Saturday, September 25, 2021
Home Bangla Blog বাচ্চাবাজি: কচি কিশোর ধর্ষণের নোংরা সংস্কৃতি ঈদেও প্রকট!

বাচ্চাবাজি: কচি কিশোর ধর্ষণের নোংরা সংস্কৃতি ঈদেও প্রকট!

বাচ্চাবাজি: কচি কিশোর ধর্ষণের নোংরা সংস্কৃতি ঈদেও প্রকট! 

১০ থেকে ১৮ বছর বয়সী সুদর্শন কিশোরদের বেছে বেছে কিনে নিয়ে আসা এবং তারপর যৌন পরিতৃপ্তির জন্য মাথার চুল থেকে পায়ের নখ পর্যন্ত তাদের শরীরকে পৈশাচিকভাবে ব্যবহার করা, এটাই নাকি আফগানিস্তানের ১০০ বছরের সুপ্রাচীন রীতি!
     কাবুলিওয়ালার দেশের এই ‘বর্বর ঐতিহ্য’ সকলের কাছে পরিচিত ‘বাচ্চা বাজি’ নামেই।
আফগান উগ্র জঙ্গি গোষ্ঠীগুলো ছাড়াও আর্থিক সচ্ছ্বল আফগান পরিবারের পুরুষরাও এই ‘রিচুয়্যাল’ প্র্যাকটিস করে থাকে।
এমনকি এই ধরণের কুরুচিকর ‘প্রথা’র ব্যবহারিক প্রয়োগে সামিল হয়েছে আফগান দেশের তাবড় থেকে তাবড়ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরাও।
কাম পরিতৃপ্তি তো বটেই ‘বাচ্চা বাজি’র মত ‘প্রথা’তে ১০ থেকে ১৮ বছরের কিশোরদের মূলত ‘নর্তক’ করে রাখা হয়।
যৌন দাসত্বের মতই মনীবের কথায় যেমন অনিচ্ছাকৃত কামে লিপ্ত হতে হয় তেমনই মনীবের কথাতেই এই কিশোরদের বিভিন্ন ঘরোয়া অনুষ্ঠানে ‘মেয়ে সেজে’ নাচতেও হয়।
পবিত্র রমজান মাসে গোটা আফগান দেশ এই প্রথার ‘প্র্যাকটিসে বুঁদ হয়ে থাকে’, আর এটাই আরও বেশি করে চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে বিশ্ব মানবতার।
শুধু যে পুরুষ বাচ্চা তা নয়, মেয়ে বাচ্চাদের ওপরও যে ধরণের অত্যাচার ‘বাচ্চা বাজি’র নামে হয়ে থাকে এবং এখনও হচ্ছে, তা আদতে এক প্রকাণ্ড মানবতা বিরোধী দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।
“কেবলমাত্র সন্তানের গর্ভ ধারণের জন্য কিশোরীদের ব্যবহার, আর কিশোরদের উপভোগ করা আনন্দের জন্য”, ‘বাচ্চা বাজির’ এই ট্র্যাডিশন ঈদের মত পবিত্র দিনেও পিছু ছাড়ছে না নিরপরাধ কিশোর-কিশোরীদের।
‘ইসলাম বিরোধী’ এই প্রথা, প্রথম নিষিদ্ধ করা হয়েছিল তালিবান শাসনকালেই (১৯৯৬-২০০১)। এরপর কিছু জায়গায় ‘বাচ্চা-বাজি’কে সাময়িকভাবে বন্ধ করা গেলেও দক্ষিণ-পূর্ব আফগানিস্তানের বিস্তীর্ণ গ্রামাঞ্চলে এই প্রথার রমরমা থেকেই গিয়েছে।
এমনকি তাজিকের মত জায়গাতেও এই প্রথা ঘরে ঘরে ঢুকে পড়েছে।
আফগানিস্তান ইন্ডিপেন্ডেন্ট হিউম্যান রাইটস কমিশনের (AIHRC) রিপোর্ট অনুযায়ী, মহিলাদের সঙ্গে পুরুষদের সামাজিক যোগাযগের অভাবের কারণেই বাচ্চা-বাজির মত পাশবিক রীতির রমরমা বাড়ছে।
এছাড়াও আইন, দুর্নীতি, অশিক্ষা, দারিদ্র, সামাজিক অনিশ্চয়তা ইত্যাদি কারণগুলোও নাকি এই অসামজিক প্রথার বাড়বাড়ন্তের অন্যতম কারণ, এমনই দাবি আফগানিস্তানের মানবাধিকার কমিশনের।
এ প্রসঙ্গে সচলায়তন ব্লগে ০৫-০২-২০১১ইং তারিখে প্রকাশিত ‘সবুজ পাহাড়ের রাজা’ লিখিত “বাচ্চা বাজি” ব্লগ পোষ্ট থেকে কিছু অংশ পাঠকদের জন্য উদ্ধৃত করা হলো।
বাচ্চা বাজি একটি পশতুন/ফারসী শব্দ। সহজ বাংলায় ছেলে শিশুদের নিয়ে খেলা করা ।
বাচ্চা বাজিতে ছেলে শিশুদের (সাধারণত: আট থেকে ষোল বছর) মেয়েদের পোষাক পড়িয়ে নাচের জন্য ব্যবহার করা হয়।
তবে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এই সব ছেলে শিশুরা নাচের পাশাপাশি যৌনকার্যে ব্যবহৃত হয়। আফগান ওয়ারলর্ড-ব্যবসায়ী-সরকারী উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তারা বাচ্চাবাজির প্রধান গ্রাহক ।
বাচ্চা বাজি মধ্য এশিয়ান একটি অনেক পুরনো একটি প্রথা। এই অঞ্চলে ইসলামের আর্বিভাবের বহু পূর্ব হতে বাচ্চা বাজির প্রচলন ছিলো। নানান সময়ে বাচ্চা বাজি মধ্য এশিয়ার নানান খানাতে নিষিদ্ধ এবং পুর্ন-প্রচলন হয়েছিলো।
বাচ্চা বাজি তালেবানদের সময়ে নিষিদ্ধ ছিলো। তালেবানদের পতনের পর বাচ্চা বাজি আফগানিস্তানে ফের প্রচলন শুরু হয়।
বাচ্চা বাজিতে ছেলে শিশুদের মেয়েদের মত করে সাজানো হয়; পায়ে নুপুর-মেয়েদের পোষাক পরে- মেয়েদের মত মেকআপ করে বয়স্ক পুরুষদের সামনে নাচতে থাকে এরা।
আর এ সময় লালায়িত নরপশুরা আফগানী নোট ছুড়ে মারতে থাকে শিশুগুলোর উপর। নাচ শেষ হবার পর নিলাম শুরু হয় এই শিশুগুলোর।
পশতুন বয়স্ক পুরুষদের বিকৃত যৌন চাহিদা মেটানোর জন্য বিক্রয় হয়ে যায় এই ছেলে শিশুগুলো। আফগানিস্তানের কান্দাহার-খোশত-খোন্দজের পশতুনদের মাঝে বাচ্চা বাজির ছেলে শিশুদের সাথে সঙ্গম এখন খুব সাধারণ একটি বিষয়।
স্টানফোর্ডের সাংবাদিকতার অধ্যাপক জোয়েল ব্রিন্কলের মতে, আফগানিস্তানের পশতুনরাই বাচ্চা বাজি-র প্রধান গ্রাহক।
সবচেয়ে অবাক করা বিষয় হলো- জাতিতে পশতুন কান্দাহারের অধিবাসী প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাইয়ের পরিবারের দুজন সদস্যর বিরুদ্ধে বাচ্চা বাজির অভিযোগ পেয়েছেন জোয়েল।
বাচ্চা বাজির মত ভয়ংকর এই বীভৎস রীতি ক্রমেই আফগান সমাজের স্থায়ী রীতি হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে। বাচ্চা বাজিতে ব্যবহার করা শিশুরা বড় হয়ে গেলে, তারা স্বাভাবিক জীবনে প্রবেশ করে; কিন্তু এদের অনেকেই তখন বাচ্চা বাজির শিশুদের গ্রাহক হয়ে যায়।
ফলে দেখা যায়, প্রতিনিয়ত বাচ্চা বাজির নিত্য নতুন গ্রাহক সৃষ্টি হচ্ছে। এক বালক রয়টার্সের নেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলে-
যখন আমি বড় হবো , তখন আমার নিজের মালিকানায় বাচ্চা বাজির ছেলে থাকবে।
বৈরুতে বসবাসরত লেখক আবদুল আহাদের গার্ডিয়ান পত্রিকায় প্রকাশিত বাচ্চা বাজি নিয়ে একটি আর্টিকেল অনুসারে, আফগানিস্তানে বাচ্চা বাজি ক্রমেই খুব স্বাভাবিক একটা বিষয়ে পরিণত হচ্ছে।
উত্তর আফগানিস্তানে বিয়েতে বাচ্চা বাজির আয়োজন এখন খুব সাধারণ একটা ব্যাপার। আফগানিস্তানে বাচ্চা বাজি নিয়ে রীতি মত সংগঠিত হোটেল-মাদক-ব্যান্ড-সিডি/ভিসিডি-দেহ ব্যবসায় হচ্ছে।
বাচ্চা বাজির এত চাহিদা আফগানিস্তানে বেশি যে, এই সব ছেলে শিশু ক্রয়ে বিশ হাজার ডলার খরচ করতেও অনেকে কুন্ঠা বোধ করে না।
সাম্প্রতিক সময়ে উইকিলিকসের কল্যাণে জানা গেলো, আফগানিস্তানের কুন্দুজ প্রদেশে কার্য পরিচালনারত DynCorp নামের একটি নিরাপত্তা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান বাচ্চা বাজিকে স্পন্সর করেছিলো।
DynCorp এর কাজ আফগান পুলিশদেরকে প্রশিক্ষণ দেয়া। DynCorp তাদের অধীন প্রশিক্ষণাধীন আফগান পুলিশদের বিনোদনের জন্য বাচ্চাবাজিতে অর্থ স্পন্সর করে।
পরবর্তীতে বিষয়টি জানাজানি হলে আফগান প্রাক্তন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হানিফ আতমার (জুন, ২০১০-এ পদত্যাগ করেন) বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার জন্য মার্কিন কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানান ।
আফগানিস্তানে প্রচলিত শরিয়া আইন ও ফৌজদারী আইন উভয় আইনে বাচ্চা বাজি নিষিদ্ধ ও কঠোর শাস্তির বিধান থাকলেও এর কোন প্রয়োগই নেই। বরং, প্রশাসনই বাচ্চা বাজির পিছনে মদদ দিচ্ছে।
বিবিসি’র সাংবাদিক রুস্তম কোবিলের সাথে এক সাক্ষাৎকারে জোওজান প্রদেশের সহকারী পুলিশ প্রধান সরাসরি অস্বীকার করেন বাচ্চা বাজির উপস্থিতির কথা।
যুদ্ধ বিধস্ত আফগানিস্তানের অস্থিতিশীল অর্থনীতি বাচ্চা বাজি বৃদ্ধিতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে চলেছে। অনেক দরিদ্র আফগান পিতা অর্থের বিনিময়ে ছেলে শিশুকে তুলে দিচ্ছে দালালের হাতে।
আবার অনেক কিশোর দারিদ্রের কষ্ট সইতে না পেরে স্বেচ্ছায় বাচ্চা বাজিতে যোগ দেয়। আর সেই সাথে অপহরণের মাধ্যমে ছেলে শিশু সংগ্রহ তো আছেই।
বর্তমানে জাতিসংঘ-মানবাধিকার সংস্থাগুলো আফগান প্রশাসনকে চাপ দিচ্ছে বাচ্চাবাজি বন্ধে পদক্ষেপ নিতে। স্থানীয়ভাবে কাজ করতে থাকা মানবাধিকার সংস্থা-এনজিওগুলোও চেষ্টা চালাচ্ছে বাচ্চাবাজি বন্ধে।
তবে, বাচ্চা বাজি বন্ধে যে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন আফগানদের সদিচ্ছা আর আফগান প্রশাসনের কার্যকরী পদক্ষেপ ।

আফগানিস্তান যে পোয়াখোড়দের স্বর্গরাজ্য সেটা আগে জানতাম না।

https://m.facebook.com/story.php?story_fbid=1547499001968554&id=100001254062180

RELATED ARTICLES

কন্যাদান : হিন্দুমিসিক হিজাবি বলিউড-কর্পোরেটদের দ্বারা কন্যাদানের বিরুদ্ধে অপপ্রচার প্রচার।

কন্যাদান: হিন্দুমিসিক হিজাবি বলিউড-কর্পোরেটদের দ্বারা কন্যাদানের বিরুদ্ধে অপপ্রচার প্রচার। হিন্দুমিসিক বলিউড মাফিয়া এবং কর্পোরেটরা নারীর ক্ষমতায়নের আড়ালে হিন্দু ঐতিহ্য, আচার -অনুষ্ঠান এবং উৎসবের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ...

আর্য আক্রমণ তত্ত্ব মিথ্যা এবং আর্য সভ্যতার প্রমাণ সিন্ধু সভ্যতা।-দুর্মর

আর্য আক্রমণ তত্ত্ব মিথ্যা এবং আর্য সভ্যতার প্রমাণ সিন্ধু সভ্যতা। আমাদের দেশের সরকারি বইয়ে আর্যদের আগমনকে 'আর্য আক্রমণ তত্ত্ব' বলা হয়। এই বইগুলিতে আর্যদের...

আজ ভারতীয় হিন্দু সমাজ প্রায় নিশ্চিন্ন মাত্র একটি শব্দের প্রভাবে ।-ডাঃ মৃনাল কান্তি

মাত্র একটি শব্দের প্রভাবে আজ ভারতীয় হিন্দু সমাজ প্রায় নিশ্চিন্ন।-ডাঃ মৃনাল কান্তি আপনি নিশ্চয়ই ভারত মাতা কি জয়, জাতীয়তাবাদ, রাষ্ট্রদ্রোহের মতো শব্দগুলি প্রতিদিন শুনেছেন।...

Most Popular

কন্যাদান : হিন্দুমিসিক হিজাবি বলিউড-কর্পোরেটদের দ্বারা কন্যাদানের বিরুদ্ধে অপপ্রচার প্রচার।

কন্যাদান: হিন্দুমিসিক হিজাবি বলিউড-কর্পোরেটদের দ্বারা কন্যাদানের বিরুদ্ধে অপপ্রচার প্রচার। হিন্দুমিসিক বলিউড মাফিয়া এবং কর্পোরেটরা নারীর ক্ষমতায়নের আড়ালে হিন্দু ঐতিহ্য, আচার -অনুষ্ঠান এবং উৎসবের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ...

আর্য আক্রমণ তত্ত্ব মিথ্যা এবং আর্য সভ্যতার প্রমাণ সিন্ধু সভ্যতা।-দুর্মর

আর্য আক্রমণ তত্ত্ব মিথ্যা এবং আর্য সভ্যতার প্রমাণ সিন্ধু সভ্যতা। আমাদের দেশের সরকারি বইয়ে আর্যদের আগমনকে 'আর্য আক্রমণ তত্ত্ব' বলা হয়। এই বইগুলিতে আর্যদের...

আজ ভারতীয় হিন্দু সমাজ প্রায় নিশ্চিন্ন মাত্র একটি শব্দের প্রভাবে ।-ডাঃ মৃনাল কান্তি

মাত্র একটি শব্দের প্রভাবে আজ ভারতীয় হিন্দু সমাজ প্রায় নিশ্চিন্ন।-ডাঃ মৃনাল কান্তি আপনি নিশ্চয়ই ভারত মাতা কি জয়, জাতীয়তাবাদ, রাষ্ট্রদ্রোহের মতো শব্দগুলি প্রতিদিন শুনেছেন।...

২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ঘৃণ্য চক্রান্ত ব্যর্থ করল প্রশাসন!

২৬/১১-র মুম্বই হামলার ধাঁচেই নাশকতার ছক: দিল্লি, মুম্বাই, ইউপি তে সিরিয়াল বিস্ফোরণের ঘৃণ্য চক্রান্ত ব্যর্থ করল প্রশাসন! সবচেয়ে বড় কথা হল আইএসআইয়ের এই সম্পূর্ণ...

Recent Comments

%d bloggers like this: