হিন্দু নির্যাতন: মিথ্যা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির নামে ইতিহাস ধ্বংস করার হয়েছে। কেন রঙ্গনাথানন্দজী বিতাড়িত হলেন এবং করাচী মঠ পােড়ানাে হলাে। তিনি ছিলেন দক্ষিণ ভারতের কেরালা প্রদেশের নামবুদ্বী ব্রাহ্মণ পরিবারভুক্ত। করাচী শহর এবং পাকিস্তানে সব শহর গুলিতে ছিল খাটা পায়খানা যার মলগুলি পরিষ্কার করে হিন্দু মেথররা বাইরে ফেলে দিত। এরা ছিল মাদ্রাজী। তথা দক্ষিণ ভারতীয়।

ঐ সময় হিন্দুহত্যা আরম্ভ হলে ঐ মেথররা টাকা তুলে দুটো জাহাজ ভাড়া করে করাচী থেকে মাদ্রাজ যাওয়ার জন্য প্রস্তুত হয়। পাক সরকার দেখলাে স্বপরিবারে সব মেথর চলে গেলে মল ফেলবে কে? তখন বলপূর্বক জাহাজ দুটো পাক সরকার আটক করে রাখে এবং তাদের মাদ্রাজ যাত্রা বন্ধ করে দেয় এবং রটিয়ে দেওয়া হয় স্বামী রঙ্গনাথানন্দজীর পরামর্শে এই মেথররা পাকিস্তান ত্যাগ করছে ফল স্বরূপ মঠ ধ্বংস এবং অগ্নিসংযোেগ, ঐ সময় করাচী।

 

থেকে প্রচুর সিন্ধিরা বিমান যােগে ঢাকা এসে ঘােড়ার গাড়ী ভাড়া করে মিশনে উঠতাে, তাছাড়া রাত্রে মঠে মহিলাদের থাকা নিষিদ্ধ বলে, অনেক সিন্ধি পরিবারকে আমি ঢাকার মিশনের ভক্তদের বাড়ীতে থাকার ব্যবস্থা করে দিই। ২/৩ দিন থাকার পর তারা ট্রেনযােগে ঢাকা থেকে কলকাতা হয়ে ভারতে ঢুকেছে। এদের মধ্যে অধিকাংশ বিগত যৌবনা নারী এবং প্রেীঢ়। অর্থাৎ যুবতীরা অপহৃতা হয়েছেন এবং যুবকরা নিহত হয়েছেন।

এই সব ইতিহাস হিন্দুরা কোথাও লিপিবদ্ধ করেনি বরং ইতিহাস বিকৃত করেছে অথবা মিথ্যা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির নামে ইতিহাস ধ্বংস করেছে। অন্নদাশঙ্কর রায় তার বই “যুক্ত বঙ্গের স্মৃতি” পৃ. ১১২ তে লিখেছেন—“একদিন কুমিল্লার প্রসিদ্ধ উকীল ও নেতা কামিনী কুমার দত্ত ময়মনসিং এসে আমার সঙ্গে দেখা করেন, তাকে জিজ্ঞাসা করলে তিনি হেসে বলেন, যা পড়েছে বা শুনছে।

মিথ্যা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি
মিথ্যা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি

"use strict"; var adace_load_60fd932fc587d = function(){ var viewport = $(window).width(); var tabletStart = 601; var landscapeStart = 801; var tabletEnd = 961; var content = '%3Cdiv%20class%3D%22adace_adsense_60fd932fc5558%22%3E%3Cscript%20async%20src%3D%22%2F%2Fpagead2.googlesyndication.com%2Fpagead%2Fjs%2Fadsbygoogle.js%22%3E%3C%2Fscript%3E%0A%09%09%3Cins%20class%3D%22adsbygoogle%22%0A%09%09style%3D%22display%3Ablock%3B%22%0A%09%09data-ad-client%3D%22%20%20%20%20%20%20%20%20%20%28adsbygoogle%20%3D%20window.adsbygoogle%20%7C%7C%20%5B%5D%29.push%28%7B%7D%29%3B%20%22%0A%09%09data-ad-slot%3D%229569053436%22%0A%09%09data-ad-format%3D%22auto%22%0A%09%09%3E%3C%2Fins%3E%0A%09%09%3Cscript%3E%28adsbygoogle%20%3D%20window.adsbygoogle%20%7C%7C%20%5B%5D%29.push%28%7B%7D%29%3B%3C%2Fscript%3E%3C%2Fdiv%3E'; var unpack = true; if(viewport=tabletStart && viewport=landscapeStart && viewport=tabletStart && viewport=tabletEnd){ if ($wrapper.hasClass('.adace-hide-on-desktop')){ $wrapper.remove(); } } if(unpack) { $self.replaceWith(decodeURIComponent(content)); } } if($wrapper.css('visibility') === 'visible' ) { adace_load_60fd932fc587d(); } else { //fire when visible. var refreshIntervalId = setInterval(function(){ if($wrapper.css('visibility') === 'visible' ) { adace_load_60fd932fc587d(); clearInterval(refreshIntervalId); } }, 999); }

})(jQuery);