কথা হল আইএসআইয়ের এই সম্পূর্ণ...

আশ্রয় দেওয়া দেশগুলোতে জিহাদ একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে ওঠছে।

শরণার্থী : আশ্রয় দেওয়া দেশগুলোতে ইসলামী মৌলবাদিদের জিহাদ একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে ওঠছে।নিউজিল্যান্ড ইসলামী জিহাদিদের ছুরি হামলা, হামলাকারী একজন শ্রীলংকান মুসলিম শরণার্থী। অন্য দিকে জার্মানিতে...

কেরালা ভারতে অশান্তির নীরব রাজধানী হয়ে উঠছে। আগামী ১০ বছরের মধ্যে কেরালা পরবর্তী কাশ্মীর হয়ে যাবে।

কেরালা ভারতে অশান্তির নীরব রাজধানী হয়ে উঠছে। আগামী ১০ বছরের মধ্যে কেরালা পরবর্তী কাশ্মীর হয়ে যাবে। কেরালার হিন্দুদের কাছ থেকে ভারতের অনেক কিছু শেখার আছে। কাশ্মীরি...

মন্দির-মসজিদ সহাবস্থান যতগুলি ধর্মীয় সহিষ্ণুতার বিজ্ঞাপন দেখেন তার সবগুলিই মন্দির আগে প্রতিষ্ঠা হয়েছে তারপর মসজিদ।

মন্দির-মসজিদ সহাবস্থান যতগুলি ধর্মীয় সহিষ্ণুতার বিজ্ঞাপন দেখেন তার সবগুলিই মন্দির আগে প্রতিষ্ঠা হয়েছে তারপর মসজিদ। সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের চট্টগ্রামে একজন মুসলিম যুবক চন্দ্রনাথ ধামে...

Recent Comments

%d bloggers like this: